নারায়ণগঞ্জে এক রাতেই পেঁয়াজের দাম বাড়লো কেজিতে ৪০ টাকা

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৪৩ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ মঙ্গলবার

নারায়ণগঞ্জে এক রাতেই পেঁয়াজের দাম বাড়লো কেজিতে ৪০ টাকা

ভারত থেকে পেয়াজ আমদানী বন্ধ ঘোষণার পর থেকেই অস্বাভাবিক ভাবে বাড়ছে পেঁয়াজের মূল্য। ফলে ভোগান্তির সম্মুখিন হচ্ছে সাধারন ভোক্তারা। ঘোষণার পর থেকে গতকাল দিনের অর্ধেকটা সময় পেঁয়াজ বিক্রি বন্ধও রেখেছিল নারায়ণগঞ্জ শহরের সব চেয়ে বড় পাইকারি বাজার দিগুবাবুর বাজারের বিক্রেতারা।

১৫ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিনে দিগুবাবুর বাজারে দেখা যায়, যে পেঁয়াজ সকালেও বিক্রি হয়েছে ২৬০ টাকা (পাঁচ কেজি) দরে দুপুরে তা বিক্রি হয়েছে ৩১০ থেকে ৩৬০ টাকা দরে। দেশি পেঁয়াজ যা দুইদিন আগেও ৩৫০ টাকা বিক্রি হয়েছে তা বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৪০০ টাকা থেকে ৫০০ টাকায়। পেঁয়াজের দাম আরও বাড়তে পারে সে ভয়ে ক্রেতারা প্রয়োজনের অতিরিক্ত পেঁয়াজ কিনছেন। প্রতিবেদকের সামনে অল্প সময়ের ব্যবধানে একই ক্রেতা ভিন্ন ভিন্ন মূল্যে পেঁয়াজ বিক্রি করেছেন।

এদিকে পাইকারি বাজারের পাশাপাশি পাড়া-মহল্লার খুচরা বিক্রেতারাও অস্বাভাবিক হারে বাড়িয়েছে মূল্য। যে পেঁয়াজ দুইদিন আগেও ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে তা ক্রেতাদের ৯০-১০০ টাকা দরে কিনতে হচ্ছে।

ভোক্তাদের অভিযোগ, মূল্য বৃদ্ধির আতঙ্কে যখন ক্রেতারা বাজারে পেঁয়াজ কেনার জন্য ভিড় করছেন। তার সুযোগ নিয়ে অবৈধভাবে বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি করছেন খুচরা ও পাইকারি বিক্রেতারা। যে যার খুশি মতো পেঁয়াজের দাম চাচ্ছেন এবং ক্রেতারা এক প্রকার জিম্মি হয়েই সে দামে পেঁয়াজ কিনতে বাধ্য হচ্ছেন। এ সময় বাজারের মূল্য তদারকি করার জন্য কর্তৃপক্ষের বিশেষ তদারকির প্রয়োজন বলে মনে করছেন ভোক্তারা।

বিক্রেতারা বলেন, ভারত থেকে পেয়াজ আমদানী বন্ধ ঘোষণার পর থেকে বিক্রেতাদের মধ্যে অনিরাপত্তাবোধ দেখা দিচ্ছে। ফলে ঘোষনার পর থেকে কয়েক ঘন্টা পেঁয়াজ বেঁচা কেনাও বন্ধ রেখেছিলেন তারা।

ইমতিয়াজ আলি নামের এক ক্রেতা বলেন, ‘আমি দুইদিন আগেও ৩৫০ টাকায় পাঁচ কেজি দেশি পেঁয়াজ কিনেছিলাম। আজ সে একই পেঁয়াজের দাম বাজারে ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা (পাঁচ কেজি)। আবার কোথাও কোথাও ৫০০ টাকাও চাচ্ছে বিক্রেতারা।’

সানি নামের এক ক্রেতা বলেন, ‘আমি কয়েকদিন আগেও খুচরা মূল্যে ৬০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনেছিলাম। এদিকে আজ দোকানে গিয়ে দেখি দাম অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পেয়ে একই পেঁয়াজ ৯০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দাম চাচ্ছে। অথচ যতদুর জানি আমাদের দেশে এখনো পর্যন্ত যথেষ্ট পেঁয়াজের মজুদ রয়েছে। ফলে এর মধ্যে দাম বৃদ্ধি পাওয়ার কোনো কারণ আমরা দেখতে পাচ্ছি না। অবৈধভাবে এ দাম বৃদ্ধির বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষের পদক্ষেপ গ্রহন করা প্রয়োজন।’

তবে পুনরায় আগের মতো ২৫০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে কিনা সে বিষয় নিয়েও আতঙ্ক বিরাজ করছে সাধারন ভোক্তাদের মধ্যে।

এ বিষয়ে কথা বলতে নারায়ণগঞ্জ এর জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

গণমাধ্যম বরাতে জানা যায়, ভারত রপ্তানী বন্ধ করার আগেই বিকল্প দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানীর প্রক্রিয়া শুরু করেছে ব্যবসায়ীরা। চট্টগ্রাম থেকে এখন পর্যন্ত ১২ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানীর অনুমতি নিয়েছে তারা। বিশ্বের পাঁচটি দেশ থেকে এসব পেঁয়াজ আনা হবে বলে জানা যায়।


বিভাগ : অর্থনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও