নিট পল্লী নির্মাণে প্রধানমন্ত্রীকে আবেদন : সহযোগীতা চাইলেন সেলিম ওসমান

|| নিউজনারায়ানগঞ্জ২৪.নেট ০১:০১ এএম, ১ জানুয়ারি ২০১৫ বৃহস্পতিবার

নিট পল্লী নির্মাণে প্রধানমন্ত্রীকে আবেদন : সহযোগীতা চাইলেন সেলিম ওসমান
নারায়ণগঞ্জের উন্নয়ন ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় ব্যবসায়ীদের কাছে সহযোগীতা চেয়ে হাত পাতলেন নারায়ণগঞ্জ-৫ (শহর-বন্দর) আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান। তিনি বলেছেন, আমার নির্বাচনের সময় অনেকে আমাকে টাকা দিয়ে সহযোগীতা করতে চেয়ে ছিলেন। কিন্তু আমি তখন আমার নির্বাচনের জন্য একটি টাকাও কাউকে না দেওয়া অনুরোধ করে ছিলাম। এখন আমি হাত পেতে বসে আছি। নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নে ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় আপনারা আমাকে যেভাবে পারেন সহযোগীতা করুন। নারায়ণগঞ্জে নীট পল্লী নির্মান সহ বিভিন্ন খাতে উন্নয়নের পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়েছে। এগুলো সম্পন্ন হলে নারায়ণগঞ্জের চেহারা পাল্টে যাবে।   বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় বন্দর উপজেলার শান্তিনগরে জেগে উঠা এক হাজার একর জমিতে নীট পল্লী গড়ে তোলার জন্য সরকারী উদ্যোগ গ্রহন ও সহযোগীতা চেয়ে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবর আবেদন করা পূর্বে শহরের চাষাঢ়ায় অবস্থিত বিকেএমইএ কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে বিকেএমইএ ও চেম্বার অব কর্মাসের নেতৃবৃন্দ ও ব্যবসায়ীদের সাথে আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।   পরে দুপুর ১২টায় জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান মিঞার হাতে বিকেএমইএ ও নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্টি এর সভাপতি এবং নারায়ণগঞ্জ-৫ (শহর-বন্দর) আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের নেতৃত্বে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দরা আবেদনটি জমাদেন। আবেদন পত্রটিতে নারায়ণগঞ্জের ৬ জন সংসদ সদস্য, সিটি করপোরেশনের মেয়র, সকল কাউন্সিলর, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যরা সহ ব্যবসায়ী ও শ্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা সুপারিশ করে স্বাক্ষর প্রদান করেছেন।   আবেদনটি জমা দেওয়ার সময় সেলিম ওসমান সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, নীট পল্লী প্রতিষ্ঠা হলে বন্দর ও সোনারগাঁও এলাকায় প্রায় সাড়ে ১০ লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে। সেই সাথে প্রায় ১ কোটি লোক এ থেকে উপকৃত হবেন। তাই নীট পল্লী গড়ার কাজকে সহজ করতে শান্তিরচর নিয়ে সাংবাদিকদের নিয়মিত সংবাদ প্রকাশ করে বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর নজরে রাখার আহবান জানান তিনি।   তিনি আরও বলেন, অনেকে বলছে এটা বিকেএমইএ এর মাধ্যমে করা হচ্ছে। কিন্তু তা নয় সরকার চাইলে এটা বিকেএমইএ, শিল্প মন্ত্রনালয়, বিসিক অথবা পিপিপি প্রকল্পের মাধ্যমে করতে পারেন।   এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা, সংরক্ষিত আসনের নারী সংসদ সদস্য হোসনে আরা বাবলি, বাংলাদেশ ভারত চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি মোহাম্মদ আলী, ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই এর পরিচালক প্রবীর সাহা, বিকেএমইএ সাবেক সহ সভাপতি এম এ হাতেম, সহ সভাপতি আলমাস সানি, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কর্মাসের সিনিয়র সহ সভাপতি মঞ্জুরুল হক, জি এম ফারুক, পরিববহন ব্যবসায়ী মোক্তার হোসেন, জেলা দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আরিফ দিপু, প্রমুখ।   প্রসঙ্গত আবেদনে বলা হয়েছে, বন্দর ও সোনারগাঁও এলাকায় তিন নদীর মোহনায় গড়ে উঠা কমবেশী প্রায় ১০০০ একর শান্তিনগর চর অঞ্চলটিকে “নীট পল্লী” হিসেবে গড়ে তুলতে পারলে নতুন নতুন শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপন/প্রতিস্থাপন, কর্মসংস্থান তৈরী, রপ্তানী বৃদ্ধি এবং বেকারত্ব দূরীকরণ সম্ভবপর হবে বলে বিকেএমইএ মনে করে। একইসাথে বিকেএমইএ’র উক্ত আবেদনে সিইটিপি তৈরী, ভূগর্ভস্থ পানির উপর চাপ কমানো এবং গ্যাসের উপর নির্ভরতা কমাতে কয়লার মাধ্যমে বয়লার পরিচালনা করে স্টীম সরবরাহ করা, শ্রমিকদের জন্য ডরমিটোরি নির্মান, পাওয়ার প্ল্যান্ট, হাসপাতাল, স্কুল,  পর্যটন শিল্প এলাকা ও একটি ফায়ার স্টেশন গড়ে তোলা, ফাইভ স্টার সমতুল্য হোটেল, একটি হেলিপ্যাড ও অন্যান্য অবকাঠামোগত উন্নয়নের প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। এছাড়াও ইনল্যান্ড কন্টেইনার টার্মিনাল নির্মাণ করে লোডিং-আনলোডিং এর ব্যবস্থা করার প্রক্রিয়ার উপর জোর দেয়া হয়েছে।  

বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও