‘ডিমান্ড নোটের ৪১ লাখ টাকা দিবে কে ?

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৭:২৫ পিএম, ২২ জুলাই ২০২১ বৃহস্পতিবার

‘ডিমান্ড নোটের ৪১ লাখ টাকা দিবে কে ?

চলছে চিঠি চালাচালি। বাড়ছে ঝুঁকি। ডিমান্ড নোট এর ৪১ লাখ টাকা দিবে কে বা কোন সংস্থা ? বাবুরাইলবাসী, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নাকি জাইকা। এ প্রশ্নের সুরাহা হলোনা। অতিবাহিত হল ৩ মাস সময়। বাবুরাইল লেক এর দক্ষিণ পাড়ে তিতাস গ্যাস এর নতুন পাইপলাইন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। আপাতত: দু’টি সংস্থার মধ্যে চিঠি আদান প্রদান চলছে।

তিতাস গ্যাস এর নারায়ণগঞ্জ অফিস বলছে, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনকে এ প্রসঙ্গে চিঠি দেয়া হয়েছে। নাসিক এর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী বলছেন, তিনি এখনো তিতাস গ্যাস এর পক্ষ থেকে নতুন পাইপলাইন স্থাপন সংক্রান্ত কোন চিঠি পাননি। চিঠিটি পেলে হয়তো পরবর্তী করণীয় ঠিক করা যেত।

তিতাস গ্যাস সূত্র জানিয়েছে, চলতি বছরের ৩১ মার্চ নাসিককে চিঠি দেয়া হয়েছে। সিটি কর্পোরেশন সেই চিঠি রিসিভ করেছেন। যার স্মারক নং ৪২২০। সেই চিঠি’র সাথে বাবুরাইল লেক এর দক্ষিণ পাড়ে নতুন গ্যাস লাইন বসানোর জন্য নক্সা, ডিমান্ড নোট ও অনুমোদনের কপি সংযুক্ত করা হয়েছে। সিটি কর্পোরেশন ডিমান্ড নোটের টাকা জমা দিলেই কাজটি শুরু হবে। চিঠি পাওয়ার ৪ মাস হতে চলেছে কিন্তু নাসিক কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে কিছুই করেনি। জমা দেয়নি ডিমান্ড নোটের টাকাও।

এদিকে, চিঠি চালাচালির মধ্যেও নতুন একটি বিতর্ক শুরু হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তারা বলছেন, নতুন লাইন হলে তিতাস গ্যাস রাজস্ব পাবে, তাহলে ডিমান্ড নোট এর টাকা সিটি কর্পোরেশন পরিশোধ করবে কেন ? এখনো তিতাস গ্যাসই রাজস্ব পাচ্ছে। তাহলে ডিমান্ড নোটের টাকা সিটি কর্পোরেশন দিতে যাবে কোন দুঃখে। লেক এর দক্ষিণপাড়ে নতুন পাইপলাইন না বসালে হুস পাইপ দিয়ে সংযোগ নেয়ার কারণে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় দূর্ঘটনা।
তিতাস গ্যাস এর কর্মকর্তারা বলছে, নাসিক এর জনগণ সেবা পাবে। আমাদের লাইনতো আগে থেকেই ছিল। কোন ধরনের সমস্যা ছিল না। এখনো নেই। বাবুরাইল লেক এর কাজ করায় গ্যাস লাইন নিয়ে এলাকাবাসীর শেষ নেই দুর্ভোগের। আগের লাইন উলটপালট হয়ে গেছে। নাসিক এর জন্যই লাইন উলটপালট হয়েছে। দক্ষিণপাড়ে আমাদের লাইন ভালই ছিল। লেক এর কাজ করার জন্যই পাইপলাইন কেটে প্লাস্টিকের হুস পাইপে দক্ষিণপাড়ে গ্যাস সংযোগ নিতে বাধ্য হয়েছে গ্রাহকরা।

১ নং বাবুরাইল এলাকাবাসী জানান, অনেক দিন ধরেই বাবুরাইল এলাকাবাসী গ্যাসের সমস্যায় ভুগছে। কারণ এই লাইনটি ২ ইঞ্চি ব্যাসের পুরনো লাইন। বর্তমান লাইনটি লেক এর উত্তর পাশে আছে। এই লাইনে গ্রাহক সংখ্যা অনেক বেশি বিধায় বাবুরাইলবাসী ঠিকমত গ্যাস পায় না। রান্নার সময় গ্যাসের চাপ থাকে না। এ পাড়ের লাইন থেকে দক্ষিণপাড়ের গ্রাহকরা সংযোগ নেয়ায় এই সংকট চলছে। এলাকাবাসী এই সমস্যা সমাধানে চলতি বছরের শুরু থেকেই আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে আসছিল। তাঁরা তিতাস অফিসে গিয়েও সমস্যা সমাধানের দাবি করেছে। সেই দাবির প্রেক্ষিতে তিতাস গ্যাস ঢাকা অফিসের প্রকৌশলীরা বাবুরাইল এলাকা পরিদর্শন করে এলাকাবাসীর নতুন লাইনের আবেদন মঞ্জুর করেন।

স্থানীয় পঞ্চায়েত নেতারা জানায়, বাবুরাইলের পুরাতন লাইনে চাপটা বেশি পড়ে গেছে। তিতাস গ্যাস কর্মকর্তারা সরেজমিনে এলাকা পরিদর্শন করে এলাকাবাসীর আবেদন মঞ্জুর করেন। তিতাস এর কর্মকর্তারা বলেছিল ডিমান্ড নোটের টাকা সিটি কর্পোরেশন দিলেই নতুন পাইপলাইন বসবে দক্ষিণ পাড়ে। আমরা সিটি কর্পোরেশনে গিয়েছিলাম। সিটি কর্পোরেশন জনস্বার্থে ডিমান্ড নোটের টাকা ভর্তুকি দিতে রাজি হয়েছিল। এখন আমরা আশায় বসে আছি কবে নাগাদ নতুন গ্যাস লাইন বসানো হবে।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, ১নং বাবুরাইলের গ্যাস লাইনের সমস্যা নিরসনে তিতাস গ্যাসের একটি টিম সরেজমিনে এলাকা ঘুরে দেখে এলাকাবাসীর সমস্যার সাথে একমত হন। কর্মকর্তারা তখন বলেছিলেন লেক এর দক্ষিণ পাড়ে ২ ইঞ্চি ও ১ ইঞ্চি ব্যাসের নতুন পাইপলাইন বসানো হবে। এ জন্য এলাকাবাসীকে করতে হবে আবেদন। এরপর প্রাথমিকভাবে দক্ষিণ পাড়ের ১৫৪ জন গ্রাহক নতুন লাইনের আবেদন জানায়। এই আবেদন অনুমোদন পায়। নক্সা হয়ে গেছে। ডিমান্ড নোট এর ৪১ লাখ ২১ হাজার টাকা জমা দিলেই লাইনের কাজ শুরু হবে। কিন্তু এখনো ডিমান্ড নোটের টাকা জমা পড়েনি।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও