নারায়ণগঞ্জে অল্পের জন্য বড় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা (ভিডিও)


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ১০:৩৬ পিএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার
নারায়ণগঞ্জে অল্পের জন্য বড় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা (ভিডিও)

‘আল্লাহর অশেষ রহমতে অল্পের জন্য বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে গেলো ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ ট্রেনের যাত্রী এবং রেল লাইনের আশেপাশে থাকা পথচারী ও দোকানীরা।’

২৪ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুরে ফকিরটোলা মসজিদের সামনে দাঁড়িয়ে কথাগুলো বলছিলেন ফকির মিয়া যিনি বেলা ১টায় ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ার প্রত্যক্ষদর্শী।

তিনি বলেন, ‘ট্রেনটা এমন ভাবে এসে থেমেছে যে যারা যাত্রী ছিল তারা চিৎকার করে উঠে। আশেপাশের সবাই ভয়ে এদিক ওদিক ছুঁটতে শুরু করে। এ দৃশ্য নিজের চোখে না দেখলে বলে বুঝানো যাবে না।’

ফকিরটোলা মসজিদের পাশে মুদি দোকানদার শরীফ নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘২নং রেল গেট ক্রস করার পর থেকেই ট্রেনটি ধীরগতিতে স্টেশনে যাচ্ছিল। এর মধ্যে হঠাৎ করে ট্রেনের চাকা দিয়ে ধোয়া বের হয়ে যায়। ওমনি ট্রেনটাও থেমে যায়। তবে এতে কারো কোন ক্ষতি হয়নি। যাত্রীরা লাফিয়ে ট্রেন থেকে নামতে শুরু করে। মানুষের মধ্যে একটা আতঙ্ক সৃষ্টি হয়ে যায়। ভাগ্য ভালো যে ট্রেনটা কোন পাশে কাত হয়ে পরে যায়নি। যদি এক পাশে পরে যেতো তাহলেই যে কোন দুর্ঘটনা ঘটতে পারতো।’

সরেজমিনে দেখা যায়, ২নং রেল গেট থেকে নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত লাইনের দুই পাশে ফল, পান, কাঁচাসবজি, শুটকি মাছ, স্টেশনারী, মুদি ও জুতার সহ শতাধিক দোকান রয়েছে। এসব দোকানগুলো রেল লাইন লাগুয়া। ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ার পর অনেক দোকানের মালামাল ট্রেনের নিচে চলে গেছে। তবে এতে কেউ আহত বা নিহত হয়নি। কিন্তু দোকানগুলো থাকায় এর পাশ দিয়ে যাতায়াত করতে পারেছেন না রেলওয়ে পুলিশ ও রেলওয়ের কর্মকর্তারা। একাধিকবার দোকান সরিয়ে নিতে বললেও দোকানীরা তাদের দোকান সরিয়ে নিতে নারাজ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ২নং রেল গেট এর পাশে থাকা পুলিশ বক্সের একজন পুলিশ সদস্য নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘আল্লাহ বড় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা করেছে। আজকে ট্রেন যদি আরো গতিতে চলাচল করতো কিংবা এক পাশে কাত হয়ে পরে যেতো তাহলে হতাহতের ঘটনা ঘটে যেতো। আল্লাহর রহমত ছিল বলেই আজ বড় দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে গেলো নারায়ণগঞ্জবাসী।’

তিনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে আরো বলেন, ‘রেল লাইনের ভালোভাবে দেখাশোনা করা প্রয়োজন। ভালোভাবে দেখাশোনা করলে হয়তো এ ঘটনা ঘটতো না। আর এখনই রেলওয়ে কর্মকর্তাদের সচেতন হতে হবে। কারণ এ লাইনের পাশে যে ঝুঁকিপূর্ণ দোকান রয়েছে এগুলো উচ্ছেদ করতে হবে। নিয়ম অনুযায়ী দুই পাশে ৪০ ফুট জায়গা ফাঁকা রাখতে হবে। অন্যথায় ভবিষ্যতে বড় দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। কোন ঘটনা ঘটার আগেই সচেতন হওয়া প্রয়োজন।’

নারায়ণগঞ্জ রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোকলেস রহমান নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘এটা সত্য বড় কোন দুর্ঘটনা ঘটেনি। এরজন্য আল্লাহর অশেষ রহমত।’

রেললাইনের দুই পাশে জায়গা নেই কেন? তিনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘দুই পাশেই রেলওয়ের জায়গা। কিন্তু এগুলো অবৈধভাবে দখল করে রেখেছে। এ নিয়ে আমি একাধিকবার উর্ধ্বতনদের জানিয়েছি। কিন্তু উল্টো এখান থেকে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ দেয়া হয়েছে।’

তিনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে আরো বলেন, ‘আমিও চাই না রেল লাইনের দুইপাশে কোন দোকান থাকুক। কিন্তু এর বিরুদ্ধে আমি কিছুই করতে পারছি না। আজকে কোন ঘটনা ঘটলে তখন সবাই এটা নিয়েই কথা বলতো। এখন আমি নতুন করে আবারও উর্ধ্বতনদের জানাবো যাতে রেল লাইনের দুই পাশের দোকান উচ্ছেদ করা হয়।’

নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশন মাস্টার গোলাম মোস্তফা এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজি হননি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর