কোটিপতি যখন চাঁদাবাজ

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:৩৪ পিএম, ২৩ জানুয়ারি ২০২১ শনিবার

কোটিপতি যখন চাঁদাবাজ

সিদ্ধিরগঞ্জে কোটিপতিরা উত্তোলন করেন ফুটপাতের চাঁদা। কথাটা বেমানান শুনালেও বাস্তব এ ঘটনাই গত কয়েক বছর ধরে ঘটে আসছে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের হীরাঝিল আবাসিক এলাকায়। এ সকল কোটিপতিদেরকে চাঁদা দিয়ে হকাররা দোকান বসিয়ে ব্যবসা করে থাকেন। এতে হীরাঝিলের ঐ রাস্তায় অহরহ যানজট লেগেই থাকছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিদ্ধিরগঞ্জের হীরাঝিল আবাসিক এলাকার ১ নং গলিতে মুক্তার হোসেন সরকার নামের একজন বাড়িওয়ালা তার বাসার নিচে হকার বসিয়ে মাসে ৪৫ হাজার টাকা চাঁদা তোলেন।

এলাকাবাসী জানায়, হীরাঝিলে মুক্তার হোসেনের ৯টি বাড়ি থাকলেও গত ১২-১৩ বছর যাবত হকারদের থেকে তিনি এ চাঁদা নেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক হকার জানান, মুক্তার হোসেন সরকার আমাদের কাছ থেকে অগ্রীম টাকা নিয়ে আমাদের বসতে দিয়েছে।

অপরদিকে আরেক কোটিপতি রানা শিমরাইলের আহসানউল্লাহ সুপার মার্কেটের সামনের ফুটপাত থেকে চাঁদা উত্তোলন করেন রিপন ও তার সহযোগীদের দিয়ে। যা রিপন সাংবাদিকদের কাছে স্বীকার করেছে। রানা আহসান উল্লাহ সুপার মার্কেটের মালিক হাবিবুল্লাহ হবুলের ভাতিজা।

স্থানীয় সূত্র জানায়, বছরের পর বছর হকাররা চাঁদা দিয়ে গেলেও ভয়ে তারা মুখ খুলতে পারে না। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হীরাঝিল আবাসিক এলাকার ১ নং গলি মুক্তার হোসেন সরকার ও আহসান উল্লাহ সুপার মার্কেটের মালিক হাবিবুল্লাহ হবুলের ছেলে জিন্নাহর দখলে থাকায় মানুষ চলাচলেও ব্যাঘাত ঘটছে। জিন্নাহ ১ নং গলি ও তার আশপাশের গলিতে ডাবের দোকান বসতে দিয়ে প্রতি গাড়ি থেকে প্রতিদিন ২০০-৩০০ টাকা করে চাঁদা নেন বলে অভিযোগ রয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সিদ্ধিরগঞ্জে হাবিবুল্লাহ হবুলের একাধিক বাড়ি রয়েছে।

এছাড়াও হীরাঝিল আবাসিক এলাকার ৬ নং গলির একটি বাড়ির মালিক হাবিবুর রহমান তার হাবীব মঞ্জিল বাড়ির সামনে ডিমের দোকান বসিয়ে প্রতিদিন ৩০০ টাকা করে চাঁদা তোলেন। এছাড়াও ডিএনডি খালের পাশেই তার রোকসানা মঞ্জিল নামে আরেকটি বাড়ি আছে। ওই বাড়ির সামনে ডিএনডি খালের জায়গা দখল করে শাক-সবজির দোকান বসিয়ে প্রতিদিন ২০০ টাকা চাঁদা তোলেন এই বাড়িওয়ালা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হীরাঝিল আবাসিক এলাকার ৬ নং গলিতে হাবিবুর রহমানের হকার বসতে দেওয়ার কারণে মানুষ ও রিকশা চলাচল করতে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হীরাঝিল এলাকার এইসব কোটিপতি বাড়িওয়ালাদের চাঁদাবাজির কারণে সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বাড়িওয়ালা জানান, চাঁদাবাজ বাড়িওয়ালাদের হকার বসানোর কারণে গলিতে রিকশাসহ অন্যসব পরিবহন চলাচল তো দূরের কথা মানুষই ঠিকমতো চলাচল করতে পারে না।

এ বিষয়ে মুক্তার হোসেনের সাথে কথা বলতে তার বাসায় গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। জিন্নাহ এ ব্যাপারে কথা বলতে রাজী হয়নি। হাবিবুর রহমান বাসায় থাকলেও সাংবাদিকদের সাথে কথা বলবে না বলে জানিয়ে দেয়।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও