জনগণ প্রচন্ড ক্ষিপ্ত

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:৩৬ পিএম, ১১ জুন ২০২১ শুক্রবার

জনগণ প্রচন্ড ক্ষিপ্ত

টানা তিন মেয়াদ ধরে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় রয়েছে দেশের প্রধান রাজনৈতিক দাল আওয়ামী লীগ। আর এই তিন মেয়াদে ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় রাজনৈতিক সুযোগ সুবিধা নিয়ে গড়ে তুলেছেন সম্পদের পাহাড়। সেই সাথে অনেকেই আবার সহজেই জনপ্রনিধিও হয়ে গেছেন। এলাকার জনগণের সাথে তাদের তেমন একটা সম্পৃক্ততা না থাকলেও আওয়ামী লীগের পরিচয় দিয়ে বর্তমানে তারা জনপ্রতিনিধি।

তবে এদের মধ্যে কেউ কেউ জনসাধারণের জবাব পেতেও শুরু করেছেনে। এলাকায় গেলেই তাদের বিরুদ্ধে জনগণ ফুঁসে উঠছে। এলাকায় ফিরলেই তাদেরকে ধাওয়া করা হচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে জনসাধারনের জনরোষ বাড়তে শুরু করছে। যার সূত্র ধরে নারায়ণগঞ্জেও এমন ঘটনা উড়িয়ে দেয়া যায় না। কারণ সামান্য বৃষ্টি হলেই নারায়ণগঞ্জের অনেক এলাকা পানিতে প্লাবিত হয়ে যায়। সেই সাথে মাসের পর মাস প্লাবিতই থেকে যায়।

জানা যায়, গত ১ জুন জনগণের বাঁধ নির্মাণ কাজ দেখতে যাওয়া খুলনা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আক্তারুজ্জামান বাবুকে উদ্দেশ্য করে কাঁদা ছুড়েছেন স্থানীয় জনতা। পরে অবশ্য পরিস্থিতি শান্ত হয়ে আসে। তবে কাঁদা ছুড়ার বিষয়টি তার জন্য লজ্জাজনক বটে।

এদিকে আওয়ামী লীগ নেতা ও বরিশাল-৪ আসনের সংসদ সদস্য (হিজলা-মেহেন্দিগঞ্জ) পঙ্কজ দেবনা‌থের গাড়িবহরে হামলার ঘটনা ঘ‌টে‌ছে। এ সময় তার গা‌ড়িবহ‌রে ইট পাট‌কেল নি‌ক্ষেপ ক‌রা হয়। এ ঘটনায় এম‌পিকে বহনকা‌রী গাড়ির গ্লাস ভে‌ঙে চালক শুক্কুর আহত হন। গত ৮ জুন রাতে হিজলা উপ‌জেলার খুন্না বন্দ‌রে এ ঘটনা ঘ‌টে। হিজলা থানার প‌রিদর্শক তা‌রিকুল ইসলাম রা‌সেল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করলেও সংসদ সদস্য পঙ্কজ দেবনা‌থ তা অস্বীকার করেন।

এভাবে গত কয়েকদিন ধরে একের পর এক জনরোষের ঘটনা ঘটে যাচ্ছে। যে কোনো সময় নারায়ণগঞ্জেও এর রেস বয়ে যেতে পারে।

জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জে বৃষ্টি হলে জলাবদ্ধতার সমস্যা দীর্ঘদিনের। ডিএনডি বাধের ভেতরে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধায়নে মেগাপ্রকল্পের কাজ চলছে। এ কাজ শেষ হলে বাধের ভেতরে জলাবদ্ধতা কমে যাবে। দৃষ্টিনন্দন হবে ডিএনডি বাধের ভেতরের এলাকা। কিন্তু বাধের বাইরে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার বিভিন্ন এলাকাতে দেখা দিয়েছে তীব্র জলাবদ্ধতা। অনেক এলাকাতে কৃত্রিম বন্যা। এলাকাবাসীর অভিযোগ বছরের পর বছর ধরে এ সমস্যা থাকলেও সেগুলো সমাধানের কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

গত ১ জুন বৃষ্টিতে ডুবে গেছে কুতুবপুরের বেশ কিছু এলাকা। এদের মধ্যে শিয়াচর লালখা, রামারবাগ, পিলকুনি, উকিলবাড়ি অন্যতম। কুতুবপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড মেম্বার হান্নানুর রশিদ রঞ্জু বলেন, বৃষ্টির পানি জমলেই ডাইংক ফ্যাক্টরি সুযোগ নিয়ে তারা তাদের পানি রাস্তায় ছেড়ে দেয়। যখনই জিজ্ঞাসা করা হয় তখন কেউই এইটা স্বীকার করে না যে আমরা পানি ছাড়ছি। তারা সবসময়েই ড্রেনে পানি ছাড়ে। যখন বৃষ্টি হয় তখন বোঝা যায় যে তারা ডাইংয়ের পানি সরাসরি ছাড়ছে রাস্তায়। আমি এই বিষয়টা সমাধানে সাংবাদিক ও গণমাধ্যমের সহায়তা চাই।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বর্ষনে মাহমুদপুর, ভূইগড়, দেলপাড়া, নয়ামাটি, নুরবাগ, ইসদাইর, তল্লা, গাবতলী, লালপুর, পৌষারপুকুর পাড়, কোতালের বাগ, কুতুবআইল, লালখা, দাপা পাইলট স্কুল, রেল স্টেশন, পিলকুনী, ব্যাংক কলোনী, নন্দলালপুর সড়ক, দেলপাড়া কলেজ রোড ,সস্তাপুর, ইসদাইর, কলেজ রোড, মাসদাইর বাজার, জামতলা, নাগবাড়ি, দেওভোগ,পাগলা শাহিবাজর, চিতাশাল, বিসিক শিল্প নগরী সহ ফতুল্লাঞ্চলের প্রায় এলাকা জলবদ্ধতার কবলে পড়েছে মানুষ।

এদিকে শিল্প নগরী নারায়ণগঞ্জের অন্যতম শিল্পাঞ্চল হচ্ছে ফতুল্লার বিসিক। এখানে শিল্প প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কয়েক হাজার এবং শ্রমিকের সংখ্যা কয়েক লাখ। প্রতি বছর এই অঞ্চল থেকে সরকার কোটি টাকার রাজস্ব পায়। অথচ এই অঞ্চলে কর্মরত শ্রমিকদের দুর্ভোগের শেষ নেই। কয়েক ঘণ্টার বৃষ্টিতে বিসিক ২নং গলি হাঁটু পানিতে তলিয়ে গেছে। ডাইংয়ের কেমিক্যাল মিশ্রিত বিষাক্ত পানি মাড়িয়েই কর্মক্ষেত্রে যেতে হচ্ছে কয়েক লাখ শ্রমিককে।

বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে সদর উপজেলার লালপুর ও আশপাশ এলাকা। গতবছর বর্ষায় এ সড়কে চলেছিল নৌকা। বছরান্তেও কোন সুরহা হয়নি। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানও ক্ষুব্ধ। বৃষ্টির পানির চেয়ে বড় সমস্যা স্থানীয় ৫টি ডাইং কারখানা। কারণ এসব কারখানা হতেই প্রতিনিয়ত ছাড়া হচ্ছে পানি। আর বিষাক্ত পানিতে সয়লাব হয়ে যাচ্ছে এলাকা। কেমিক্যাল মিশ্রিত পানির কারণে নাজেহাল স্থানীয়রা।

ফতুল্লা ও এনায়েতনগর ইউনিয়নের ভেতর অন্তর্ভুক্ত লালপুর, পৌষারপুকুরপাড়, টাগারপাড়, আলআমিন নগর, ইসদাইরের একাধিক অলিগলি এখনও জলাবদ্ধতা সমস্যার সমাধান আসেনি। ফলে এবারও বর্ষা আসার পূর্বেই সড়কে জমতে শুরু করেছে ড্রেন ও বৃষ্টির পানি। নোংরা কালো পানি দ্রুত সরাতে তাৎক্ষনিক ড্রেন পরিষ্কারের কাজে হাত দিতেও দেখা গেছে পরিচ্ছন্ন কর্মীদের। ডিএনডি বাঁধের ভেতরে হলেও প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত হতে পারেনি এলাকাটি। বৃষ্টি আর ডাইংসহ শিল্প কারখানার বর্জ্য এই জলাবদ্ধতার প্রধান কারণ বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

সরেজমিনে ফতুল্লার লালপুর, পৌষারপুকুরপাড়, টাগারপাড়, আলআমিন নগর এলাকায় গিয়ে দেখা মেলে জলাবদ্ধতার চিত্র। পৌষারপুকুর পাড়ের সড়কে পুকুর উপচে পানি উঠে এসেছে মূল সড়কে। ভারী বর্ষন হলেই পানি উঠে পুরো সড়ক তলিয়ে যায়।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও