গঞ্জে আলী খালে ওয়াকওয়ে নির্মাণ শুরু

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:৪৫ পিএম, ২ অক্টোবর ২০২০ শুক্রবার

গঞ্জে আলী খালে ওয়াকওয়ে নির্মাণ শুরু

নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী গঞ্জে আলী খালকে স্বরুপে ফেরাতে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের আপ্রাণ চেষ্টা চলছে। সিটি কর্পোরেশনের ১২ নং ওয়ার্ড এলাকার উত্তর চাষাঢ়া থেকে বউ বাজার পর্যন্ত খনন কাজ প্রায় শেষ। এখন চলমান রয়েছে পরিস্কারের কাজ। পানির নিচ থেকে যে সকল প্লাস্টিকের ময়লা উঠে আসছে সেগুলো পরিস্কার করা হচ্ছে। তিনটি নৌকা দিয়ে পানির উপর ভেসে উঠা প্লাস্টিকের ময়লা উপড়ে তোলা হচ্ছে।

গঞ্জে আলী খাল সংলগ্ন পশ্চিম তল্লা বাইতুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় কিছুদিন কাজ বন্ধ থাকলেও এখন আবার শুরু হয়েছে গঞ্জে আলী খালের সংস্কার কাজ। ইতোমধ্যে ওয়াকওয়ে নির্মাণের কাজ শুরু হয়ে গেছে। সেই সাথে আগামী কিছুদিনের মধ্যে বৃক্ষরোপণেরও কাজ শুরু হয়ে যাবে বলে জানা গেছে।

জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ শহরের ঐতিহ্যবাহী খালগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো গঞ্জে আলী খাল। এই খালটিতে একসময় স্লোতের মতো পানি বহমান থাকতো। সেই সাথে ছলছল করতো স্বচ্ছ পানি। খালে পাশ দিয়ে গেলে জুড়িয়ে যেত মন। কিন্তু বর্তমানে সেই খালটি ছিল পলিথিন, ময়লা ও জুটের জট। পুরো খাল জুড়েই ছিল অবৈধ দখলদারীদের রামরাজত্ব। তবে এবার গঞ্জে আলী খালটিকে স্বরূপে ফেরাতে উদ্যোগ নিয়েছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন।

তারই ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী গঞ্জে আলী খালটিকে পুনঃখনন করার কাজে হাত দিয়েছেন। টানা তিনমাস ধরে খালটিতে চলছে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও পুনঃখনন কাজ। পুরোপুরি খনন ও উদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত এই অভিযান চলবে বলে জানিয়েছিলেন ১২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শওকত হাসেন শকু।

এর আগে গত ১২ সেপ্টেম্বর খালের পুনঃখনন কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে জানতে চাইলে কাউন্সিলর শওকত হাসেন শকু জানিয়েছিলেন, আমাদের খাল খনন শেষ পর্যায়ে এখন পরিস্কার কাজ চলমান রয়েছে। প্লাস্টিকের ময়লা পরিস্কার করা হচ্ছে। এখন যেতেতু মসজিদে একটি দুর্ঘটনা ঘটেছে আমরা সামনে আগাতে পারছি না। তিনটি সড়ক দিয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী থেকে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা যেন অবাধে চলাফেরা করতে পারে সে জন্য কাজ বন্ধ রয়েছে। কারণ এখন ময়লা তুলতে গেলে চলাচলে বিঘœ ঘটবে।

তিনি আরও বলেছিলেন, ব্যাংক কলোনী থেকে চাষাঢ়া পর্যন্ত এগুলো সব পরিস্কার। উত্তর চাষাঢ়া থেকে বউ বাজার পর্যন্ত কাজ শেষ। এখন আমরা সামনের দিকে যাবো যেটা ১১ নং ওয়ার্ডে পড়েছে। কিন্তু মসজিদের ঘটনার কারণে সেদিকে আমরা যেতে পারছি না। আগামী ১০ থেকে ১২ দিনের মধ্যে মেয়রের নির্দেশনায় বৃক্ষরোপণ ও ওয়াকওয়ের কাজ শুরু হবে সেটা টেন্ডার হবে। চাষাঢ়া চাঁদমারী থেকে খানপুর পর্যন্ত গাছ লাগানো হবে। এখানে আবার একটি স্কুল রয়েছে। স্কুল ছিল অস্থায়ী সেটা স্থায়ী করা হবে। এ বিষয়টা নিয়ে প্লানিং করতে হবে। তার কথা অনুযায়ী ইতোমধ্যে ওয়াকওয়ের নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে।

২ অক্টোবর শুক্রবার গঞ্জে আলী খালে গিয়ে দেখা যায়, ভেকু দিয়ে ওয়াকওয়ে নির্মাণ কাজ চলছে। সেই সাথে অনেকটা জায়গায় ওয়াকওয়ে নির্মাণের লক্ষ্যে মাটি ভরাট করা হয়েছে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও