‘সেই তুমি’ কেন এত অচেনা হলে


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ১১:০৪ পিএম, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, শনিবার
‘সেই তুমি’ কেন এত অচেনা হলে

অনুগতরা কত কিছুই না বলছেন। নাচছেন, কুদছেন। দম্ভভরে হুংকার দিচ্ছেন। নিজে যখন বিপদে ছিলেন তখন মেয়র আইভীকে সকাল-সন্ধ্যা মা ডেকে খোঁজ খবর নিতেন। সেই তিনিই এখন মেয়র আইভীকে বিপদে ফেলতে নানা ধরনের বেফাঁস মন্তব্য করছেন মুখ ভেংচিয়ে। সর্বশেষ নায়িকা বলে সম্বোধন করলেন। প্যানেল মেয়র বিভাকেও নায়িকা সম্বোধন করে বললেন দুই নায়িকা ছিলেন বাজেট ঘোষণা অনুষ্ঠানে। ‘দুই জনেই নায়িকার মত ফুল দিয়া সাইজ্জা রইছে।’ এমন উক্তি ছিল খোকন সাহার মুখে। খোকন সাহা অনুগত হলেও গিরগিটি পর্যায়ের নন কস্মিনকালেও। এ কথা বিশ্বাস করে মহানগরের নেতাকর্মীরা।

এদিকে একজন দায়িত্বশীল ও বিজ্ঞ নেতার মুখে এ ধরেনের কটূক্তি শুনে হতাশ হয়েছেন অনেক প্রবীণ আওয়ামীলীগ নেতা। তারা বলেছেন, কারো পক্ষে কথা বলতে ভালো লাগে বা ভালবাসেন ভাল কথা। কেউতো তাঁকে মানা করেনি। বা আপত্তি তোলেনি কোনদিন। তাই বলে একজন নারী নেত্রীর বিরুদ্ধে সস্তা ধরনের মন্তব্য করাটা খোকন সাহার মত একজন পোড় খাওয়া আওয়ামীলীগ নেতার পক্ষে শোভা পায় কি। তিনিতো বেশি দিন হয়নি ওসমান পরিবারের বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছিলেন। বন্দরের মাঠ ঘাট চষে বেরিয়েছেন।

চাষাঢ়ার কয়েকজন নেতার মন্তব্য, ভোল পাল্টাতে বোধ হয় নেতাদের বেশি সময় লাগে না। স্বার্থের বাইরে গেলে বিরোধীতার বন্যা বইয়ে দেন। যেমনটা খোকন সাহা বন্দরে করে এসেছেন। আরজু রহমান ভূঁইয়া, আনিসুর রহমান দিপু, ভিপি বাদল ও খোকন সাহা বন্দরে অনেক দিন উঠান বৈঠক করেছেন। তাঁদের উদ্দেশ্য ছিল সেলিম ওসমানকে ঠেকানো। সেলিম ওসমান জাপা’র এমপি। তাঁরা কয়েকজন ছিলেন আওয়ামীলীগের খাঁটি নেতা। এদের মধ্যে ওসমান পরিবারের বিরোধীতায় সবচেয়ে বেশি এগিয়ে গিয়েছিলেন খোকন সাহা। দাদা প্রলাপ বকতে পারেন। এঙ্গেলটা বলে দিলেই হয়।

সূত্রমতে, খোকন সাহার বিরোধীতা ওসমান পরিবারের বুকে কাঁপন ধরিয়ে দিয়েছিল। হয়তো খোকন সাহা’র কাছে ওই পরিবারের ভাল কোন তথ্য ভান্ডার আছে। ওসমান পরিবার তড়িঘড়ি করে খোকন সাহাকে বশে আনেন। তিনি নিজের স্বার্থোদ্ধারের জন্য বিরোধীতা করলে কোন কথাই উঠতো না। তিনি ওসমান পরিবারকে খুশি করতে আইভী বিরোধীতা করছেন। যা বলছেন, এসব তাঁর মনের কথা নাকি-কথার কথা বলা মুশকিল।

সামনে নির্বাচন। অনেক কিছুই হবে। অনেকেই পল্টি খাবে। ভোল পাল্টাবে। ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। কাজেই সাবধান থাকতে হবে সবাইকে। ইঁদুর মারার কলের মতই রাজনৈতিক অঙ্গনজুড়ে অসংখ্য ফাঁদ পাতা হচ্ছে। সেই ফাঁদ পর্যন্ত যাওয়ার জন্য আকর্ষনীয় বস্তুও রাখা হবে। যেমনটা ইঁদুর মারার জন্য ফাঁদে শুটকী রাখা হয়। ওদের টার্গেট যে কোন ভাবেই ষড়যন্ত্র বাস্তবায়ন করতে হবে।

পাইকপাড়ার আওয়ামীলীগ নেতাদের মতে, নারায়ণগঞ্জ শহরে ষড়যন্ত্র করে কেউ রেহাই পায়নি। ষড়যন্ত্র করে আলী আহাম্মদ চুনকাকে হারানোর ফল ঠিকই ভোগ করতে হয়েছে ষড়যন্ত্রকারীদের। শোচনীয়ভাবে পরাজিত করে পৌরপিতা চুনকার কন্যা ডা. আইভী পিতার প্রতিশোধ নিতে পেরেছেন। ডা. আইভী ষড়যন্ত্রকারীদের এমনভাবে জব্দ করেছেন যে, ওরা সহজে কোমর সোজা করে দাঁড়াতে পারবে না। তবে ষড়যন্ত্রকারীরা পিছু ছাড়েনি। একের পর এক ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। কিছু পাইক পেয়াদা যোগার করেছে নাসিক নির্বাচনে অংশ নিতে। আসলে ওই পাইক পেয়াদারা নানান কসরত দেখাবে। দেখানো শুরু হয়ে গেছে।

পর্যবেক্ষক মহলের মতে, নাসিক নির্বাচনে মেয়র আইভীকে হারাতে কত কিছুই না করা হবে। ষড়যন্ত্রকারীরা পাগল হয়ে যাবে এবার। ওদের টার্গেট মেয়রের দলীয় মনোনয়ন ঠেকানো। কারণ এবার মেয়র বলেছিলেন যে, দলের মনোনয়ন না পেলে তিনি নির্বাচন করবেন না। মেয়রের এই কথাকে ওরা মার্ক করে নিয়েছে। কিন্তু বাজেট ঘোষনা অনুষ্ঠানে মেয়র দৃঢ়কন্ঠে যখন ঘোষণা করলেন তিনিই মনোনয়ন পাবেন। মাথা খারাপ হয়ে গেল কিছু লোকের। প্রলাপ বকতে শুরু করেছেন। উন্নয়ন প্রেমী মেয়র আইভীকে নিয়ে আজে বাজে কথা ছড়ানো হচ্ছে মাঠে ময়দানে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর