নয়ামাটি ও টানবাজার বাসীর যত ক্ষোভ অনুরোধ

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:০৮ পিএম, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ রবিবার

নয়ামাটি ও টানবাজার বাসীর যত ক্ষোভ অনুরোধ

টানবাজারে যানজট নিরসনের ব্যবস্থা দিনে দুইবার করে বর্জ্য নিষ্কাশনের অনুরোধ এলাকাবাসীর। অন্যদিকে শীতলক্ষ্যা পাড়ের ওয়াকওয়ের উন্নয়ন ও মাদকমুক্ত ওয়াকওয়ে চান টানবাজারবাসী। একটু স্থানীয় কাচাবাজার তৈরির অনুরোধও করেন তারা।

আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন। এ সময় সিটি করপোরেশনের ২৭টি ওয়ার্ডের সামগ্রিক অবস্থা নিয়ে নিউজ নারায়ণগঞ্জ আয়োজন করেছে বিশেষ অনুষ্ঠান ‘কেমন আছে আমার এলাকা?’

অনুষ্ঠানের দ্বাদশ দিনের আয়োজনে ১৮ সেপ্টেম্বর ১৫ নং ওয়ার্ডের নয়ামাটি ও টানবাজার এলাকার উন্নয়ন ও প্রয়োজন সম্পর্কে কথা বলেন এলাকাবাসী।

টানবাজার : নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের বর্তমান পরিচালক সোহেল আক্তার সোহান বলেন, ১৫ নং ওয়ার্ড একটি জনবহুল ও ব্যবসায়িক এলাকা। নয়ামাটিতেও তার ব্যতিক্রম নয়। এখানে যানজটের সমস্যা রয়েছে। তাছাড়া কিশোর গ্যাংএর কিছু উপদ্রবও রয়েছে। এখানে প্রতি ঘন্টায় প্রচুর আবর্জনা তৈরি হয়। এই এলাকায় যদি দিনে দুইবার বর্জ্য নিষ্কাশনের ব্যাবস্থা করা হয়, তাহলে জনগনের সুবিধা হয়।

স্থানীয় বাসিন্দা হরে কৃষ্ণ ঘোষ বলেন, এলাকার বৈদ্যুতিক তারগুলো অপরিকল্পিতভাবে স্থাপন করা। যা পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ সরবরাহের উপযোগী নয়। যার ফলে আমরা নানা সময় ভোগান্তির সম্মুখিন হই। যদিও এটি সিটি কর্পোরেশনের কাজ নয়, তবে জনপ্রতিনিধি হিসেবে যদি তারা আলোচনা করে বিদ্যুৎ বিভাগের সঙ্গে একটি সমাধানের ব্যবস্থা করে, তাহলে ভালো হয়।

এলাকাবাসী মন্টু ঘোষ বলেন, আমরা ওয়াশার পানি পাই না। নিজ নিজ ডিপের পানি ব্যবহার করতে হয়। এই এলাকায় ওয়াশার পানির ব্যবস্থা নাই।

সাহানাজ বেগম বলেন, আমরা জুট এসোসিয়েশনের জায়গায় থাকি। আমাদের বাপ দাদার চাকরি সূত্রে এখানে বসবাস শুরু হয়েছিল। আমাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করলে ভালো হয়।

স্থানীয় বাসিন্দা গোপাল ঘোষ বলেন, আমাদের এলাকার ভবনগুলো বেশ পুরনো। যা একটা সময় অপরিকল্পিতভাবেই ঘনবসতি হিবেবে গড়ে উঠেছিল। ফলে এখানে আগুনের আশঙ্কা খুব বেশি। কোথাও আগুন ধরলে সেটা ভয়াবহ রূপ ধারণ করবে। সে বিষয়ে কিছু সচেতনতা অবলম্বন করা প্রয়োজন। তাছাড়া এই এলাকায় কিছু প্রভাবশালী ব্যবসায়ী ভাড়াটিয়া আছেন। যারা বহু বছর ধরে একই বাড়িতে ভাড়া থাকেন এবং নিজেদের প্রভাব খাটিয়ে তারা বাড়িতে ভাড়ি ভাড়ি যন্ত্রপাতি রাখেন এবং ব্যবহার করেন। যার লোড এই পুরনো ভবনগুলো নিতে পারে না বলে মনে করি। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের উচিৎ বাড়িওয়ালা ও ভাড়াটিয়াদের সঙ্গে আলোচনা করে এই বিষয়টার সমাধান করে দেয়া।

মিনাবাজার : স্থানীয় বাসিন্দা ও নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আদিনাথ বসু তনয় বলেন, `১৫ নং ওয়ার্ডের সার্বিক উন্নয়নে আমরা সন্তুষ্ট। তবে নদীর পাড়ের ওয়াকওয়েটার সৌন্দর্য বর্ধন ও উন্নয়ন প্রয়োজন।`

এছাড়াও মাদকবিক্রি ও মাদকসেবীদের কাছ থেকে উক্ত ওয়াকওয়ের নিরাপত্তা চান এলাকাবাসী।

এ বিষয়ে মিনাবাজার মার্কেট কমিটির সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আব্দুল খালেক সিদ্দিকি বলেন, আমরা যারা বয়স্ক, তাদের শরীরচর্চার জন্য এই ওয়াকওয়েটি উপযুক্ত একটি জায়গা। অথচ এই ওয়াকওয়েতে খোলামেলা ভাবে মাদকবিক্রি ও সেবন চলে। যার ফলে আমরা সেখানে চলাফেরা করতেও অস্বস্তি বোধ করি।`

তিনি আরও বলেন, দিগু বাবুর বাজার আমাদের এলাকার খুব কাছে হলেও পাইকারি বাজার হিসেবে সে বাজারে সারা নারায়ণগঞ্জের মানুষ আসে। সেখানে হৈ হুল্লোড়ের কারণে আমাদের দৈনন্দিন বাজার করার পরিস্থিতি থাকে না। আমাদের এলাকায় একটা কাচা বাজার তৈরি করা হলে ভালো হয়।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও