শ্রমিক লীগে বিভক্তি কাম্য না

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:৪২ পিএম, ১২ অক্টোবর ২০২১ মঙ্গলবার

শ্রমিক লীগে বিভক্তি কাম্য না

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, আমার বাবা আলী আহম্মদ চুনকা শ্রমিক লীগের একজন নেতা ছিলেন। তার শুরু হয়েছিল শ্রমিক সংগঠনের মাধ্যমে এবং তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত উনি আওয়ামী লীগ করে গিয়েছেন। আমি সে শ্রমিকেরই সন্তান। যার জন্যে আপনাদের ডাকে আমি এখানে এসেছি। আমি আমার বাবাকে সব সময় দেখেছি সাধারণ মানুষের সাথে, বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের সাথে এবং এই সাধারণ মানুষের পাশে থেকে শহরের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। কিন্তু আজকে আমরা দেখছি সবখানেই দ্বিধা-বিভক্তি করে ফেলছে। যেভাবে একটি শ্রমিক সংগঠনকে দ্বিধা-বিভক্তি করলো তা আমাদের মোটেও কাম্য ছিল না। জেলা শ্রমিক লীগ এবং মহানগর শ্রমিক লীগের সবসময় নিরপেক্ষভাবে সম্মেলনগুলো করা হতো। কিন্তু এবার জানতে পারলাম একটি পক্ষ কেন্দ্র থেকে যে বিভক্তির সূচনা করলেন তা না করে সঠিকভাবে করা যেতো। আমি আপনাদের কাছে অনুরোধ করছি আপনারা আপনাদের কার্যক্রম চালিয়ে যান। কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ রাখবেন যেন আপনাদের অব্যশই কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করে। আপনারা যেমন শেখ হাসিনার কর্মী ঠিক আমিও একজন শেখ হাসিনার কর্মী। এখানে নেতা বলে কেউ নেই। নেতা আমাদের একজনই তিনি হলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তার পরে জননেত্রী শেখ হাসিনা। সব মিলিয়ে একটি কথা আপনাদের উদ্দেশ্যে আমি বলতে চাচ্ছি আপনারা শুধু ধৈর্য ধরবেন। আপনারা যেভাবে রাজপথে ছিলেন ঠিক সেভাবেই রাজপথে থাকবেন। যারা দলের দুঃসময়ে সার্বিকভাবে পাশে থেকে হাল ধরে ঠিক ঐসময়ে কিছু সুবিধাবাদী লোক এসে সে হালধরা লোকদের বঞ্চিত করে। সুতরাং ঘাবড়ানোর কিছু নাই ভয় পাওয়ার কিছু নাই। আপনারাও জয় বাংলা বলবেন, শেখ মুজিব বলবেন, শেখ হাসিনা বলবেন তারাও বলবে। কিন্তু রাজপথে যে সৈনিকরা টিকে থাকতে পারে তারাই কিন্তু শেষ পর্যন্ত জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে মূল্যায়িত হবেন।’

উল্লেখ্য গত ১ অক্টোবর আব্দুল কাদিরকে আহবায়ক ও কামাল হোসেনকে সদস্য সচিব করে নারায়ণগঞ্জ জেলা শ্রমিকলীগের ২৭ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়। তবে ৩ অক্টোবর বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন শ্রমিকলীগের বিবদমান দুই গ্রুপের নেতৃবৃন্দ যাদেরকে বাদ দিয়েই গত ১ অক্টোবর শ্রমিকলীগের নতুন আহবায়ক কমিটির অনুমোদন দিয়েছেন কেন্দ্রীয় কমিটির সেক্রেটারী। নারায়ণগঞ্জ জেলার শ্রমিকলীগের নবঘোষিত কমিটিকে পকেট কমিটি দাবি করে এই কমিটিকে অবৈধ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন পদবঞ্চিত জেলা শ্রমিকলীগের নেতারা। রাতের আধাঁরে অর্থের লেনদেনের মাধ্যমে অগঠনতান্ত্রিকভাবে এই পকেট কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে যা অবৈধ বলে দাবি করেছেন তারা। এছাড়া দীর্ঘ ২০ বছর পূর্বে শ্রমিকলীগ থেকে বহিস্কৃত নেতা যিনি এই দীর্ঘ ২০ বছরেও শ্রমিকলীগের কোন কর্মকান্ডে ছিলেন না তাকে আহবায়ক হিসেবে ঘোষণা দেয়ার পাশাপাশি ত্যাগীদের বাদ দিয়ে হাইব্রীড নেতাদেরকে কমিটিতে স্থান দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছেন নেতৃবৃন্দ। এছাড়া শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা ৫ জন নেতা স্থান পেলেও নবঘোষিত আহবায়ক কমিটির বিষয়ে তারা কিছুই জানেনা বলে জানান নেতৃবৃন্দ।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও