হাটের সঙ্গে মার্কেটে ভিড়

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:১৮ পিএম, ১৯ জুলাই ২০২১ সোমবার

হাটের সঙ্গে মার্কেটে ভিড়

জনসাধারণের সুবিধা ও সাবির্ক বিষয় চিন্তা করে শর্তসাপেক্ষে সারাদেশের মতো নারায়ণগঞ্জেও কঠোর লকডাউন শিথিল করে দেয়া হয়েছে। সেই সাথে লকডাউন শিথিল হওয়ার পর পরই নারায়ণগঞ্জ শহরের মার্কেটগুলো জমজমাট হয়েছে। মার্কেটগুলোতে পবিত্র ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে এখন চলছে শেষ মুহূর্তের কেনাকাটা। একদিন পরেই উদযাটিত হতে যাচ্ছে ইসলাম ধর্মালম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা। সে হিসেবে শেষ মুহূর্তের কেনাকাটায় জমজমাট নারায়ণগঞ্জ শহরের মার্কেটগুলো।

এরই মধ্যে পবিত্র ঈদুল আযহাকে কেন্দ্র করে ঈদ উদযাপন, জনসাধারণের যাতায়াত, ঈদ পূর্ববর্তী ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনা, দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থা এবং অর্থনৈতিক কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে আগামী ১৪ জুলাই মধ্যরাত থেকে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত সব বিধিনিষেধ শিথিল করেছে সরকার। এ সময়ে সর্ববস্থায় জনসাধারণকে সতর্কতায় থাকা এবং মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে অনুসরণ করতে হবে। লকডাউনের শিথিলের পরদিন থেকেই নারায়ণগঞ্জ শহরের মার্কেটগুলো ছিল জমজমাট। এখন চলছে শেষ মুহূর্তের কেনাকাটা।

১৯ জুলাই সোমবার শহর ঘুরে দেখা যায়, শেষ মুহূর্তের ঈদের কেনাকাটায় ব্যস্ত নগরবাসী। এদিন সকাল থেকেই উপচে পড়া ভিয় ছিল নগরের বিপিণকেন্দ্র গুলোতে। অভিজাত শপিং মল থেকে শুরু করে ফুটপাত সবখানেই ক্রেতার ভিড়। তবে থান বা সেলাইবিহীন কাপড়ের দোকানে ভিড় দেখা যায়নি। তৈরি পোশাকের দোকানে এখনো ভিড় লেগে আছে।

নারায়ণগঞ্জের সমবায় মাকের্ট, লুৎফা টাওয়ার, পানোরামা প্লাজা, সায়াম প্লাজা, মার্ক টাওয়ার, সান্তনা মার্কেট, ফ্রেন্ডস মার্কেট, রেলওয়ে মার্কেট, রিভারভিউ, ডিআইটি মার্কেট ও হকার্স মার্কেট ঘুরে দেখা যায় নানা বয়সী ক্রেতার ভিড়। চলতি পথে পা ফেলার মতো জায়গা নেই। কেনাকাটা করতে আসা ক্রেতার মধ্যে নারীর সংখ্যা বেশি। রয়েছে শিশু-কিশোররাও। পরিবারের সকল সদস্যকে নিয়েই এসেছেন কেনাকাটা করতে।

মার্কেট বা বিপণিবিতানগুলো খুলতে সরকারের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে শপিং মল কিংবা দোকানপাটে যাতায়াত করতে হবে। কিন্তু কেনাকাটার তোড়জোড়ে ক্রেতা-বিক্রেতা কাউকেই স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে দেখা যায়নি। অধিকাংশ দোকান মানুষে ঠাসা। নেই সামাজিক দূরত্বের কোনো বালাই।

ফ্রেন্ডস মার্কেটের ব্যবসায়ী হৃদয় বলেন, গত বছর ঈদের বিক্রি খুব খারাপ ছিল। প্রায় সব ব্যবসায়ী লোকসানে ছিল। এবার ভালো বিক্রি হবে এই আশায় সবাই বাড়তি প্রস্তুতি নিয়েছিল। কিন্তু ঈদের আগে মার্কেট খোলা নিয়েই শঙ্কা তৈরি হয়। যাই হোক প্রধানমন্ত্রী সকলের কথা চিন্তা করে মার্কেট খুলে দিয়েছেন। আমরা কিছুদিনের জন্য খেয়ে বাঁচতে পারবো।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও