মশলার দোকানে ক্রেতারা


স্টাফ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:১৮ পিএম, ১৯ জুলাই ২০২১, সোমবার
মশলার দোকানে ক্রেতারা

২১ জুলাই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ধর্মপ্রাণ মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষের দ্বিতীয় বৃহত্তম ঈদ উৎসব পবিত্র ঈদল আযহা। আর এ ধর্মীয় অনুষ্ঠানের অন্যতম বিষয় পশু কোরবানী। তাই ইতোমধ্যে অনেকেই কোরবানীর পশু কিনে ফেলেছেন। তবে এখন আর পশুর হাটে ভীড় না করে ক্রেতারা ভীড় করছে মুদির দোকানে। প্রায় বেশিভাগ মানুষই গরু মাংসের মশলা, তৈল, লবনসহ প্রয়োজনী জিনিস পত্র কিনতে ব্যস্ত

নারায়ণগঞ্জ শহরের দিগুবাবু বাজারে দেখা গেছে ক্রেতাদের মুদির দোকানে ভীড় করার দৃশ্য। কেউ কিনছেন তেল, গরুর মাংসের মশলা, আবার কেউ ঈদের বাজারের সাথে সপ্তাহের বাজারও করে ফেলছেন। মুদির দোকানের পাশাপাশি বাইরে ফুটপাতে মশলার পসারা সাজিয়ে বাস দোকানগুলোতেও ক্রেতারা ভীড় করছে। ক্রেতাদের দাবি ঈদের উপলক্ষে অনেক মশলার দাম বাড়িয়ে দিয়েছে দোকানীরা।

অন্যদিকে বিক্রেতাদের দাবি, ঈদের সময় বেশ কিছু মশলার চাহিদা বেড়ে যায়। তাই এজন্য কিছু মশলার দাম একটু বেশি তবে অন্যান মশলার দাম ঠিকই আছে।

জানা গেছে, আর্থিক ভাবে সমৃদ্ধ ব্যক্তির জন্য ঈদুল আযহার পশু কোরবানীর বিষয়টি ইসলামিক শরিয়ত মোতাবেক প্রতিষ্ঠিত। তাই সকলের নিজের সামর্থ অনুযায়ী বিভিন্ন পশু কোরবানী দিয়ে থাকেন। তবে কোরবানীর পশুর মধ্যে গরুই সব থেকে বেশি কোরবানী দেযা হয়। গরু ছাড়াও কেউ কেউ ছাগল, খাসী, ভেড়া, উঠ ইত্যাদি পশু কোরবানী দিয়ে থাকেন। অনেকেই কোরবানীর পশু এখনও ক্রয় করেনি। যারা এখন নারায়ণগঞ্জ শহরের হাটগুলোতে ভীড় করছেন। মশলা ক্রেতা মঞ্জু মিয়া বলেন, সকালে কোরবানীর গরু কেনার পর মশলা কিনতে এসেছি। তবে সব মশলার দাম বাড়িয়ে দিয়েছে বিক্রেতারা। এ সপ্তাহ আগেও যে মশলার কেজি ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা ছিল। তা ২/৩ দিনের ব্যবধানে ১ হাজার থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা বাড়িয়ে দিয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর