প্রস্তাবিত বাজেট প্রত্যাখ্যান


প্রেস বিজ্ঞপ্তি | প্রকাশিত: ০৮:৫৭ পিএম, ১১ জুন ২০২১, শুক্রবার
প্রস্তাবিত বাজেট প্রত্যাখ্যান

গার্মেন্টসসহ সকল শ্রমিকদের জন্য আর্মি রেটে রেশন, বিনামূল্যে চিকিৎসা, স্বল্প মূল্যে আবাসন এবং সর্বজনীন পেনসন স্কিমের জন্য বিশেষ বরাদ্দের দাবিতে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার উদ্যোগে ১১ জুন শুক্রবার সকাল ১০ টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও শহরে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি সেলিম মাহমুদের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি আবু নাঈম খান বিপ্লব, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম শরীফ, সহ-সভাপতি হাসনাত কবীর, সহ-সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সোহাগ।

নেতৃবৃন্দ বলেন, বাজেটে স্পষ্টত দেশের ধনিক শ্রেণীর স্বার্থ রক্ষা করা হয়েছে। গরিব শ্রমজীবীরা হয়েছে উপেক্ষিত। করোনা অতিমারির প্রভাবে বিশ্ব অর্থনীতি যেখানে স্থবির হয়ে পড়েছে সেই সময়ও বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় বেড়েছে, জিডিপি বেড়েছে। করোনা সংক্রমণের মধ্যে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শ্রমিকরা উৎপাদনের চাকা সচল রাখায় অর্থনীতির এই প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। অথচ করোনাকালে শ্রমিকের আয় কমেছে, প্রায় ৫২ শতাংশ শ্রমজীবী মানুষ আয় কমে যাওয়ায় তাদের দৈনিক খাদ্য ব্যয় কমাতে বাধ্য হয়েছে। শ্রমিকদের শ্রম অধিকারের মারাত্মক সংকোচন, অপ্রাতিষ্ঠানিক শ্রমিকের পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়া, মারাত্মক অর্থনৈতিক বৈষম্য, দরিদ্র শ্রমজীবী মানুষের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার মত সংকট নিরসনের কোন সুস্পষ্ট নির্দেশনা প্রস্তাবিত বাজেটে প্রতিফলিত হয়নি। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে, পরিবহন ছাড়া মাইলের পর মাইল পায়ে হেটে যে গার্মেন্টস শ্রমিকরা করোনার মধ্যে উৎপাদন আর রপ্তানির চাকা সচল রাখল, করোনায় জীবনযাপন প্রক্রিয়ার ব্যয় বৃদ্ধি, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি, বাড়ি ভাড়া-গাড়ি ভাড়া-গ্যাস-পানি-বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধির ফলে সেই শ্রমিকদের প্রকৃত মজুরি প্রায় অর্ধেক হয়ে যাওয়ায় তারা অভূক্ত অবস্থায় দিন কাটাতে বাধ্য হচ্ছে। বাজেটের আকার বাড়লেও এই শ্রমিকদের ন্যায্যমূল্যে খাদ্যপণ্য সরবরাহ, অসুস্থতায় চিকিৎসার নিশ্চয়তা কিংবা স্বল্পমূল্যে আবাসনের ব্যবস্থা করার জন্য বাজেটে সুনির্দিষ্ট বরাদ্দ রাখা হয়নি।

নেতৃবৃন্দ বলেন, শ্রমজীবী মানুষের শ্রম অধিকার বাস্তবায়নের দায়িত্ব প্রাপ্ত শ্রম মন্ত্রণালয়ের উন্নয়ন বাজেট ২০২০-২১ অর্থ বছরে ছিল ২২০ কোটি টাকা যা বৃদ্ধির পরিবর্তে ২০২১-২২ অর্থ বছরে ৩৪ কোটি টাকা কমানো হয়েছে। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের উন্নয়ন ব্যায় মাত্র ১০৪ কোটি টাকা বাড়ানো হয়েছে অথচ শুধুমাত্র ৪০ লক্ষ গার্মেন্টস শ্রমিককে আর্মি রেটে রেশন দিতে মাত্র ১২৫ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রয়োজন। বাজেট বরাদ্দের এই চিত্র বলে দেয় সরকার গার্মেন্টস শ্রমিকদের রেশন, আবাসন কিংবা সার্বজনীন পেনশন স্কিমের দাবির প্রতি কর্ণপাত করেনি। শ্রমিকদের জন্য বরাদ্দ রাখা না হলেও ভ্যাটের মাধ্যমে আয় বৃদ্ধির লক্ষ্য নির্ধারণ করে শ্রমজীবী মানুষের পকেট কাটার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

নেতৃবৃন্দ বলেন, শ্রমজীবী মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত না করে, তাদের জীবনমানের উন্নয়ন না ঘটিয়ে, তাদের উৎসাহিত করতে ঝুঁকি ভাতা প্রদানের মত প্রণোদনামূলক পদক্ষেপ না নিয়ে, ন্যায্য মজুরি নিশ্চিত না করে, শুধু মালিকদের পৃষ্ঠপোষকতা করে মানসম্মত উৎপাদন কিংবা সামাজিক স্থিতিশীলতার স্বপ্ন দেখা অর্থ হলো প্রচন্ড নিপীড়ন চালিয়ে শ্রমিকের দাবি দমন করা। শান্তিপূর্ণ পরিবেশের নামে বিক্ষুদ্ধ শ্রমিকদের চুপ করিয়ে রাখা। নেতৃবৃন্দ বাজেট পাশের আগে প্রয়োজনীয় সংশোধনীর মাধ্যমে গার্মেন্টস শ্রমিকদের আর্মি রেটে রেশন, আবাসন, চিকিৎসা এবং সর্বজনীন পেনসন নিশ্চিত করতে বাজেটে সুনির্দিষ্ট বরাদ্দ দেওয়ার জোর দাবি জানান।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর