সিদ্ধিরগঞ্জে আলেক মিয়ার দোর্দন্ড উত্থান

সিদ্ধিরগঞ্জ করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১৫ পিএম, ৯ অক্টোবর ২০২১ শনিবার

সিদ্ধিরগঞ্জে আলেক মিয়ার দোর্দন্ড উত্থান

গত ৮ বছর যাবত নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের নাসিক ১ নং ওয়ার্ডের মিজমিজি কালুহাজী রোড এলাকায় মাল্টিপারপাস ব্যবসা করে আসছেন এলাকার বাসিন্দা আলেক মিয়া। স্ট্যাম্পের মাধ্যমে তিনি গ্রাহকের কাছ থেকে টাকা নেন। চড়া সুদে টাকা ঋণ দেন স্ট্যাম্পের মাধ্যমেই।

নারায়ণগঞ্জে রয়েছে তার একাধিক বাড়ি, কয়েক বিঘা জমি। তারপরও গ্রাহকরা তার পালিয়ে যাওয়ার শঙ্কায় রয়েছেন। উৎকণ্ঠিত গ্রাহকরা বলছেন তার কাছে আমাদের কয়েক কোটি টাকা জমা দিয়েছি। আমরা শুনেছি সে আমেরিকায় যাওয়ার পায়তারা করছে। আমাদের টাকা ফেরত না দিলে আমরা আইনের আশ্রয়গ্রহণ করবো।

চাঁদপুরের মতলব থানার হাজী চাঁন মিয়ার ছেলে মোঃ আলেক মিয়া গত প্রায় ১০ বছর সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরেন। সৌদি আরবে তিনি ভিওআইপি ও সীম কার্ডের ব্যবসা করতেন। সেখানে ভিওআইপি ব্যবসা করে অর্থ বানিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জের নাসিক ১ নং ওয়ার্ডের মিজমিজি কালুহাজী রোড এলাকায় কালুহাজী মসজিদের পাশে ৪ কাঠা জমি ক্রয় করেন। এ জমিতে বাড়ি করে প্রায় ৮ বছর পূর্বে শুরু করেন মৌখিক মাল্টিপারপাস ব্যবসা। মানুষকে স্টাম্পের মাধ্যমে চড়া সুদে অর্থ ঋণ দিতেন তিনি।

পাশাপাশি কম লাভ দিয়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা নিতেন। এভাবে চড়া সুদে অর্থ কামানোর পাশাপাশি কালুহাজী রোড এলাকায় নিজের বাসায় (রবি টাওয়ার ভবন) মাদকের আসর বসিয়ে ও মাদক বিক্রি করতেন বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। সেই অর্থ দিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জের কালুহাজী রোড এলাকায় ৮ কাঠা জমির উপর টিনসেড বিল্ডিং বাড়ি তৈরী করেন।

একইভাবে ফতুল্লার শিবু মার্কেট এলাকায় ৫ তলা করে ৪ টি ভবন তৈরী করেন। একইভাবে জালকুড়িতে ৫০ কাঠার জমিও ক্রয় করেন। জালকুড়ি এলাকায় কিছুদিন পূর্বে একটি কার শোরুম দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী। তার এত অর্থের উৎস জানতে চায় এলাকাবাসী। সম্প্রতি তিনি আমেরিকায় চলে যাবেন বলে এলাকায় কানাঘুষা চলছে। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন তার ব্যবসায় টাকা লগ্নিকারী গ্রাহকরা।

তারা বলছেন, আলেক মিয়া গ্রাহকদের কাছ থেকে ৫ লাখ, ১০ লাখ করে কয়েক কোটি টাকা নিয়েছেন। কিন্তু সে আমেরিকায় চলে গেলে আমাদের টাকাগুলো আর নাও পেতে পারি। এতে আমরা ক্ষতির সন্মুখীন হবো।

এক গ্রাহক জানায়, আমি তার কাছে ৫ লাখ টাকা জমা দিয়েছি। আমাকে মাসে ১০ হাজার টাকা করে দিচ্ছে। কিন্তু সে চলে গেলে আমিতো আমার টাকা উত্তোলন করতে পারবো না। এতে আমি ক্ষতির সন্মুখীন হবো। এ গ্রাহক জানায়, সে বিদেশে চলে যাওয়ার পায়তারা করলে আমি আইনের আশ্রয় নিবো।

তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের ব্যপারে তার সাথে কথা বলতে শনিবার দুপুরে তার অফিসে গেলে অফিস বন্ধ পাওয়া যায়। তার বাসায় নক করলে কেউ সাংবাদিকদের সাথে কথা বলবে না বলে জানিয়ে দেয় বাসার ভিতর থেকে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও