যৌতুক না দেওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন, ফেসবুকে অশ্লীল ছবি

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:৩৫ পিএম, ২৯ নভেম্বর ২০২০ রবিবার

যৌতুক না দেওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন, ফেসবুকে অশ্লীল ছবি

নারায়ণগঞ্জে এক গৃহবধুর অশ্লীল ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যম ফেসবুকে পোষ্ট এবং দাবিকৃত যৌতুক না দেওয়ায় নির্যাতন করার অভিযোগে স্বামী, শ^শুর ও শাশুড়ির বিরুদ্ধে ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনাল ও নারায়ণগঞ্জের পৃথক ৩টি আদালতে ৪টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। গৃহবধু বাদি হয়ে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের পৃথক ৪টি আদালতে মামলাগুলো দায়ের করেন। যার মধ্যে ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনাল ও নারায়ণগঞ্জের পারিবারিক আদালতে স্বামীর বিরুদ্ধে এবং নারায়ণগঞ্জের দু’টি আদালতে দাবিকৃত যৌতুক না দেওয়ায় নির্যাতন করার অভিযোগে মামলা দায়ের করেন ওই গৃহবধু।

ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮ এর ২৫/২৬/২৯/৩৪/৩৫ ধারায় মামলা (পিটিশন নং ৪৯২) দায়ের করেন গৃহবধু মুনতাহা হাসান মিরা। ওই মামলায় বিবাদী করা হয়েছে শহরের খানপুরের ৪৬/২ মোকরবা রোডস্থ মো: ছামিরুল বশির ওরফে মজনুর পুত্র বর্তমানে ঢাকার মিরপুর-১৪ বর্ণমালা সড়কের আমেনা ভবনের ২য় তলার বাসিন্দা মো: ইফতিখার আহাম্মদ স্বচ্ছকে। মামলায় ৯ জনকে স্বাক্ষী করা হয়েছে। মামলা বাদীনি উল্লেখ করেন, ২০১৯ সালের ১১ অক্টোবর শরিয়ত মোতাবেক এককিত্তা কাবিনমূলে ৪ লাখ টাকা দেনমোহর ধার্য্যে মো: ছামিরুল বশির ওরফে মজনুর পুত্র ইফতিখার আহাম্মদ ওরফে স্বচ্ছ এর সঙ্গে মুনতাহা হাসান মিরার বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পরে পিতা পুলিশ সদস্য মো: ছামিরুল বশির ওরফে মজনুর প্ররোচনায় ও কুপরামর্শে স্বামী ইফতিখার আহাম্মদ ওরফে স্বচ্ছ স্ত্রী মিরার কাছে যৌতুকসহ বিভিন্ন দায় দাবির জন্য চাপ দিতে থাকে। পরে বাদিনী পরিবারের কাছ থেকে দাবিকৃত যৌতুকের কিছু টাকা এনে দিলেও কিছুদিন পরে আবারো ৫ লাখ টাকা যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে। পরে বাদিনী যৌতুক দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে স্বামী ও শ^শুরবাড়ির লোকজন মিলে চাপ সৃষ্টি করতে থাকে। এরই মধ্যে শ^শুরের পরামর্শে স্বামী ইফতিখার আহাম্মদ ওরফে স্বচ্ছ স্ত্রীকে নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় বেড়াতে নিয়ে যেতো এবং গোপনে বাদীনির অজান্তে বিভিন্ন পোজের অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ ছবি তুলতো। ১নং বিবাদী ইফতিখার আহাম্মদ ওরফে স্বচ্ছ স্বামী হওয়ার কারণে গৃহবধু যেকোন প্রকার বা ধরনের ছবি তুলতে আপত্তি করেনি। চলতি বছরের ২ মার্চ শ^শুরের পরামর্শে স্বামী ইফতিখার আহাম্মদ ওরফে স্বচ্ছ গৃহবধুকে নিয়ে কক্সবাজারে যায়। পরে সেখানে হোটেল কক্ষে গৃহবধুর কুৎসিৎ অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ অপরাধমূলক ছবি তুলে এবং গৃহবধুর অজান্তে ছবিগুলো ফেসবুকে পোষ্ট করে ভাইরাল করে। যা বাদীনির চারিত্রিক ও সামাজিকভাবে চরমভাবে হেয় প্রতিপন্ন করে নারায়ণগঞ্জ, বাংলাদেশ ও সারাবিশে^ প্রচার করেছে। চলতি বছরে ঈদুল আযহার সময়ে গৃহবধুর কাছে আবারো ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। পরে গৃহবধু যৌতুক দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে স্বামী ও শ^শুর হুমকী দেয় গৃহবধুর জীবন অনেক ভয়াবহ ও দুর্বিষহ হবে। তবে তাদের এই হুমকী বিষয়টি কল্পনাও করতে পারেনি গৃহবধু। গত ১ অক্টোবর গৃহবধুর ফেসবুকের একাউন্ট হ্যাক করে স্বামী স্বচ্ছ। পরে শালিস বৈঠকে এলাকার গণমান্য ব্যক্তিবর্গ স্বচ্ছকে জিজ্ঞেস করলে সে হ্যাকিং এর কথা স্বীকার করে। গৃহবধুর অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ ছবি ভাইরাল, একাউন্ট হ্যাকিং এবং ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবির কারণ জানতে চাইলেও স্বামী ও শ^শুর এ বিষয়ে কোন সদুত্তর দিতে পারেনি। যা মোবাইল ফোনে রেকর্ড করা আছে। গত ২৭ মে স্বামী স্বচ্ছ স্ত্রীর পরিচিতদের মোবাইলে অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ ছবি প্রেরণ করে। ওই গৃহবধুকে সামাজিকভাবে অপমান অপদস্ত ও হেয় প্রতিপন্ন করতেই স্বামী ও শ^শুর মিলে এ ধরনের কাজ করেছে বলে মামলায় উল্লেখ করেন গৃহবধূ।

এর আগে নারায়ণগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ জজ আদালতে গৃহবধু মুনতাহা হাসান মিরা বাদি হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২০০৩ এর ১১ (খ) ৩০ ধারা মোতাবেক একটি মামলা (নং ৪৫০) দায়ের করেন। যাতে বিবাদী করা হয়েছে শহরের খানপুরের ৪৬/২ মোকরবা রোডস্থ মো: ছামিরুল বশির ওরফে মজনুর পুত্র বর্তমানে ঢাকার মিরপুর-১৪ বর্ণমালা সড়কের আমেনা ভবনের ২য় তলার বাসিন্দা মো: ইফতিখার আহাম্মদ স্বচ্ছ, শ^শুর মো: ছামিরুল বশির ওরফে মজনু ও শাশুড়ি মোসাম্মৎ ইসরাত জাহান রূপাকে। ওই মামলায় গৃহবধু উল্লেখ করেন গৃহবধু মুনতাহা হাসান মিরার সুখের জন্য তার পরিবার নগদ ২ লাখ টাকা, ২০ ইঞ্চি টেলিভিশন, ১টি দেড় ভরি ওজনের স্বর্ণের হার, ২টি ভরি ওজনের ২টি স্বর্ণের হাতের বালা, ১ ভরি ওজনের মাথার সিথিপাটি ও আটআনা ওজনের স্বর্ণের আংটিসহ বিভিন্ন ধরনের স্বর্ণালংকার প্রদান করেন। এছাড়াও প্রায় ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা মূল্যের ফার্নিচারও প্রদান করেন। বিয়ের কিছুদিন পরে স্বামী স্বচ্ছ শ^শুর ও শাশুড়ির কুপরামর্শে ৫ লাখ টাকা যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে। গৃহবধু যৌতুক দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে ছেলে স্বচ্ছকে অন্যত্র অধিক যৌতুক নিয়ে বিয়ে করাবে বলেও হুমকী দেয় শ^শুর শাশুড়ি। পরে একপর্যায়ে চলতি বছরের ২৫ জুলাই গৃহবধুকে মারধরসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে কিল ঘুষি ও লাথি মেরে নীলা ফুলা জখম করে। এরপর ৭ আগষ্ট আবারো গৃহবধুকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে আহত করা হয়। এসময় স্বামী বুট জুতো দিয়েও লাথি মারাসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে নির্যাতন করে। পরে গৃহবধু নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়।

নারায়ণগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে গৃহবধু মুনতাহা হাসান মিরা বাদি হয়ে যৌতুক নিরোধ আইন ২০১৮ এর ৩ ধারা মোতাবেক সিআর মামলা (নং ১৭৪) দায়ের করেছেন। ওই মামলাতেও বিবাদী করা হয়েছে শহরের খানপুরের ৪৬/২ মোকরবা রোডস্থ মো: ছামিরুল বশির ওরফে মজনুর পুত্র বর্তমানে ঢাকার মিরপুর-১৪ বর্ণমালা সড়কের আমেনা ভবনের ২য় তলার বাসিন্দা মো: ইফতিখার আহাম্মদ স্বচ্ছ, শ^শুর মো: ছামিরুল বশির ওরফে মজনু ও শাশুড়ি মোসাম্মৎ ইসরাত জাহান রূপাকে। এছাড়া নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র সহকারী জজ ২য় ও পারিবারিক আদালতে গৃহবধু মুনতাহা হাসান মিরা বাদি হয়ে ১৯৮৫ সনের পারিবারিক আদালত ১৮নং অধ্যাদেশ এর ৫ (গ) (ঘ) ধারার বিধান মতে দেন মোহর ও খোরপোষ আদায়ের নালিশ অনুযায়ী পারিবারিক মোকদ্দমা (নং ৩৩) দায়ের করেছেন। এতে তায়দাদ হিসেবে বাদীনির প্রাপ্য মোহরানা ৪ লাখ টাকা এবং গত আগষ্ট থেকে প্রতি মাসে খোরপোষ বাবদ ১০ হাজার টাকা হারে প্রদান করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। ওই মামলাতেও বিবাদী করা হয়েছে শহরের খানপুরের ৪৬/২ মোকরবা রোডস্থ মো: ছামিরুল বশির ওরফে মজনুর পুত্র বর্তমানে ঢাকার মিরপুর-১৪ বর্ণমালা সড়কের আমেনা ভবনের ২য় তলার বাসিন্দা মো: ইফতিখার আহাম্মদ স্বচ্ছকে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও