আইভী মিথ্যার মহারাণী, হকারদের হাত থেকে বাঁচিয়েছি : শাহ নিজাম

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১২:১৭ পিএম, ৭ অক্টোবর ২০২১ বৃহস্পতিবার

আইভী মিথ্যার মহারাণী, হকারদের হাত থেকে বাঁচিয়েছি : শাহ নিজাম

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম বলেছেন, নারায়ণগঞ্জে একজন মহিলা আছেন যাকে আমি নাম দিয়েছি মিথ্যার মহারাণী। তার নাম বলে তাকে সম্মানিত করতে চাইনা। উনি নাকি জনপ্রিয় নেত্রী। হকার ইস্যুতে যখন হকাররা যখন তাকে আক্রমন করলো তখন তাকে বাচাতে এগিয়ে এসেছি আমরা। বিভিন্ন এলাকাতে মাইকিং হয়েছিলো, কিন্তু তারা এগিয়ে আসেনি। যদি আমরা সেদিন হকারদের প্রতিহত না করতাম, আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীরা তার পাশে না দাঁড়াতাম, সেদিন হয়তোবা মেয়র আইভী বেঁচে থাকতেন না। সেই মামলায় আমাদের জড়ানো হলো।

বুধবার (৬ অক্টোবর) সন্ধ্যায় সিটি করপোরেশনের ১৮ নং ওয়ার্ডের শহীদ বাপ্পী স্বরনীতে আয়োজিত কর্মীসভায় তিনি এই মন্তব্য করেন।

তিনি আরও বলেন, আমাদের নেতা শামীম ওসমান হচ্ছে জিরাফ, জঙ্গলের জিরাফ। জঙ্গলে যখন ঝড় আসে তখন জিরাফই সবার আগে দেখতে পেয়ে বাকি সবাইকে সতর্ক করে দেয়। যখনই দেশে কোন ষড়যন্ত্র হয় তখন শামীম ওসমান আগে থেকে আঁচ পেয়ে সবাইকে সতর্ক করে দেন।

উল্ল্যেখ্য, ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারী হকার ইস্যুতে লঙ্কাকান্ডের দিন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীকে বাঁচানোর দাবী করেছেন শাহ নিজাম। তবে প্রশ্ন উঠেছে তবে কি আইভী তার দিকে গুলি ছুড়েছিলেন শাহ নিজাম।

জানা গেছে, ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারী বিকেলে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী এমপি শামীম ওসমান সমর্থক ও হকারদের সঙ্গে সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটে। এরপরপরেই মেয়র আইভীকে রাজধানীর ল্যাব এইড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

ঘটনার পরদিন গণমাধ্যমে অস্ত্র হাতে শামীম ওসমান সমর্থক ও সাবেক যুবলীগ নেতা নিয়াজুল ইসলামের ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। ঘটনার পরে মেয়র আইভী দাবি করেছেন, হামলাকারী নিয়াজুল নগর যুবলীগের নেতা ও শামীম ওসমানের সমর্থক। নিয়াজুল পিস্তল নিয়ে তাকে মারতে এসেছিল বলে তিনি দাবি করেছেন।

ঘটনার ২ দিন পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, নারায়ণগঞ্জে একটা দুঃখজনক ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষ কী কারণে হলো, কারা করল তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। অস্ত্রধারীদের ভিডিও ফুটেজ দেখে ধরার চেষ্টা করা যারা অস্ত্র দেখিয়েছে, যারা নিজের হাতে আইন তুলে নিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

সংঘর্ষের দিন আরো কয়েকজনের অস্ত্র সহ ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলেও অস্পস্টতার কারণে কয়েকজনের পরিচয় শনাক্ত করা যায়নি। তবে ২০ জানুয়ারী স্থানীয় কয়েকটি গণমাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম ও মহানগর কমিউনিটিং পুলিশের সাধারণ সম্পাদকের অস্ত্র হাতে থাকা ছবি প্রকাশিত হয়।

খোকন সাহার বক্তব্যের পর এবার সেই পিস্তল উঁচিয়ে গুলি করা শাহ নিজাম যখন বলেছেন, তারা হকারদের প্রতিহত না করলে মারা পরতেন আইভী। তাই প্রশ্ন উঠেছে, তবে কি মেয়র আইভীকে বাঁচাতেই হকারদের মাঝে দাঁড়িয়ে আইভীর অনুসারীদের দিকে গুলি ছুড়েছিলেন শাহ নিজাম?


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও