ফাবিহার চিকিৎসায় সহযোগিতায় গোলাম সারোয়ার মানবকল্যাণ ট্রাস্ট

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১১:১০ পিএম, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ শনিবার

ফাবিহার চিকিৎসায় সহযোগিতায় গোলাম সারোয়ার মানবকল্যাণ ট্রাস্ট

সংবাদ প্রকাশের পরে অসুস্থ ফাবিহার পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতা করেছে গোলাম সারোয়ার মানবকল্যাণ ট্রাস্ট। ১১ সেপ্টেম্বর শনিবার রাতে অসুস্থ ফাবিহার পিতা ফিহান রহমানের হাতে সেই আর্থিক সহযোগিতা তুলে দেওয়া হয়।

এর আগে “দয়া করে কেউ এড়িয়ে যাবেন না” শিরোনামে নিউজ নারায়ণগঞ্জ টোয়েন্টিফোর ডটকম ও দৈনিক সময়ের নারায়ণগঞ্জে সংবাদ প্রকাশিত হলে বিষয়টি দৃষ্টিগোচর হয় গোলাম সারোয়ার মানবকল্যাণ ট্রাস্ট কর্তৃপক্ষের।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ৪ মাসের এক মাত্র মেয়ে ফাবিহাকে বাঁচাতে আকুতি জানিয়ে যাচ্ছেন ফিহান রহমান। ‘একটি মানবিক আবেদন। দয়া করে কেউ এড়িয়ে যাবেন না। আল্লাহ চাইলে আপনাদের উছিলায় হয়তো বেচে যেতে পারে আমার মেয়ের জীবনটা’। ফিহান রহমান বলেন, ‘ফাবিহা আমাদের আদরের একমাত্র সন্তান, দীর্ঘ ৬ বছর পর আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের অশেষ রহমতে আমাদের সন্তান জন্ম নেয়। আমার মেয়ের জন্মের ২ মাস পর্যন্ত সব কিছু ভালো ভাবে চলছিল। তারপর থেকেই আমাদের ঘরে নেমে আসে শোকের ছায়া। অনেক আশা, অনেক স্বপ্ন ছিল আমার মেয়েকে ঘীরে, যা আজ হতাশায় পরিণত হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘জন্মের পর থেকে রাতে প্রচন্ড রকম কান্না করতো। ডাক্তার দেখানোর পরেও কোন সমাধান হয়নি। ডাক্তার বলে ‘কোন সমস্যা নেই, ছোট বাচ্চারা কান্না করবেই।’ তখনও বুঝিনি মেয়েটা আমার কতটা যন্ত্রনা সহ্য করছে। ওর বয়স যখন ২ মাস তখন ওকে আবার নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল (ভিক্টোরিয়া হাসপাতাল হিসেবে পরিচিত) এর ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাই। ডাক্তার অনেক পরীক্ষা করতে দেয়। পরদিন রিপোর্ট দেখে ডাক্তার আমাদেরকে নির্দেশ দেয় দ্রুত ফাবিহাকে হাসপাতালে ভর্তি করার জন্য। আমার এতোটুকু বাচ্চাকে নাকি সার্জারি করানো লাগবে। হঠাৎ ডাক্তারের মুখে এমন কথায় আমাদের যে কি অবস্থা তা ভাষায় প্রকাশ করার মতো না। কথাগুলো বলেই কান্না করতে থাকেন ফিহান।

দুই হাতের চোখের জল মুছে ফিহান বলেন, ‘আমরা মডার্ন এবং পপুলারে যেসব ডাক্তার বসে এমন শিশু ডাক্তারদের দেখিয়েছি। তারাও একই কথা বলে। পরে গত ১ জুলাই ঢাকা পিজি হাসপাতালে ফাবিহাকে ভর্তি করি। ওখানের ডাক্তাররাও অনেক পরীক্ষা দেয়। ওই পরীক্ষার রিপোর্ট দেখে তারা জানায় আমার মেয়ের লিভারে ‘বিলিয়ারি এট্রেশিয়া’ নামক ভয়ঙ্কর রোগ দেখা দিয়েছে। এ রোগের জন্য প্রতিনিয়ত আমার মেয়ের লিভার ড্যামেজ হয়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে শতকরা ৫ ভাগ ড্যামেজ হয়ে গেছে। এ রোগের কারণে শরীরে বিলুরবিন মাত্রা বেড়ে যায়। লিভার বড় হয়ে যায়, খাবারে রুচি কমে যায়, পেটে কোন খাবার হজম হয় না, আর একটা সময় খাবার হজম না হওয়ার কারণে খাবারের অভাবে রোগী মারা যায়।’ এ কথা বলে আবারও কান্না শুরু করেন ফিহান।

কিছুটা শান্ত হয়ে কান্না জড়িত কণ্ঠে ফিহান বলেন,‘ পেটের ভিতরের যন্ত্রণায় মেয়েটা এক মুহূর্তের জন্য ঘুমাতে পারে না, প্রতিনিয়ত শুধু কান্না করে, অনেক ক্ষুধা লাগে, খাবারের ইচ্ছে থাকলেও খেতেও পারে না, ঘুমের ধরে কিন্তু ক্ষুধার জ্বালায় ঘুমাতেও পারে না, চোখের সামনে সন্তানের এ অবস্থা দেখে আমাদের ও খাওয়া ধাওয়া শেষ।’

তিনি বলেন, ‘আল্লাহ পাকের হাতে আমার মেয়ে। তবে ডাক্তারের কথা হলো খুব দ্রুত চিকিৎসা না করালে আমার কলিজার টুকরা কে হয়তো আর বুকে জড়িয়ে ধরতে পারবো না। সে এখন পিজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায়। ইতোমধ্যে মেয়েকে বাঁচাতে সর্বশান্ত হয়ে গেছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘এখন আমার মেয়ের বাঁচার একমাত্র উপায় লিভার ট্রান্সপ্লান্ট। কিন্তু এ লিভার ট্রান্সপ্লান্ট অত্যন্ত ব্যয়বহুল আর এটা আমাদের দেশে হয় না ইন্ডিয়াতে হয়। ইন্ডিয়ায় এর চিকিৎসা করাতে প্রায় ৭০ থেকে ৮০ লাখ টাকা যা বহন করা আমাদের মত মধ্যবিত্ত এর পক্ষে কখনোই সম্ভব না। যেহেতু অনেক টাকার প্রয়োজন তাই আপনাদের কাছে বিনীতভাবে হাতজোড় করে অনুরোধ করছি। আপনাদের পক্ষে যতটুকু সম্ভব তা দিয়ে আমার মেয়েকে সুস্থ জীবন ফিরিয়ে দিতে। আমি যেন আমার সন্তানকে না হারাই। চিকিৎসার অভাবে আমার বুক যেন খালি না হয়। হাত জোড় করে অনুরোধ করছি। আপনারা সবাই এই ছোট্ট বাচ্চাটির পাশে দাঁড়ান। আপনাদের মাধ্যমে শুধু উপরওয়ালাই পারে আমার মেয়ের জীবন বাঁচাতে। তাই আপনাদের সবার কাছে ওর জন্য দোয়া চাইছি। যদি আপনারা সবাই আমার মেয়ের চিকিৎসার জন্য একটু এগিয়ে আসেন তবে আমার মেয়ের চিকিৎসা করা সম্ভব হবে। আপনাদের ছোট্ট একটি অনুদান অকালে একটি নিষ্পাপ শিশুর প্রাণ হারাবে না। দয়া করে যে যার জায়গা থেকে পারেন আমার মেয়ের জন্য একটু এগিয়ে আসুন। আল্লাহর রহমতে আমার মেয়ে যদি বেঁচে যায়, আমার মেয়ের এবং আমাদের প্রতি নিঃশ্বাসে। আপনাদের জন্য সদকায়ে জারিয়া হয়ে থাকবে ইনশাল্লাহ।

ফাবিহার জন্য অনুদান পাঠানোর ঠিকানা - বিকাশ : ০১৯১৫ ৭৫০৮৭৪, রকেট : ০১৭১০ ৩৭৬৪৩৮, নগদ : ০১৭১০ ৩৭৬৪৩৮।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও