নতুন বইয়ের ঘ্রাণ


স্টাফ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ১০:১৫ পিএম, ০২ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার
নতুন বইয়ের ঘ্রাণ

করোনা প্রার্দুভাব ঠেকাতে এবছর সংক্ষিপ্ত আয়োজনে নারায়ণগঞ্জের স্কুলগুলোতে বই বিতরণ শুরু হয়েছে। করোনার সংক্রামণ রোধে এভাবে বই দেওয়া হচ্ছে বলে জানান জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তারা।

১ জানুয়ারী শুক্রবার সকাল থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে উৎসবের আমেজে শিক্ষার্থীদের হাতে বিনা মূল্যের বই তুলে দেওয়া হয়। এসময় নতুন বই পেয়ে শিক্ষার্থীদের উল্লাস করতে দেখা গেছে।

সকালে জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন বই বিতরণ উৎসবের উদ্বোধন করেন। এছাড়াও বিভিন্ন উপজেলা পর্যায়ে ইউএনও শিক্ষা অফিসাররা আনুষ্ঠানিকভাবে এ কার্যক্রম শুরু হয়।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সূত্রে জানা গেছে, ‘২৮ ডিসেম্বর সকাল থেকে ২০২১ শিক্ষা বর্ষের প্রাক প্রাথমিক শ্রেনি, প্রাথমিক স্তরের পাঠ্যপুস্তক বিতরণ শুরু হয়। ১৫ জানুয়ারির মধ্যে প্রতিটি স্কুলের সকল শ্রেনির শিক্ষার্থীদের মধ্যে এসব বই বিতরণ করা হবে। এছাড়া এককেক দিনে একক শ্রেনির স্বাস্থ্যবিধি মেনে এসব বই বিতরণ করা হবে।’

আরো জানান যায়, বাংলা ভার্সনে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেনি থেকে ৫ম শ্রেনি পর্যন্ত ১৬ লাখ ৯৬ হাজার ২১৯টি বই বিতরণ করা হবে। ইংরেজি ভার্সনে ৮ হাজার ২৮টি ও অন্যান্য ধর্মীয় বই ১৩৬টি। এর মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেনিতে ৫৫ হাজার ৭৮৭টি, প্রথম শ্রেনির ২ লাখ ৩৭ হাজার ৫৭০টি, দ্বিতীয় শ্রেনিতে ২ লাখ ৩৩ হাজার ৫৬২টি, তৃতীয় শ্রেনিতে ৪৪ লাখ ৬ হাজার ৬৫২টি, চতুর্থ শ্রেনিতে ৪০ লাখ ৬ হাজার ৮৫৬টি ও পঞ্চম শ্রেনিতে ৩১ লাখ ৫ হাজার ৭৯২টি বই দেয়া হবে। আর ইংরেজি ভার্সনে প্রথম শ্রেনিতে ১ হাজার ৩০৫টি, দ্বিতীয় শ্রেনিতে ১ হাজার ২১৫টি, তৃতীয় শ্রেনিতে ২ হাজার ১৩০টি, চতুর্থ শ্রেনিতে ১ হাজার ৯৫০টি ও পঞ্চম শ্রেনিতে ১ হাজার ৪২৮টি।

এছাড়াও সদর উপজেলায় ৭ লাখ ৮৭ হাজার ৭৪৪টি। এর মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেনিতে ২০ হাজার ৬৪৪টি, প্রথম শ্রেনিতে ১ লাখ ৪ হাজার ৪০০টি, দ্বিতীয় শ্রেনিতে ১ লাখ ২ হাজার ৯০০টি, তৃতীয় শ্রনিতে ১ লাখ ৯৫ হাজার, চতুর্থ শ্রেনিতে ১ লাখ ৮৪ হাজার ৮০০টি ও পঞ্চম শ্রেনিতে ১ লাখ ৮০ হাজার বই।

বন্দর উপজেলা ১ লাখ ৫৯ হাজার ৮২৯টি। এর মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেনিতে ৬ হাজার ৭৫৫ টি, প্রথম শ্রেনিতে ২৩ হাজার ৭০০টি, দ্বিতীয় শ্রেনিতে ২৩ হাজার ২২টি, তৃতীয় শ্রেনিতে ৪৪ হাজার ৯৫২টি, চতুর্থ শ্রেনিতে ২২ হাজার ৪০০টি ও পঞ্চম শ্রেনিতে ৩৯ হাজার বই।

সোনারগাঁও উপজেলায় ২ লাখ ৪২ হাজার ১৬৬টি বই। এর মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেনিতে ৮ হাজার ৩৮৮টি, প্রথম শ্রেনিতে ৩১ হাজার ৪৭০টি, দ্বিতীয় শ্রেনিতে ৩০ হাজার ৮৪০টি, তৃতীয় শ্রনিতে ৫৯ হাজার ৪০০টি, চতুর্থ শ্রেনিতে ৫৯ হাজার ২৫৬টি ও পঞ্চম শ্রেনিতে ৫২ হাজার ৮১২ বই।

আড়াইহাজার উপজেলায় ২ লাখ ৬২ হাজার ৫০টি বই। এর মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেনিতে ৭ হাজার ৫০০টি, প্রথম শ্রেনিতে ৩৬ হাজার, দ্বিতীয় শ্রেনিতে ৩৫ হাজার ৪০০টি, তৃতীয় শ্রনিতে ৬৭ হাজার ৫০০ টি , চতুর্থ শ্রেনিতে ৬৪ হাজার ৮০০টি ও পঞ্চম শ্রেনিতে ৫০ হাজার ৮৫০টি বই।

রূপগঞ্জ উপজেলায় ৩ লাখ ১৫ হাজার ৫০০টি বই। এর মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেনিতে ১২ হাজার ৫০০ টি, প্রথম শ্রেনিতে ৪২ হাজার, দ্বিতীয় শ্রেনিতে ৪১ হাজার ৪০০টি, তৃতীয় শ্রনিতে ৭৯ হাজার ৮০০টি, চতুর্থ শ্রেনিতে ৭৫ হাজার ৬০০টি ও পঞ্চম শ্রেনিতে ৬৪ হাজার ২০০টি বই।

ঢাকায় একটি অনুষ্ঠানে শিক্ষা মন্ত্রী জানান,‘প্রাইমারী ও মাধ্যমিকের সকল শিক্ষার্থী বিনামূল্যে ১৫ জানুয়ারির মধ্যে বই পেয়ে যাবে। অন্যান্য বছর প্রধানমন্ত্রী বই উৎসব উদ্বোধন করলেও এবার করোনার জন্য সেই উৎসব হচ্ছে না। কিন্তু প্রতি বছরের মতো এবারও বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের হাতে বই পৌছে দিচ্ছেন।

আরো জানান, প্রাইমারী স্কুলের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের স্কুলে গিয়ে তাদের বাচ্চাদের জন্য বই সংগ্রহ করতে হবে। করোনার পরিস্থিতির জন্যই এ ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রতিটি প্রাইমারী স্কুলে একদিনে সর্বোচ্চ ২০০ শিক্ষার্থীর মধ্যে বই বিতরণ করা হবে।’

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর