ড্রেনের পলিথিন উঠাতেই বৃষ্টিতে জলমগ্ন পরিস্কার


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ১১:১২ পিএম, ২২ জুন ২০২১, মঙ্গলবার
ড্রেনের পলিথিন উঠাতেই বৃষ্টিতে জলমগ্ন পরিস্কার

আষাঢ়ি বর্ষণে নারায়ণগঞ্জ শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতা। আর এ জলাবদ্ধতায় দুর্ভোগে নগরবাসী। কিন্তু এ জলাবদ্ধতা মূহূর্তেই শেষ হয়ে গেছে শুধু মাত্র সড়কের পাশে ড্রেনের মুখগুলো পরিস্কার করে দিয়ে। ফলে প্রতিবারই রাস্তায় পলিথিন, প্লাস্টিক ও ময়লা আবর্জনা না ফেলার আহবান জানিয়েছেন সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা।

২২ জুন মঙ্গলবার সকালে সরেজমিনে শহরের চাষাঢ়া নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে হাত দিয়ে ড্রেনের মুখে জমে থাকা পলিথিন ও ময়লা আবর্জনা পরিস্কার করতে দেখা যায় সিটি করপোরেশনের কর্মীদের। তার ঠিক আধা ঘণ্টা পরই নগরী জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি পায়।

এর আগে সোমবার রাত থেকেই শুরু হয় ভারী বৃষ্টি। রাত থেকে টানা বৃষ্টি ছিল সকাল ১০টা পর্যন্ত। ফলে টানা বৃষ্টিতে নগরীর বঙ্গবন্ধু সড়ক সহ আশে পাশের এলাকায়ও জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়।

সরেজমিনে দেখা যায়, ‘শহরের ২নং রেল গেট থেকে চাষাঢ়া গোল চত্ত্বর পর্যন্ত রাস্তার উভয় পাশে বিভিন্ন পয়েন্টে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এ পানি পারিয়ে চলাচল করে পথচারী ও শ্রমজীবী মানুষ। অনেকের দোকানেও পানি ঢুকে পরে। কিন্তু জলাবদ্ধতার নিরসনে সকাল থেকেই কাজ শুরু করেন সিটি করপোরেশনের কর্মীরা। বঙ্গবন্ধু সড়কের ড্রেনের মুখগুলো খোঁজে খোঁজে পরিস্কার করতে শুরু করেন। বিভিন্ন পয়েন্টে পলিথিন ও ময়লা জমে ড্রেনের মুখগুলো বন্ধ হয়ে থাকায় এ জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান পরিচ্ছন্ন কর্মীরা।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা আলমগীর হিরণ বলেন, ‘প্রচুর বৃষ্টি হয়েছে। ফলে নগরীতে পানি পরিমান অনেক বেশি। আমরা খোঁজ নিয়ে দেখেছি যে পানি নদীতে যাচ্ছে কিনা। তবে পানি ঠিক যাচ্ছে। এ পানি নিষ্কাশনের জন্যও সময় প্রয়োজন।’

তিনি বলেন, ‘ড্রেনগুলো দিয়ে পানি নিষ্কাশন হলেও অনেকগুলো ড্রেনের মুখ বন্ধ হয়ে আছে। আমরা ওইসব ড্রেনের মুখগুলো পরিস্কার করে দেওয়ার আধা ঘণ্টার মধ্যেই পানি সরে গেছে। তাই প্রতিবারই নগরবাসীর কাছে অনুরোধ জানাই যে তারা যেন ড্রেনে পলিথিন, প্লাস্টিক এবং ময়লা আবর্জনা না ফেলে। কারণ এসব ড্রেনের মুখে গিয়ে বন্ধ হয়ে থাকে। ফলে বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়।’

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর