পুলিশের মার খেয়েও মাঠ ছাড়েনি

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:১৪ পিএম, ২৩ জানুয়ারি ২০২১ শনিবার

পুলিশের মার খেয়েও মাঠ ছাড়েনি

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির একজন অপরিহার্য ও প্রভাবশালী নেতা হলেন বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। কিন্তু মাঝখানে কয়েক বছর তাকে জেলা বিএনপি থেকে মাইনাস করে রাখা হয়। আর তাকে মাইনাস করার সাথে সাথে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আন্দোলন সংগ্রামেও নিস্ক্রিয়তা চলে আসে। পদে থাকা শীর্ষ পর্যায়ের নেতারাই নিস্ক্রিয় ভূমিকা রাখেন। বিপরীতে তৈমূর আলম খন্দকার কোনো পদ পদবীতে না থেকেও তার অবস্থান থেকে আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় ভূমিকা রাখার চেষ্টা করে যান।

তারই ধারাবাহিকতায় কেন্দ্রীয় বিএনপি আবারও অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের হাতে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির দায়িত্ব তুলে দেন। আর তার হাতে দায়িত্ব তুলে দেয়ার সাথে সাথে নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে ফের সক্রিয়তা চলে আসছে। যে বিএনপি কর্মসূচি নিয়ে গলি থেকে বের হওয়ার সাহস করতো না অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের নেতৃত্বে সেই বিএনপি রাজপথে এসে কর্মসূচি পালন করছে। সেই সাথে এসকল কর্মসূচিতে নেতাকর্মীদেরও বিশাল সমাগম ঘটছে। যা নারায়ণগঞ্জ বিএনপি যেন ভুলেই গিয়েছিল।

এদিকে অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের হাতে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির দায়িত্ব তুলে দেয়ায় নেতাকর্মীরাও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন। তৈমূর আলম খন্দকারের প্রতি আস্থা প্রকাশ করছেন।

জানা যায়, গত ২০ জানুয়ারী রাজধানী ঢাকার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাথে ভিডিও কনফারেন্সে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির প্রথম মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার কার্যক্রম দুপুর ৩টা থেকে শুরু হয়ে সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত চলে। আর এই সভায় নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির ৪জন সদস্য বাদে বাকী সকলেই উপস্থিত ছিলেন। সেই সাথে প্রায় সকলেই বক্তব্য রাখার সুযোগ পেয়েছেন। সকলের বক্তব্যই ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান মনোযোগ সহকারে শুনেছেন এবং তারেক রহমানের বক্তব্যও জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির নেতারা খুব মনযোগ সহকারে শুনেছেন।

সভায় নেতাকর্মীদের বক্তব্যের বেশিরভাগ অংশই ছিল আহবায়ক অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদের প্রশংসা। বক্তব্য রাখতে গিয়ে সকলেই তৈমূর আলম খন্দকারের প্রতি আস্থা রেখে বলেছেন, তৈমূর আলম খন্দকার মাঠে আছেন বলেই আমরা হাজার হাজার লোক নামতে পারছি। তৈমূর আলম খন্দকার পুলিশের মার খেয়েও কোনোদিন মাঠ ছাড়ে নাই। আপনাকে (তারেক রহমান) ধন্যবাদ জানাচ্ছি তৈমূর আলম খন্দকারকে আবার আহবায়ক হিসেবে দায়িত্ব দেয়ার জন্য।

জানা যায়, গত ৩১ ডিসেম্বর রাতে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির ৪১ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটির ঘোষণা দিয়েছিলেন। আর এতে আহবায়ক করা হয় অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে এবং সদস্য সচিব করা হয় অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে। আর এই কমিটি ঘোষণা হওয়ার পর থেকেই নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে দিয়ে নেতাকর্মীদের সমাগম ঘটিয়ে চলছেন।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির এই আহবায়ক কমিটির ঘোষণার পর তাদের প্রথম কর্মসূচি ছিল গত ১১ জানুয়ারী প্রধান নির্বাচন কমিশনার সহ সকল কমিশনারের পদত্যাগের দাবীতে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন। এদিন সকালে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে এই মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। আর এই মানববন্ধনকে কেন্দ্র করে এদিন সকাল থেকেই জেলার বিভিন্ন উপজেলা থানা সহ বিভিন্ন এলাকা থেকে নেতাকর্মীরা খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে এসে জড়ো হতে থাকেন। এভাবে একের পর এক মিছিল আসতে আসতে মানববন্ধনটি বিএনপির নেতাকর্মীদের বিশাল সমাবেশে পরিণত হয়। সেই সাথে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা গত কয়েক বছরের রেকর্ড ভঙ্গ করে দিয়ে প্রেসক্লাবের গলি ছেড়ে রাজপথে এসে দলীয় কর্মসূচি পালন করেছিলেন।

একই সাথে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির দ্বিতীয় কর্মসূচি ছিল দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে করা মামলায় চার্জগঠন ও গ্রেফতারি পরোয়ানার প্রতিবাদে মানববন্ধন। ১৬ জানুয়ারী শনিবার সকালে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে এই মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

আর এই মানববন্ধনকে ঘিরে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে ছিল সরগরম উপস্থিতি। নারায়ণগঞ্জের প্রায় প্রত্যেক এলাকা থেকে একের পর এক খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে আসতে আসতে মানবববন্ধন বিশাল সমাবেশে পরিণত হয়। নেতাকর্মীদের উপস্থিতি দেখে মনে হয়নি যে তারা দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতার বাইরে রয়েছেন। আহবায়ক অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদের নেতৃত্বে যেন নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা বহু দিন পর প্রাণ ফিরে পেয়েছেন।

যে বিএনপি কোনো কর্মসূচি নিয়ে প্রেসক্লাবের গলি থেকে বের হতে পারতো না সেই বিএনপি রাজপথে এসে বিশাল মানববন্ধন করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহবায়ক অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব অধ্যাপক মামুন মাহমুদের পরিচালনায় আহবায়ক কমিটির প্রায় সকল সদস্যরাই উপস্থিত ছিলেন। একই সাথে নেতাকর্মীদের বিশাল অংশগ্রহণে পুলিশে কোনো বাধা ছাড়াই তাদের দলীয় কর্মসূচি পালন করছেন। যা গত কয়েকবছরে নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে দেখা মিলেনি। নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি প্রেসক্লাবের গলির মধ্যে সীমাবদ্ধ থেকে গেলেও এবার অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও অধ্যাপক মামুন মাহমুদের নেতৃত্বে রাজপথে নেমে এসেছেন।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও