ছাত্রলীগের সভাপতি ১৭ মামলার আসামী!

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১১:০৩ পিএম, ১৬ জুলাই ২০২১ শুক্রবার

ছাত্রলীগের সভাপতি ১৭ মামলার আসামী!

২০১৩ সাল থেকেই নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতির পরিচয় দিয়ে আসছিলেন মাহাবুবুর রহমান রবিন যাকে সবাই হোয়াইট রবিন হিসেবেই চিনেন। এ নিয়ে নেতাদের মধ্যে মতবিরোধও ছিল। কিন্তু সবশেষ এক মামলার কারণে তাকে সভাপতির পদ থেকে অব্যাহিত দেওয়া হয়েছে। ফলে এতদিন যে তিনি ছাত্ররীগের সভাপতি ছিলেন সেটাও প্রতীয়মান ও প্রমাণ হয়েছে। এরই মধ্যে কেন্দ্রীয় পরিষদও সোনারগাঁয়ের পৌর কমিটির সকল কার্যক্রম স্থগিত করেছেন।

অভিযোগ রয়েছে ৮ বছর ধরে পৌর ছাত্রলীগের সভাপতির পদে থাকলেও রবিনের বিরুদ্ধে রয়েছে বিস্তর অভিযোগ। নানা অভিযোগে আছে ১৭টি মামলা। ইতোমধ্যে কয়েকটি মামলায় তিনি কারাভোগও করেছেন। এত অপরাধ অভিযোগের পরে কিভাবে ছিল এ পদে। যদিও তার বিরুদ্ধে এর আগে বহু অভিযোগ থাকলেও কোন এক অদৃশ্য ইশারায় ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। অভিযোগ রয়েছে রবিন নিজেকে একজন প্রভাবশালী এমপির ছেলের অনুগামী ও বন্ধু পরিচয় দিত আর সে কারণেই একের পর এক অপকর্ম করে বেড়াতো রবিন।

২০১৫ সালের ২৯ জুলাই রাতে সোনারগাঁ মেঘনা শিল্প পিরোজপুর কাবিলগঞ্জ এলাকায় মাদক স্পট থেকে ফেন্সিডিল আনতে যায় মাহাবুবুর রহমান রবিন ওরফে হোয়াইট রবিন ও শুভ। হোয়াইট রবিন নিজেকে সোনারগাঁ পৌরসভা ছাত্রলীগের সভাপতি পরিচয় দিয়ে ও শুভ সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কোহিনূর ইসলাম রুমার ছেলে। ওই সময় মাদক ব্যবসায় নিয়ন্ত্রন নিয়ে মূলত উপজেলার পিরোজপুর ইউপির কাদিরগঞ্জ গ্রামের বিল্লাল হোসেন, বকুল, ইকবাল, নজরুল ও সাদেকের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে হোয়াইট রবিন ও শুভ। এক পর্যায়ে শুভ পালিয়ে আসলেও স্থানীয় লোকজন মিলে রবিনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। এর আগে হোয়াইট রবিনকে স্থানীয়রা গণধোলাই দেয়। এর আগে উভয় পক্ষের সন্ত্রাসীরা চাইনিজ কুড়াল, চাপাতি, রামদা, লাঠি দিয়ে পিটিয়ে ও কুপিয়ে কমপক্ষে ১০ জনকে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম করে। ঘটনায় আহত বিল্লাল হোসেন বাদী হয়ে সন্ত্রাসী রবিনসহ ১৪ জনের নামে একটি মামলা দায়ের করেন।

সূত্র জানায়, একাধিক মামলার আসামী সন্ত্রাসী রবিন সোনারগাঁও পৌরসভা ছাত্রলীগের সভাপতি পরিচয় দিয়ে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে বেড়ায়। সম্প্রতি ছাত্রলীগের সম্মেলন শেষে বাড়ি ফেরার পথে কাঁচপুর এলাকায় জেলা ছাত্রলীগের গাড়ি বহরে হামলা চালায় সন্ত্রাসী রবিন ও তার বাহিনী।

এর আগে কুমিল্লা থেকে মাদকের চালান আনতে গিয়ে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছিল রবিন। সেখানে তিন মাস কারাভোগ করেছিল। এছাড়াও একটি সন্ত্রাসী মামলায় গত বছর দেড় মাস নারায়ণগঞ্জ কারাগারে ছিল এ রবিন। তার বিরুদ্ধে ডজন খানেক চাঁদাবাজি সন্ত্রাসী ও মাদক মামলা রয়েছে।

সবশেষ সোনারগাঁ পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মাহবুবুর রহমান রবিন ওরফে হোয়াইট রবিনকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান আজিজ ও সেক্রেটারী আশরাফুল ইসলাম রাফেল সাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। ১১ জুলাই ওই বিজ্ঞপ্তিতে অব্যাহতির কারণ হিসেবে দলের শৃঙ্খলা ভঙের অভিযোগ আনা হয়।

রবিন ও সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার সাজুসহ ৭ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৪ জনের বিরুদ্ধে হত্যার হুমকি, চাঁদাবাজির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

১০ জুলাই এমরান হোসেন বাদি হয়ে সোনারগাঁ থানায় একটা লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। উপজেলার পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মাহবুবুর রহমান রবিনের বিরুদ্ধে সোনারগাঁ থানায় চাঁদাবাজিসহ প্রায় ১৭ টি মামলা রয়েছে। অভিযুক্ত অন্য আসামীদের বিরুদ্ধেও মাদকসহ একাধিক মামলা রয়েছে বলে পুলিশ সূত্র জানায়।

আভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, বালু ব্যবসায়ি এমরান হোসেনের নিকট থেকে সোনারগাঁ পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মাহবুবুর রহমান রবিন ও সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার সাজু, সুজন মিয়া, আলমগীর হোসেন, টিটু মিয়া, মোঃ শুভ ও নাদিম মিয়া কয়েক দিন যাবত তিন লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছে।

ব্যবসায়ি চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় শুক্রবার রাত সাড়ে ১০ টার দিকে পৌরসভার বালুয়া দিঘিরপাড় এলাকায় বালু ব্যবসায়ি এমরান হোসেনের ড্রেজারের বালু বাহি রানিং ৩২টি পাইপ ভাংচুর করে। এসময় ড্রেজারের স্টাফ মফিজুল ও শফিক ভাংচুরে বাধা দিলে তাদের কিল ঘুষি লাথিসহ এলোপাতাড়ি লাটি পেটা করে।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও