ইজিবাইকের মূল্য যখন জীবনের চাইতে বেশী

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৭:৪৩ পিএম, ২২ জুলাই ২০২১ বৃহস্পতিবার

ইজিবাইকের মূল্য যখন জীবনের চাইতে বেশী

ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা কিংবা ইজিবাইক, যে নামেই এদের ডাকা হোক না কেন। নাগরিক জীবনে ক্রমাগত বেড়ে চলেছে এর ব্যবহার। আগে রিকশা চালক একটি শ্রেনীর ভেতর সীমাবদ্ধ থাকলেও ব্যাটারি চালিত রিকশার সুবাধে অনেক মধ্যবিত্ত পরিবারও করোনাকালে চাকরি হারিয়ে বেঁছে নিয়েছেন ইজিবাইক চালনার পেশা। ৭০ হাজার টাকায় মিশুক এবং দেড় লাখ টাকায় বড় ইজিবাইক কিনে মোটামুটি স্বচ্ছল জীবন যাপন করছেন অনেকেই। অপরাধ বিজ্ঞানের সূত্র অনুযায়ী ‘মানুষের ঘনত্বের সাথে সাথে অপরাধের সংখ্যাও বৃদ্ধি পায়’। ঠিক সেই সূত্র ধরেই যেন ইজিবাইক বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে বেড়েছে ছিনতাইয়ের ঘটনা। আর ওৎ পেতে থাকা চোর চক্র চুরির নেশায় খুনী ঘাতক হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। জেলাজুড়ে আতঙ্কের আরেক নাম হিসেবে আবির্ভুত হয়েছে ইজিবাইক ছিনতাইকারী চক্র। দীর্ঘদিন অস্ত্রের মুখে ইজিবাইক ছিনিয়ে নিলেও ইদানিং চালককে হত্যা করে চলছে চক্রটি। নারায়ণগঞ্জের বেশ কয়েকটি এলাকায় এই ধরনের ঘটনা অব্যহত বেড়ে চলায় মাঝে কিছুদিন অভিযান চালিয়েছিলো জেলা পুলিশ। তবে অভিযান তৎপরতার মাঝেও থেমে নেই চক্রের সদস্যরা।

গত ২ মাসে জেলার বিভিন্ন স্থানে অস্ত্রের মুখে এবং অভিনব কৌশলে ইজিবাইক চুরি করে নিয়ে যাবার ঘটনা ঘটেছে। এর ভেতর বেশ কয়েকটি হত্যাচেষ্টা ও হত্যাকান্ডের ঘটনাও ঘটে ফতুল্লায়। একের পর এক ছিনতাই ও হত্যাকান্ডের পর সরব হতে দেখা যায় পুলিশ প্রশাসনকে। হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত চক্রের সদস্য, ছিনতাইকৃত ইজিবাইক, আশ্রয়দাতা এবং ইজিবাইক কিনে নেয়া গ্যারেজ মালিককে আইনের আওতায় নিয়ে আসার কথা জানানো হয়। টানা অভিযানের বেশ কিছুদিন শান্ত ছিলো ফতুল্লা সহ নারায়ণগঞ্জের অন্যান্য এলাকাতেও। কিন্তু ২ সপ্তাহ না পেরোতেই আবারও ইজিবাইক ছিনতাই ও খুনের ঘটনা ঘটে। অব্যহত এসব ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সচেতন মহল।
অপরাধীদের কার্যক্রমের বর্ননা দিয়ে পুলিশ সূত্র জানায়, মূলত সংঘবদ্ধ এসকল চক্র রাতের আঁধারেই হত্যাকান্ডের মত ঘটনা ঘটিয়ে থাকে। অধিক ভাড়ার আশায় রাত জেগে থাকা অটোচালকদের ইজিবাইকে চড়ে বসে চক্রটি। পরে নির্জন স্থানে নিয়ে তাকে পেছন থেকে ধারালো অস্ত্রে হত্যা করে তারা। এছাড়া এই চক্রদের কেউ কেউ হত্যার ভয় দেখিয়ে ছিনতাইও করে থাকে। এছাড়া দিনের বেলা বিভিন্ন কৌশল ও ছদ্মবেশ ধারণ করে চালকদের বোকা বানিয়ে ছিনতাই করে থাকে চক্রটি। ক্রমাগত এসব ঘটনা বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি গ্রেফতারের ঘটনাও ঘটছে নিয়মিত। তবুও ছিনতাই চক্রের লাগাম টেনে ধরতে পারছেন না পুলিশ প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা।

গত ৮ জুলাই ফতুল্লার মাসদাইর এলাকা থেকে ইজিবাইক সহ নিখোঁজ হন ফারুক হোসেন (৩২)। এ ঘটনায় তার স্ত্রী বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরী দায়ের করেছেন।

গত ১৪ জুলাই ফতুল্লায় খুন হন মিশুক চালক রবিন হোসেন। তাকে হত্যার পর বক্তাবলী ইউনিয়নে চর রাজাপুরস্থ মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোহাম্মদ আলীর খামারে ফেলে দেয় ঘাতকেরা। লাশ উদ্ধারের তিন ঘন্টার মধ্যেই দুই আসামীকে গ্রেফতার করে। আর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করেছে আসামীরা।

মামলা সূত্র জানা গেছে, মিশুক চালক নাম রবিনকে (২৫) হত্যা করে ব্যাটারী চালিত মিশুক গাড়ি ছিনিয়ে যায় তারই বন্ধু রিফাত (২৬) ও জিহাদ (২৫)। ১৩ জুলাই রাতে মিশুক চালককে হত্যা করে বক্তাবলীর চর রাজাপুরস্থ মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোহাম্মদ আলীর খামারে লাশটি ফেলে চলে যায়। তাদের কাছ থেকে পরে চুরিকৃত মিশুকটি উদ্ধার করা হয়।
এর আগে ফতুল্লার পিলকুনিতে ১৭ জুন ও ইসদাইরে ২৯ জুন পৃথক ঘটনায় দুইজন চালককে হত্যার পরে দু’টি ব্যাটারীচালিত অটোরিকশা ছিনতাইয়ের ঘটনায় ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে দুইজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তাদের দেয়া তথ্যে ছিনতাই হওয়া দু’টিসহ ৬টি চোরাই অটোরিকশাও উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলে ফতুল্লা পাগলা এলাকার সাইফুল মিলুর ছেলে নিশান সরকার (২৭), দেলপাড়া কলেজ রোড এলাকার হযরত আলীর ছেলে মামুন (৩০), জেলা পরিষদ এলাকার হান্নান মিয়ার ছেলে রাসেল (২৫), পূর্ব ইসদাইর এলাকার আসাদুজ্জামানের ছেলে রাজু আহমেদ (৩৮), এনায়েতনগর এলাকার সামাদ মিস্ত্রীর ছেলে রিপন (২২) ও পূর্ব ইসদাইর বুড়ির দোকান এলাকার শেখ খোরশেদ আলমের ছেলে শেখ সহিদ সেলিম (৫০)।

আসামিদের দেয়া তথ্য ও তাদের কাছ থেকে চুরি ও ছিনতাই হওয়া ৬টি মিশুক গাড়ি উদ্ধার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত নিশান সরকার ও মামুন আদালতে ঘটনার বিষয়ে তাদের সম্পৃক্ততা উল্লেখ করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি সহ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে।

চলতি বছরের ৭ এপ্রিল রূপগঞ্জের এশিয়ান হাইওয়ে থেকে অটোচালক সাজ্জাদ হোসেনের (২২) হাত পা বাঁধা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এর আগে, ৩ এপ্রিল সাজ্জাদকে তার অটোরিকশা ছিনিয়ে নেয়ার জন্য হত্যা করে তার লাশ গুম করে রাখে খুনীরা। নিহত সাজ্জাদ উপজেলার মাসুমাবাদ গ্রামের তোতা হাওলাদারের ছেলে।

২৯ মে ফতুল্লার স্টেডিয়াম থেকে নন্দলালপুর যাবার পথে আওলাদ হোসেন নামে এক ইজিবাইক চালককে কুপিয়ে ছিনতাইয়ের চেষ্টা চালায় পেশাদার চক্র। সেসময় চালক গুরুতর আহত হলেও ছিনতাইকারীদের প্রচেষ্টা ব্যার্থ করে দেন।
১৩ জুন সকালে ফতুল্লার শাহজাহান রোলিং মিলস এলাকায় পুলিশ পরিচয়ে অটোরিকশা ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় তাদের কোমড়ে ছিল পিস্তল ও হ্যান্ডকাফ। এ ঘটনায় ইজিবাইকের মালিক মনির হোসেন বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় অজ্ঞাত ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

১৭ জুন এই সড়কের পিলকুনি মোল্লাবাড়ি এলাকায় রাত সাড়ে ১২ টার দিকে মিশুক চালক আনোয়ার হোসেনকে (৩৯) কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা করে সংঘবদ্ধ অটোরিক্সা চোর চক্র। হত্যার পরপরেই তার অটোরিক্সা নিয়ে পালিয়ে যায় আসামীরা। ঘটনার ৩ দিন পর ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে নিশাত (২৭) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ। সে কুতুবপুর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের দেলপাড়া এলাকার বাসিন্দা। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ২০ জুন রাতে দেলপাড়ার আজিজ মিল সংলগ্ন এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে এই ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে এবং তার সাথে আরও ৩ জন সহযোগী থাকার কথা জানায়।

৯ জুলাই রূপগঞ্জের ভুলতা গাউছিয়া ফ্লাইওভারের পাওয়া যায় অটোচালক মোস্তফার মরদেহ। সে উপজেলার চারিতালুক এলাকার বাসিন্দা। পুলিশের ধারনা অটোরিকশা ছিনতাই করে তাকে হত্যা করে ফেলে যায় চক্রের সদস্যরা।
১৩ জুলাই আড়াইহাজার উপজেলার মনোহরদী এলাকায় ইজিবাইক চালক আশেকে মোস্তফাকে ছুরিকাঘাত করে ইজিবাইক ছিনিয়ে নেয় ছিনতাইকারীরা।

একের পর এক হত্যাকান্ডের ঘটনায় পুলিশের অবস্থান জানতে চাওয়া হয় জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আমীর খসরুর কাছে। তিনি বলেন, বিষয়টি হঠাৎ করে বেড়ে গেছে এমন বলবো না। মূলত ইজিবাইকের কোন লাইসেন্স প্লেট থাকে না। এগুলো একই সাইজ এবং একই শেপের হয়ে থাকে। ফলে চুরি হয়ে যাওয়া ইজিবাইক ডিটেক্ট করা কিছুটা কষ্টসাধ্য পুলিশের জন্য। তবে আমরা বিভিন্ন সময় বিট পুলিশিং কার্যক্রমে চালকদের সতর্ক করেছি। তারা যেন নির্জন, অচেনা এলাকায় না যায়। রাতে সতর্কতার সাথে ইজিবাইক চালায় সেজন্য পরামর্শ দিয়ে থাকি। পাশাপাশি এই চক্রকে গ্রেপ্তারের জন্য আমাদের অভিযান অব্যহত রয়েছে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও