আইভীকে কাফের বলা হেফাজতীরাই কাফের

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১২:৩০ পিএম, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২১ শনিবার

আইভীকে কাফের বলা হেফাজতীরাই কাফের

বাংলাদেশ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের সভাপতি ও ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের চেয়ারম্যান আল্লামা সৈয়দ বাহাদুর শাহ মোজাদ্দেদী আল আবেদী বলেছেন, বর্তমান সরকার একটা বড় মহৎ কাজ করেছেন। বাতিল, ওহাবী, খারেজি, রাফেজি, খারেজি, সালাফি, জামাতি, হেফাজতিরা যখন পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) এর বিরুদ্ধে কুৎসা রটনা শুরু করল, যখন ব্যাঙ্গাত্মকভাবে বিভিন্ন ওয়াজের মাধ্যমে বলা শুরু করল, তখনই এই সুন্নি সরকার, অলি ভক্ত, নবী ভক্ত সরকার অন্তত এই ভাল কাজ করেছে যে রাষ্ট্রীয়ভাবে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) গ্যাজেট হিসেবে প্রকাশ করেছে। এটা এখন থেকে জাতীয় দিবস। জাতীয় দিবসে যেমন বাংলাদেশের পতাকা উড়ানো হয় ঠিক তেমনি পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) এর দিনে সরকারি, বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন হবে। এটা পূর্ণাঙ্গ একটি ছুটির দিন।

১৯ ফেব্রুয়ারী শুক্রবার জুমার নামাজের সময় এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, নারায়ণগঞ্জ এর চাষাঢ়াতে কিছুদিন আগে হেফাজতিরা সুন্নিদের শুধু বেদয়াতি বেদয়াতি বলে গালি গালাজ করেছে। মাসদাইর গোরস্তানের মসজিদে দীর্ঘদিন যাবত ওহাবীদের আড্ডাখানা ছিল। কওমি মাদ্রাসা দিয়ে তারা সেখানে আড্ডাখানা বানাইছিল। মেয়র আইভী মহোদয় সেখানে সুন্দর একটি মসজিদ নির্মাণ করে সুন্নি ইমাম নিয়োগ দিয়েছেন। যারা মিলাদ-কিয়াম করে, যারা নবী পাকের নাম শোনার পরে চুম্বন দেয়। তাই এখন হেফাজতিদের গাত্রদাহ হয়েছে, শরীরের মধ্যে আগুন জ্বলা শুরু হয়েছে, আবোল তাবোল ও বলা শুরু করে দিয়েছে। তারা বলছে মেয়র আইভী কাফের ইত্যাদি ইত্যাদি। হাদিস শরীফ অনুসারে কেউ যদি কাফের না হয়, তাকে যদি কেউ কাফের বলে সে নিজেই কাফের হয়ে যায়। তাই মেয়র আইভীকে যারা কাফের বলে ফতোয়া দিয়েছে হেফাজতিরা নিজেরাই কাফের হয়ে গেছে। এগুলোর ফতোয়া এগুলোর উপরোই পড়েছে। নবী পাকের শানে যাদের শত শত বেয়েদবী রয়েছে এদের মুখে ফতোয়াবাজি করা মানায় না।

তিনি বলেন, হেফাজতিরা জাতির শত্রু, ইসলামের শত্রু, মানবতার শত্রু, নবী-অলির শত্রু, আল্লাহ রাসুলের শত্রু, শুধু তাই নয় এরা আল্লাহর ও শত্রু। এদের মুরুব্বীরা তাদের কিতাবে লিখে আল্লাহ নাকি মিথ্যা কথা বলতে পারে। নাউজুবিল্লাহ। একদিক থেকে ইমান তো এদের নাই দ্বিতীয়ত এদের মত বদকার আল্লাহর জমিনে দ্বিতীয় আছে কিনা সন্দেহ আছে।

তিনি আরো বলেন, বিভিন্ন জায়গায় কওমি মাদারা দিয়ে ছাত্রদের বলৎকার করা, কওমি মহিলা মাদ্রাসা করে নারীদের ধর্ষণ করা এদের কাজ। জঙ্গী বানানোর কারখানাই হল তাদের এই কওমি মাদ্রাসা। আমি সরকারকে আগেও বলেছি এদের মাদ্রাসার মধ্যে জোরালো ভাবে নজদারি রাখার জন্য, যত জঙ্গী সব এদের মাদ্রাসা থেকে তৈরী হয়। আল্লাহ এই সব বেইমানদের কাছ থেকে দেশ ও জাতির হেফাজত করুক। এদের ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জবাসীকে সতর্ক থাকতে অনুরোধ করব। এই ওহাবী জঙ্গীরা যেন মাথাচাড়া দিয়ে না উঠতে পারে। কোথায় বরিশাল থেকে লঞ্চে এসে এখানে যা তা কথা বলবে এটা নারায়ণগঞ্জের মানুষ মেনে নিতে পারে না। এদেরকে ঝাড়ু পিটা করে বিতাড়িত করতে হবে। এরা স্পষ্ট জঙ্গী। তাই আমি সকলকে বলব এদের প্রতি তীক্ষ্ম নজর রাখার জন্য। যখনই সুন্নিয়তের ডাক দেয়া হবে এদের বিরুদ্ধে শক্তিশালী প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও