গ্রেপ্তারের পর জামিনে দুই কাউন্সিলর প্রার্থী


রূপগঞ্জ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৫২ পিএম, ১৩ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার
গ্রেপ্তারের পর জামিনে দুই কাউন্সিলর প্রার্থী

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে তারাব পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় সেখানে উত্তেজনা বিরাজ করছে। দুই কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেন ও রুহুল আমিন ফরাজীসহ ৬ জনকে বুধবার সকালে পুলিশ গ্রেফতার করলেও দুপুরে আদালতে উভয় পক্ষ মুচলেকায় জামিন পান।

সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আহমেদ হুমায়ন কবিরের আদালতে দুই প্রার্থী নির্বাচনের আগে সহিংশতার ঘটনা ঘটাবে না মর্মে মুচলেকা দিয়ে জামিন পান। দুই প্রার্থীর জামিনের বিষয়টি নিশ্চিত করে কোর্ট পুলিশের পরির্দশক আসাদুজ্জামান।

উল্লেখ্য মঙ্গলবার বিকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ঐ দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

রূপগঞ্জ থানার ওসি মাহমুদুল হাসান জানান, মঙ্গলবারের সন্ধ্যার ঘটনায় বুধবার সকালে রূপগঞ্জ থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের হয়। কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের পক্ষে শাহজালাল মিয়া বাদী হয়ে নামীয় ১৫ জনসহ অজ্ঞাত আরো ৩০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

অপরদিকে আরেক প্রার্থী রহুল আমিন ফরাজীর পক্ষে নাজমুল হাসান বাদী হয়ে নামীয় ১৬ জনসহ ৭০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। পুলিশ তারাব পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেন ও রুহুল আলম ফরাজীসহ ৬ গ্রেফতার করেছিল।

গ্রেফতারকৃত অন্যরা হলেন রাজিব, সোহেল, সাইদুর ও হাবিবুর রহমান। ঘটনার পর থেকে নোয়াপাড়া এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। স্থানীয় ভোটারদের মাঝে দেখা দিয়েছে শঙ্কা।

দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। বিকাল সাড়ে ৪টা থেকে শুরু হওয়া সংঘর্ষ পুলিশের সহযোগীতায় রাত সাড়ে ৭ টায় নিয়ন্ত্রণে আসে। সংঘর্ষে এক কাউন্সিলর প্রার্থী তার প্রতিদ্ধন্ধী কাউন্সিলর প্রার্থীর শশুরে দুটি টেক্সটাইল কারখানাসহ বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করে। এসময় একটি পিকআপ ভ্যানে আগুন ধরিয়ে দেয়। সংঘর্ষে উভয়পক্ষের প্রায় ৬৫ জন আহত হয়েছে। তারাব পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের নোয়াপাড়া এলাকায়।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর