শীতে করোনার সংক্রামণ বাড়তে পারে, মাস্কের চাহিদা ও দাম বাড়ছে

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৪৭ পিএম, ৩ অক্টোবর ২০২০ শনিবার

শীতে করোনার সংক্রামণ বাড়তে পারে, মাস্কের চাহিদা ও দাম বাড়ছে

চলছে শরৎ কাল। এখনই ভোরে হালকা শীতের অনুভূতি হয়। তবে শীত আসতে এখনও বাকি আরো দুই মাস। কিন্তু তার আগে থেকেই বেশ জুড়ে সুরে বলা হচ্ছে করোনার প্রকোপ শীতে আরো বাড়তে পারে। যার জন্য সবাইকে সচেতন হওয়ার আহবান জানিয়ে যাচ্ছেন স্বাস্থ্য বিভাগের উর্ধ্বতন থেকে শুরু করে সবাই। নারায়ণগঞ্জেও জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ থেকে একই কথা বলা হচ্ছে। তাই সবাইকে বাধ্যতামূলক মাস্ক ব্যবহার, হাত ধোয়া ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল সহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য ব্যাপক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। তবে এ সুযোগ আবারও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রীর কৃতিম সংকট দেখিয়ে দাম বাড়ানোর পায়তারা করছে কুচক্রি ব্যবসায়ীরা।

নারায়ণগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা. মুহাম্মদ ইমতিয়াজ বলেন,‘করোনায় এখনও আক্রান্ত হচ্ছে। যার জন্য সবাইকে সচেতন হওয়ার জন্য বলা হচ্ছে। শীতে করোনার প্রভাব বাড়তে পারে। তাই সবাইকে সচেতন থাকতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।’

জেলা সিভিল সার্জনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত আরো ৯জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬ হাজার ৭৯৩। মৃত্যুর সংখ্যা ১৪৫ ও সুস্থ্য হয়েছেন ৬ হাজার ৫০২ জন।

শনিবার দুপুরে শহরের বিভিন্ন এলাকার ফার্মেসী, ফুটপাতের দোকানগুলোতে দেখা গেছে স্বাস্থ্যসুরক্ষার অন্যান্য সামগ্রীর চেয়ে মাস্ক বিক্রিই ভালো হচ্ছে। সর্বনি¤œ ১০টা থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত দামে বিভিন্ন ধরনের মাস্ক বিক্রি হচ্চে। তবে এসব মাস্কের মধ্যে সার্জিকেল মাস্ক ১০টাকা, কে এন৯৫ মাস্ক ৭০টাকা ও একই নামে বিভিন্ন কোম্পানির সর্বনি¤œ ৪০টাকা, কাপড়ের মাস্ক ২০ থেকে ৩০ টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে। আর হ্যান্ড সেনেটাইজার বিক্রি হচ্ছে ৪০টাকা থেকে শুরু করে ১৫০ টাকা দামে পর্যন্ত।

ক্রেতা ফরিদ মিয়া বলেন,‘সার্জিকেল মাস্ক কয়েকদিন আগেও ৫টাকা দামে বিক্রি হতো। যেই ঘোষণা আসলো শীতে করোনার প্রভাব বেশি থাকবে তারপর থেকেই আবারও মাস্কের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন দোকানীরা। শুধু যে সার্জিকেল মাস্ক তা নয় অন্যান্য মাস্কগুলো একই অবস্থা।’

পাইকারী ওষুধ বিক্রির কালীর বাজারে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, সার্জিকেল মাস্ক বিভিন্ন দোকানে বিভিন্ন দামে বিক্রি হচ্ছে। কেউ একই সার্জিকেল মাস্ক ১৫০টাকা বক্স আবার কেউ ১৭০ টাকা বক্সে বিক্রি করছে। আবার অন্য সাদা রঙের মাস্ক বিক্রি করছে ১১০ থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত দামে। এছাড়াও হ্যান্ড গ্লাভস, হেড কেপ অন্যান্য সামগ্রী বিক্রি হচ্ছে আগের দামেই।

দোকানদার রুবেল বলেন,‘শীতে করোনার প্রকোপ বাড়বে সেজন্য কোম্পানি দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। এখানে আমাদের কোন কিছু করার নেই। সাদা রঙের সার্জিকেল মাস্ক এক মাস আগেও এক বক্স বিক্রি করেছি ১১০টাকা এখন সেটা বিক্রি করছি ১৫০ টাকা। আর নীল রঙের সার্জিকেল মাস্ক বিকি করেছি ১৪০টাকা এখন বিক্রি করছি ১৭০টাকা।’

তিনি বলেন,‘এমনিতে মাস্কের চাহিদাও আবার বাড়ছে। তবে অন্যান্য সামগ্রী তেমন চাহিদা নেই। যার জন্য মাস্কের দাম বাড়লেও অন্যগুলো আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে।’

ক্রেতা অন্তর সাহা বলেন,‘১৫ দিন আগেও আমি এক বক্স (৫০ পিস) সার্জিকেল মাস্ক কিনেছি ১১০টাকা দিয়ে। কিন্তু দুই সপ্তাহের ব্যবধানে সেই মাস্কের দাম রাখছে ১৫০টাকা। কোন কোন দোকানে তার চেয়েও বেশি দাম চেয়েছে।’

তিনি আরো বলেন,‘বাইরে যেসব মাস্ক পাওয়া যায় সেসব মাস্ক নিয়ে মনের মধ্যে ভয় কাজ করে। এগুলো নিরাপদ কিনা। তাই দোকান থেকে এক সঙ্গে এক বক্স কিনি। এখন আবার দাম বাড়ানোর পায়তারা করছে। এ বিষয়ে প্রশাসনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা জরুরী।

চাষাঢ়া আমান ফার্মেসীর বিক্রেতা আমানউল্লাহ বলেন, ‘সার্জিকেল মাস্ক একটি ৫টাকা দামে বিক্রি করা হচ্ছে। তাছাড়া এক সঙ্গে এক বক্স ছিলে কম রাখা যাবে। হ্যান্ড স্যানেটাইজার আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে।’


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও