লকডাউনে ম্যাজিস্ট্রেট সেনাবাহিনী বিজিবি র‌্যাব পুলিশ আনসার


স্টাফ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৬:৫৯ পিএম, ২৩ জুলাই ২০২১, শুক্রবার
লকডাউনে ম্যাজিস্ট্রেট সেনাবাহিনী বিজিবি র‌্যাব পুলিশ আনসার

করোনাভাইরাসের ডেলটা ভেরিয়েন্ট সংক্রমন প্রতিরোধ করার জন্য ২৩ জুলাই ভোর ৬টা থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত কঠোর লকডাউনের সিদ্ধান্ত দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়। যার মধ্যে অন্যতম জেলা হলো শিল্প নগরী নারায়ণগঞ্জ।

নারায়ণগঞ্জে জেলা প্রশাসনের সরাসরি তত্ত্বাবধায়নে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে ২৩টি মোবাইল কোর্ট টিম, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৩টি পেট্রোলটিমে প্রায় ৪৬ জন, বিজিবির ২ প্লাটুনে প্রায় ৪০ জন, র‌্যাবের ১টি টিম পেট্রোলিংয়ে, ব্যাটালিয়ন আনসার/সাধারণ আনসার এবং জেলা পুলিশ বিভাগসহ করোনা ভাইরাসজনিত রোগ (কোভিড-১৯) এর বিস্তার রোধকল্পে নারায়ণগঞ্জ জেলায় কঠোর বিধি নিষেধ আরোপ এবং আইন শৃঙ্খলা রক্ষা ও অপরাধ কার্যক্রম প্রতিরোধের নিমিত্ত নিরলস কাজ করে যাচ্ছে।

এমনিতে ঈদের ছুটিতে সকাল থেকেই নারায়ণগঞ্জ নগরী ছিল অনেকটাই জনশূন্য। প্রতিদিনের মত ছিলনা সাধারণ মানুষের কর্মব্যস্ততা। নারায়ণগঞ্জ থেকে বন্ধ ছিল সকল প্রকার গণপরিবহন। খোলা হয়নি কোন শপিংমল, মার্কেট বিপনী বিতান। শহরের হোটেল রেস্তোরাগুলোও খোলা ছিল সীমিত আকারে।

সরেজমিনে শহরের চাষাঢ়া থেকে বঙ্গবন্ধু সড়ক হয়ে ২নং রেলগেইট, ১নং রেলগেইট, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, বন্দর সেন্ট্রাল খেয়াঘাট, কালীরবাজার ফ্রেন্ডস মার্কেট, চারারগোপ সহ শহরের গুরুত্বপূর্ন এলাকা ঘুরে কঠোর লকডাউনের দৃশ্য দেখা গেছে।

শহরের চাষাঢ়া এলাকায় সমবায় মার্কেট, শান্তনা মার্কেট, মার্ক টাওয়ার, হক প্লাজা, সায়াম প্লাজা সহ কোন মার্কেটের দোকান খুলতে দেখায় যায়নি। খোলা হয়নি শহরের বৃহত্তর খুচরা কাপড়ের বিপনী কেন্দ্র ফ্রেন্ডস মার্কেট। প্রতিদিন অবৈধ হকারদের দখলে থাকা নগরীর ফুটপাতগুলোতে ছিলনা কোন হকার। কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে সারিবদ্ধ ভাবে দাড়িয়ে ছিল ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে চলাচলকারী সকল কোম্পানির গণপরিবহন।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর