সাংগঠনিক সভাতে তৈমূরের প্রত্যাশা ত্যাগীদের মূল্যায়ন


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ১১:০৫ পিএম, ২১ অক্টোবর ২০২১, বৃহস্পতিবার
সাংগঠনিক সভাতে তৈমূরের প্রত্যাশা ত্যাগীদের মূল্যায়ন

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির কমিটিতে বরাবরই ত্যাগীদের মূল্যায়ণ করার প্রত্যাশা ব্যক্ত করে আসছেন বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহবায়ক অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। দলের সকল সভাতেই তার একই বক্তব্য ত্যাগীদের মূল্যায়ণ করতে চান। দলের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারাও সেই ভরসায় তৈমূরকে জেলা বিএনপির আহবায়ক পদে এনেছেন।

তারই ধারাবাহিকতায় এবারও অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্যদের বৈঠকে ত্যাগীদের মূল্যায়ণের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন। এ ব্যাপারে জেলা বিএনপির সদস্য সচিব ও যুগ্ম আহবায়ক সহ সকল সদস্যদের সহযোগিতা চেয়েছেন। সেই সাথে তারাও সহযোগিতা করার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) বিকেলে রাজধানীর পল্টন কার্যালয়ে জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্যদের নিয়ে এক বৈঠক করা হয়। এরপর অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের চেম্বারেও বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

এই বৈঠকের লক্ষ্য ছিল জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সভাকে সফল করা। অতি শীঘ্রই নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির একটি সাংগঠনিক সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভাটিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য। আর সেই সভাকে সফল করার লক্ষ্যে জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির নেতাদের নিয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এ বিষয়ে অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সভাকে সফল করার লক্ষ্যে আমাদের এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই বৈঠকে সাংগঠনিক অনেক বিষয়েই আলোচনা হয়। আলোচনার পাশাপাশি আমি সকলের উদ্দেশ্য বলেছি, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান চান ত্যাগীদের মূল্যায়ণ করতে। আমি নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপিতে ত্যাগীদের মূল্যায়ণ করতে চাই। এ ব্যাপারে আমি সকলের সহযোগিতা চেয়েছি। তারা আমাকে সহযোগিতা করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারী বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত অনুমোদিত বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে আহ্বায়ক এবং মামুন মাহমুদকে সদস্য সচিব করে ৪২ সদস্যবিশিষ্ট নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি প্রকাশ করা হয়।

কমিটির যুগ্ম আহ্বায়করা হলেন- মনিরুল ইসলাম রবি, মো. নাছির উদ্দিন, আব্দুল হাই রাজু, লুৎফর রহমান, অ্যাডভোকেট মাহফুজুর রহমান হুমায়ুন, জাহিদ হাসান রোজেল ও নজরুল ইসলাম পান্না মোল্লা।

সদস্যরা হলেন-খন্দকার আবু জাফর, নজরুল ইসলাম টিটু, অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস, শরীফ আহমেদ (টুটুল চেয়ারম্যান), মাহমুদুর রহমান সুমন, মোশারফ হোসেন, বশির উদ্দিন বাচ্চু, হাজী সেলিম, মোশারফ হোসেন (সোনারগাঁ পৌরসভা), আশরাফুল হক রিপন, ওয়াহিদ বিন ইমতিয়াজ বকুল, রিয়াদ মো. চৌধুরী, হাবিবুর রহমান হাবু, মো. দুলাল হোসেন, মো. কাশেম ফকির, ইউসুফ আলী ভূঁইয়া, আব্দুল আজিজ মাস্টার, এম এ হালিম জুয়েল, গুলজার হোসেন (চেয়ারম্যান), মো. শাহ আলম হিরা, নুরুন্নাহার বেগম, একরামুল কবির মামুন, শাহ আলম মুকুল, মোস্তাকুর রহমান, রিয়াজুল ইসলাম, রহিমা শরীফ মায়া, রুহুল আমিন, কামরুজ্জামান মামুন, হামিদুল হক খাঁন, মো. বাকির হোসেন, আল মুজাহিদ মল্লিক ও জুয়েল আহমেদ। এরপর আবার জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মাসুকুল ইসলাম রাজীবকে যোগ করা হয়।

জেলা বিএনপির এই কমিটি গঠন হওয়ার পর থেকেই নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় হয়। তারা গলি ছেড়ে রাজপথে এসে কর্মসূচি পালন করেন। সেই সাথে তাদের কর্মসূচিতেও নেতাকর্মী সমর্থকদের রেকর্ড সংখ্যক উপস্থিতি থাকে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর