নারায়ণগঞ্জে একদিনে ১ লাখ টিকা

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:০০ পিএম, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ সোমবার

নারায়ণগঞ্জে একদিনে ১ লাখ টিকা

একদিনেই নারায়ণগঞ্জ জেলায় করোনার ১ লাখ ডোজ টিকা প্রদান করা হবে। উপলক্ষ্য বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন।

জেলা সিভিল সার্জন অফিস জানিয়েছে, জেলার প্রতিটি ইউনিয়নে ১৫০০ ডোজ টিকা এবং সিটি করপোরেশনের প্রতিটি ওয়ার্ডে ১০০০ ডোজ টিকা প্রদান করা হবে। সে হিসেবে জেলার ৪৪ টি ইউনিয়নে প্রদান করা হবে ৬৬ হাজার ডোজ টিকা এবং ২৭ টি ওয়ার্ডে প্রদান করা হবে ২৭ হাজার ডোজ টিকা। কিছু ওয়েস্টেজ ধরা হয়েছে।

সূত্রমতে, এমনিতে প্রতিদিন নারায়ণগঞ্জ জেলায় ১২ হাজার ডোজ টিকা প্রদান করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষ্যে নিবন্ধনকারীদের টিকা দেয়া হবে। ৪০ বছরের ঊর্ধ্বের লোকজন অগ্রাধিকার পাবেন। টিকা গ্রহণে ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জের ৮ লক্ষাধিক (৮ লাখ ৮৪ হাজার ১২৬ জন) মানুষ সুরক্ষা প্লাটফর্মে নিবন্ধন করেছেন। এর মাঝে মহানগরের বাসিন্দা ১ লাখ ৮০ হাজার ৪৬৫ জন। আর উপজেলা পর্যায়ে ৭ লাখ ৪ হাজার ১২৬ জন এ নিবন্ধন সম্পন্ন করেছেন। প্রথম দিকে অবহেলা করলেও মানুষ ভুক্তভোগী হয়ে বুঝেছেন যে টিকা নেয়াটা জরুরী। এখন টিকা নিতে নিবন্ধন (রেজিস্ট্রেশন) করেছেন লাখো মানুষ।

নারায়ণগঞ্জে গত ৭ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে করোনার টিকাদান কার্যক্রমের উদ্বোধন হয়। টিকাদান শুরুর পর ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সাড়ে ৭ মাসে মহানগরসহ নারায়ণগঞ্জ জেলার প্রায় পৌণে ৪ লাখ মানুষ দুই ডোজ টিকার আওতায় এসেছেন। এছাড়া এক ডোজ টিকা পেয়েছেন সোয়া ৫ লাখ।

উপজেলার চিত্র : নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলায় শুধুমাত্র সিনোফার্মার টিকা দেয়া হয়েছে ৭ হাজার ৯৪৫ জনকে। বন্দর উপজেলায় এ্যাসট্রেজেনেকার প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে ৯ হাজার ৭৬৮ জনকে, দ্বিতীয় ডোজ ৮ হাজার ৬৩৪ জনকে। সিনোফার্মার প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে ৩৩ হাজার ৯৯০ জনকে, দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হয়েছে ১৬ হাজার ৫৭৫ জনকে। সোনারগাঁ উপজেলায় এ্যাসট্রেজেনেকার প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে ১৪ হাজার ৯১০ জনকে, দ্বিতীয় ডোজ ১৩ হাজার ২৭৮ জনকে। সিনোফার্মার প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে ৫৮ হাজার ৪৩৩ জনকে, দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হয়েছে ৩৫ হাজার ১১১ জনকে। আড়াইহাজার উপজেলায় এ্যাসট্রেজেনেকার প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে ১১ হাজার ৩৭১ জনকে, দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হয়েছে ৯ হাজার ৩৬৪ জনকে। সিনোফার্মার প্রথম ডোজ ৬২ হাজার ৬২৫ জনকে, দ্বিতীয় ডোজ ৩২ হাজার ২২৯ জনকে। রূপগঞ্জ উপজেলায় এ্যাসট্রেজেনেকার প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে ১৩ হাজার ৯৪৪ জনকে, দ্বিতীয় ডোজ ১১ হাজার ৯৩৮ জনকে। সিনোফার্মার প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে ৪৯ হাজার ৭৯৭ জনকে, দ্বিতীয় ডোজ ২৮ হাজার ২৯২ জনকে।

জানাগেছে, নারায়ণগঞ্জ জেলায় মোট টিকা এসেছে ৯ লাখ ৯ হাজার ৬‘শ ডোজ। প্রায় পৌণে ৪ লাখ মানুষ দুই ডোজ টিকার আওতায় এসেছেন। এছাড়া এক ডোজ টিকা পেয়েছেন সোয়া ৫ লাখ। ৫ লাখ ১১ হাজার ৮৬৫ টিকা গ্রহীতা দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষায় আছেন। সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ২ টি ও উপজেলাগুলোর ৫টি স্থায়ী কেন্দ্রে এ টিকাদান কার্য্যক্রম চলমান রয়েছে। শুরুতে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রেজেনেকার টিকা দিয়ে টিকাদান কার্যক্রম উদ্বোধন হয় নারায়ণগঞ্জে। তবে পরবর্তীতে মডার্না এবং সিনোফার্মের টিকাও আসে। বর্তমানে অ্যাস্ট্রেজেনেকা ও মডার্নার দ্বিতীয় ডোজ এবং প্রথম ডোজ হিসেবে সিনোফার্মের টিকার প্রয়োগ চলছে।

সবমিলিয়ে ৯ লাখের কিছু বেশি ডোজ টিকা পাওয়া গেছে জানিয়ে সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইমতিয়াজ বলেন, এর মাঝে ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৮ লাখ ডোজ টিকার প্রয়োগ করা হয়েছে। এর মাঝে ৩ লাখ ৩৬ হাজার ১ ‘শ মানুষ দুই ডোজ টিকা পেয়েছেন। আর এক ডোজ পেয়েছেন ৫ লাখ ১১ হাজার ৮৬৫ জন টিকা গ্রহীতা।

প্রসঙ্গত, গত ৭ সেপ্টেম্বর গণ টিকার ২য় দফা ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে দুই ডোজ টিকা গ্রহীতার সংখ্যা ৩ লাখ পার হয় নারায়ণগঞ্জে। হিসেবে পরবর্তী ১০/১১ দিনে প্রায় ৩৬ হাজার মানুষ দুই ডোজের আওতায় এসেছেন। টিকা প্রদানের সংখ্যা বাড়াতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে জানিয়ে সিভিল সার্জন বলেন, কেন্দ্রগুলোতে বুথ বাড়ানো হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন কেন্দ্রের অধীনে উপ কেন্দ্র চালু করা হচ্ছে। যাতে আরো বেশি সংখ্যক মানুষকে টিকার আওতায় আনা যায়।

সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রাপ্ত তথ্য (২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত) অনুযায়ী, নারায়ণগঞ্জ জেলায় এ পর্যন্ত অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রেজেনেকার টিকার প্রয়োগ হয়েছে বেশি। সবমিলিয়ে ২ লাখ ৩১ হাজার ৮০০ ডোজ অ্যাস্ট্রেজেনেকার টিকা দেয়া হয়েছে । এর মধ্যে প্রথম ডোজ পেয়েছেন ১ লাখ ২০ হাজার ৫৯৯ জন। আর এ টিকার দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন ১ লাখ ৫ হাজার ৮৪৪ জন। অ্যাস্ট্রেজেনেকার পর প্রয়োগের দিক থেকে দ্বিতীয় শীর্ষে রয়েছে চীনের তৈরি সিনোফার্মের টিকা। এ পর্যন্ত সিনোফার্মের ৪ লাখ ৫৪ হাজার ২০০ ডোজ টিকা প্রয়োগ হয়েছে। এর মাঝে প্রথম ডোজ পেয়েছেন ২ লাখ ৮০ হাজার ৬২৮ জন। আর ১ লাখ ২৩ হাজার ৯৬৫ জন টিকা গ্রহীতা এ টিকার পূর্ণ (দুই) ডোজ পেয়েছেন।

মডার্নার টিকা প্রয়োগ করা হয় কেবল সিটিকর্পোরেশন এলাকায়। মডার্নার এ পর্যন্ত ২ লাখ ২৩ হাজার ৮৮০ ডোজ টিকা প্রয়োগ করা হয়েছে। এর মাঝে প্রথম ডোজ গ্রহিতার সংখ্যা ১ লাখ ১০ হাজার ৬৩৮ জন। আর পূর্ন (দুই) ডোজ পেয়েছেন ২ লাখ ২৩ হাজার ৮৮০ জন। অবশ্য, গতকাল প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ হিসেবে প্রায় ৪ হাজার ডোজ টিকার প্রয়োগ হয়েছে।

৭ আগস্ট প্রথম দফা গণটিকা ক্যাম্পেইনে মহানগরসহ জেলায় লক্ষাধিক মানুষকে প্রথম ডোজ দেয়া হয়। এর মাঝে মহানগরে ৩৬ হাজার ৭৩৫ জনকে দেয়া হয় মডার্নার টিকা। আর উপজেলা পর্যায়ে সিনোফার্মের টিকা পান ৬৩ হাজার ২৬৫ জন।

পরবর্তীতে ৭ সেপ্টেম্বর দ্বিতীয় দফা গণটিকার মাধ্যমে এসব প্রথম ডোজ গ্রহিতাদের দ্বিতীয় ডোজের আওতায় আনা হয়। সে হিসেবে কেবল গণটিকা ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে মহানগরসহ জেলায় লক্ষাধিক মানুষ দুই ডোজ টিকার আওতায় এসেছেন।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সবমিলিয়ে ৯ লাখ ৯ হাজার ৬০০ ডোজ টিকা পেয়েছে নারায়ণগঞ্জ। এর মাঝে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রেজেনেকার ২ লাখ ৩১ হাজার ৮০০ ডোজ, মডার্নার ২ লাখ ২৩ হাজার ৬৮০ ডোজ এবং সিনোফার্মের ৪ লাখ ৫৪ হাজার ২০০ ডোজ টিকা এসেছে নারায়ণগঞ্জে।


বিভাগ : স্বাস্থ্য


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও