সায়েম স্বেচ্ছাসেবক দল করতো

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১১:১২ পিএম, ১৬ অক্টোবর ২০২১ শনিবার

সায়েম স্বেচ্ছাসেবক দল করতো

নারায়ণগঞ্জ সদর থানার আলীরটেক ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সায়েম আহমেদ স্বেচ্ছাসেবক দলের রজানীতির সাথে জড়িত ছিল। দলীয় মিটিং মিছিলে নিয়মিত উপস্থিতি ছিল সায়েমের। নারায়ণগঞ্জ স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীদের সূত্রে এরুপ তথ্য পাওয়া গেছে। তবে বিএনপির ছাত্রদল থেকে বিএনপি বিভিন্ন সংগঠনের পদ পদবী হাসিলের নানা চেষ্টা করে গেছে। যেকারণে বিএনপির বিভিন্ন সংগঠনের অনুষ্ঠানে সুযোগ পেলে অংশগ্রহণ করেছে। তবে টানা তিন মেয়াদে বিএনপি দলীয় ক্ষমতার বাইরে থাকায় ভোল পাল্টে আওয়ামীলীগে যোগদান করেন বিতর্কিত নেতা সায়েম। এখানেই শেষ নয় তার বিরুদ্ধে বিতর্কিত কর্মকা-ের অন্ত নেই। সরকার বিরোধী কর্মকান্ড থেকে শুরু করে নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডের মধ্য দিয়ে আলোচনা সমালোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে উঠে এসেছে।

সম্প্রতি ভোল পাল্টে আওয়ামীলীগের যোগদানের পরে আলীরটেক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশা করেছিলেন সায়েম। শেষতক সেই স্বপ্ন পূরণ হয়নি। আরেক বিতর্কিত নেতা ও বর্তমান চেয়ারম্যান মতিউর রহমান নৌকার মনোনয়ন পেয়ে যান। এতে করে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন সায়েম।

এদিকে সায়েম এক সময়ে বিএনপির রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিল যার প্রমাণ হিসেবে একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। বিএনপির ছাত্র সংগঠনের একটি অনুষ্ঠানে তাকে দেখা গেছে। তবে ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিল কিনা সেই তথ্য জানতে বিএনপির নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ করা হয়।

এ ব্যাপারে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক আকরাম প্রধান সময়ের নারায়ণগঞ্জকে বলেন, এক সময়ে সায়েম আমার মিটিং মিছিলে আসতো। ২০১০, ১২ ও ১৪ সালের দিকেও সায়েম আসতো। ওই সময়ে আমি জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক পদে ছিলাম। সায়েম আমার স্বেচ্ছাসেবক দলের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ছেলে পেলে নিয়ে আসতো।

বিএনপি দলীয় সূত্র বলছে, সায়েম বিএনপি বিভিন্ন সংগঠনের মিটিং মিছিলে অংশগ্রহণ করতো। পদ পদবী হাসিলের জন্য নানা সময়ে চেষ্টাও করেছে। যখন যে সংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলতে পেরেছে তখন সেই সংগঠনের অনুষ্ঠানে যোগদান করতো। কারণ পদ পদবী হাসিল করা ছিল তার মূল লক্ষ্য।

জানা যায়, আলীরটেক ইউপি নির্বাচনের জন্য আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী রয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান মতিউর রহমান, সাবেক চেয়ারম্যান জাকির হোসেন ও সায়েম আহমেদ। কিন্তু এদের কেউই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত নেই। চেয়ারম্যান হওয়ার আশায় তারা আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন। আর এ বিষয়টি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে আব্দুল হাই মেনে নিতে পারেননি। তাই তিনি স্বাক্ষরও করেননি। কিন্তু তার স্বাক্ষর ছাড়াই এসকল নাম কেন্দ্রে জমা পড়েছে। যদিও শেষে মতিউর রহমান মতি পেয়েছেন নৌকার মনোনয়ন। তবে পরে তিনি নির্বাচন করবেন না অনীহা জানালে জাকির হোসেনকে মনোনয়ন দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই বলেন, তাদের নামের তালিকায় আমি স্বাক্ষর করি নাই। কারণ তারা প্রকৃত আওয়ামী লীগার না।

জানাগেছে, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার আলীরটেক ইউনিয়নে এবার চেয়ারম্যান হতে চাওয়া সেই সায়েম আহমেদের বিরুদ্ধে সদর মডেল থানা ও মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় চাঁদাবাজি, মারামারি, হত্যাচেষ্টা, হত্যার উদ্দেশ্যে গুম ইত্যাদি অভিযোগে বেশি কিছু মামলা আছে এবং একটি মামলায় তিনি জেলও খেটেছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৫ সালের ৩ মে গণভবন থেকে উদ্বোধন করেন কুড়েরপাড়ে ৫২ দশমিক ৫ মেগাওয়াটের সিনহা পিপলস এনার্জি লিমিটেডের বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের। ১০ মে সিনহা পিপলস এনার্জির সহকারী ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) শাহাবুদ্দিন আহমেদ নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় জিডিতে বলেন, বিদ্যুকেন্দ্রের নিজস্ব জেটির সামনে সায়েম, কাশেম, শাহ আলম, মো. আলী ৭ মে খালি বার্জ ও লাইটারেজ জাহাজ নোঙর করে রাখেন যাতে বিদ্যুৎকেন্দ্রের জাহাজ জেটিতে ভিড়তে না পারে। সন্ত্রাসীরা বিদ্যুৎকেন্দ্রে জ্বালানি তেল সরবরাহ ও কেন্দ্রে কর্মরত ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। এতে উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে।

দৈনিক কালের কণ্ঠের এক সংবাদ মতে আলীরটেক ইউনিয়নের কুড়েরপাড় এলাকার সায়েম আহমেদকে এক যুগ আগেও লোকজন চিনত নুরু মিয়া নামে। বিদ্যালয়েও এই নাম ছিল তাঁর। তবে শহরের বাবুরাইল এলাকার প্রভাবশালী পরিবারে বিয়ের পর নাম পাল্টে বনে যান সায়েম আহমেদ।

নারায়ণগঞ্জ সদর থানা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির নেতা সওদাগর খান বলেন, সায়েমের বংশ অনেক বড় বংশ। তাদের বংশের বাবা চাচারা আওয়ামীলীগ করতো। ওই সময়ে আমি ছাত্রলীগের রাজনীতি করতাম। ওই সময়ে তাদের পরিবারের লোকজন ছাড়া গুটি কয়েক লোকজন আওয়ামীলীগের রাজনীতি করতো না। ৯৬ সালে শামীম ওসমান এমপি হওয়ার পরে লোকজন আওয়ামীলীগের আগ্রহ দেখাতে শুরু করে। এর আগে আলীরটেকে আওয়ামীলীগের তেমন কোন নেতা ছিলনা।

সায়েমের বিএনপির রাজনীতি সম্পর্কে বলেন, সায়েম বিএনপি কোন সংগঠনের সদস্য কিনা তা নিশ্চিত নই। তবে একটা ছবি দেখেছি। সেটা ব্যবসার খাতিরে বিএনপির আমলে একটা অনুষ্ঠানে সায়েম উপস্থিত ছিল। সায়েমও আমাকে ছবির ব্যাপারে এ জবাব দিয়েছে।


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও