হাই স্কুল থেকে বাসায় পাঠানো হলো দুই ছাত্রকে


স্টাফ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ১১:০৩ পিএম, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, রবিবার
হাই স্কুল থেকে বাসায় পাঠানো হলো দুই ছাত্রকে

করোনা সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নারায়ণগঞ্জে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু হয়েছে। দীর্ঘদিন পর আবারও স্কুল চালু হওয়ায় উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা। তবে প্রথম দিনে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কিছুটা কম ছিল। এর মধ্যে দুই শিক্ষার্থীর তাপমাত্রা ১০০ ডিগ্রী ফারেনহাইট পাওয়ায় তাদের বাসায় পাঠিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

১২ সেপ্টেম্বর রোববার সকালে সরেজমিনে সদর উপজেলার ফতুল্লা ইউনিয়নের সেহাচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা গেছে, সকাল ৯টা ৪০ মিনিটে স্কুল শুরু হলেও ৯টা থেকেই শিক্ষার্থীরা উপস্থিত হতে শুরু করেন। পরবর্তীতে বেসিনে হাত ধুয়ে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে, তাপমাত্রা মেপে ও হাতে হ্যান্ডস্যানেটাইজর স্প্রে করে স্কুলের শ্রেনির কক্ষে প্রবেশ করানো হয়। জেড আকৃতিতে প্রতিটি বেঞ্চে একজন করে শিক্ষার্থী বসতে দেওয়া হয়। এসময় যেসব শিক্ষার্থীদের মুখে মাস্ক ছিল না তাদেরকে বিদ্যালয় থেকে মাস্ক দেওয়া হয়।

এছাড়া নারায়ণগঞ্জ শহরের আরো ৫টি স্কুল ঘুরে একই ভাবে স্বাস্থ্য বিধি মানতে দেখা গেছে। এগুলো হলো, নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজ, বিদ্যানিকেতন হাইস্কুল, গণবিদ্যা নিকেতন হাই স্কুল, ফতুল্লা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও শিশু কল্যাণ প্রাথমিক বিদ্যালয়।

নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ কামরুল ইসলাম বলেন, ‘প্রথম দিনে ৮০২ জন শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিল। শতক হিসেবে ৯০ ভাগ শিক্ষার্থী উপস্থিত। আশা করছি দুই একদিনের মধ্যে শতভাগ হয়ে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘প্রথম দিনে আমরা দুইজন শিক্ষার্থীর তাপমাত্রা ১০০ ডিগ্রী ফারেনহাইট পাওয়া গেছে। তাই তাদের প্রথমে স্কুলে আইসোলেশনে রাখা হয়। পরে অভিভাবকদের মাধ্যমে বাসায় পাঠিয়ে দিয়েছি। তাছাড়া বাকি সবাই সুস্থ ছিল।’

বিদ্যা নিকেতন হাই স্কুলের পরিচালনা পষদের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘যেখানে শতকরা ৯৫ ভাগ শিক্ষার্থী উপস্থিত থাকে সেখানে শতকরা ৮১ ভাগ শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিল। সে হিসেবে শিক্ষার্থী কম। তবে এসএসসির পরীক্ষার্থীদের উপস্থিতি বেশি ছিল।’

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার অহীন্দ্র কুমার ম-ল বলেন, ‘জেলায় ৩টি শিশু কল্যান সহ ৫৫০টি প্রাইমারী স্কুল খোলা আছে। কোন স্কুল বন্ধ নেই। প্রথম দিন কিছু শিক্ষার্থী কম ছিল। তাও শতকরা ৮০ থেকে ৮২ ভাগ শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিল। তবে কোন শিশু অসুস্থ এমন খবর পাওয়া যায়নি।’

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর