করোনা : আইসিইউ সিট নাই, সাধারণ বেডও দিতে পারবো না

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৭:১৯ পিএম, ২০ জুলাই ২০২১ মঙ্গলবার

করোনা : আইসিইউ সিট নাই, সাধারণ বেডও দিতে পারবো না

নারায়ণগঞ্জে প্রতিদিন করোনা সংক্রমণ বেড়ে চলেছে। যা বেড়ে প্রতিদিনই পুরাতন রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড গড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৩১৬ জন যা কিনা করোনা সংক্রমণ শুরু থেকে এখনও পর্যন্ত সর্বোচ্চ আক্রান্ত। তবে এভাবে সংক্রমণ বৃদ্ধিতে আইসিইউ বেড ফিলাপ হয়ে গেছে আর এক সপ্তাহ পর সাধারণ বেডও দেওয়া না যেতে পারে আশঙ্কা করছেন সিভিল সার্জন ডা. মুহাম্মদ ইমতিয়াজ। ফলে বার বারই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

মঙ্গলবার সকালে দৈনিক সংক্রমণে রেকর্ড আক্রান্ত প্রকাশ হওয়ার বিষয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

নারায়ণগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা. মুহাম্মদ ইমতিয়াজ বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের কোভিড ডেডিকেটেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুইজন নারী মারা গেছেন। তাদের একজন সোনারগাঁও উপজেলার বয়স ৩০ ও অন্যজন্য রূপগঞ্জ উপজেলার বয়স ৫২।’

তিনি বলেন, ‘প্রতিদিনই সংক্রমণ বাড়ছে। লকডাউন শিথিল হওয়ার কারণে বাড়ছে এটাও একটা কারণ তবে এ সংক্রমণ বেড়ে একটা পর্যায়ে যাবে। বিশেষ করো আরো এক সপ্তাহ বেড়ে চূড়ায় যাবে। তারপরই সংক্রমণ কমবে। আমরা যদি ঈদের পর থেকে ঠিকভাবে লকডাউন করতে পারি তাহলে হয়তো সংক্রমণ কমবে।’

সংক্রমণ যেহেতু বাড়ছে সেক্ষেত্রে জেলায় চিকিৎসার পর্যাপ্ত ব্যবস্থা আছে? জবাবে তিনি বলেন, ‘পৃথিবীর কোন জায়গায় পর্যাপ্ত চিকিৎসা ব্যবস্থা নাই। আমাদের এখানেও নাই। আমাদের আইসিও ফিলাপ হয়ে গেছে (১০ বেড), সাধারণ বেড আছে ১২০টা কিন্তু তার মধ্যে ৮০টা ফিলাপ হয়ে গেছে। যে হারে বাড়ছে তাতে হতে পারে আর এক সপ্তাহ পরে হয়তো আমরা সাধারণ বেডও দিতে পারবো না। যতটুকু আছে তা দিয়েই সেবা দেওয়ার চেষ্টা চলছে।’

লকডাউন শিথিল হওয়ায় মানুষের অসচেতন ভাবে চলাচলে ঈদের পর কি প্রভাব পরবে? তিনি বলেন, ‘অবশ্যই প্রভাব পরবে। সামনে আরো কয়েকদিন পর সংক্রমন আরো বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘বার বার যেটা বলা হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, ঘর থেকে বের হলে মাস্ক ব্যবহার করা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা। যেহেতু কোরবানি সেহেতু কোরবানিতে যেন লোকসমাগম কম হয়। যতটুকু সম্ভব হয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা। ঈদগাহ বা মসজিদে গেলে সবাই যেন ফাঁকা ফাঁকা হয়ে দাঁড়ায়। অবশ্যই যেন মাস্ক পড়ে থাকে। স্বাস্থ্যবিধি যেন মেনে চলে। এতেই যদি আরো ১০ ভাগ করোনা সংক্রমণ কমে। সন্ধেহ নেই, আরো বাড়বে। তবে সেই সংক্রমণ যেন কম বাড়ে আমরা সেটাই চেষ্টা করছি।’

প্রসঙ্গত সোমবার সকাল ৮টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় ৭৮৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ৩১৬ জন করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। যার প্রতি একশ’টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ৪০.২৫। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২ জন নারী। সুস্থ হয়েছেন ১১২ জন।

আরো জানান, ‘জেলায় ১ লাখ ২৮ হাজার ৬১৮ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ১৭ হাজার ৫১৫ জন কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মারা গেছেন ২৪০ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১৪ হাজার ২২৪ জন। এখনও আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৩ হাজার ৫১জন। সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত সিটি করপোরেশন এলাকায়। যেখানে আক্রান্ত ৮৯১ জন, আড়াইহাজার উপজেলায় ১৮৭, বন্দর উপজেলায় ৫৫৪, রূপগঞ্জ উপজেলায় ৪৯২, সদর উপজেলায় ৬৩৬ ও সোনারগাঁও উপজেলায় ২৯১ জন।


বিভাগ : স্বাস্থ্য


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও