আর কবে খুলবে তল্লার সেই মসজিদ

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:২২ পিএম, ২৩ জানুয়ারি ২০২১ শনিবার

আর কবে খুলবে তল্লার সেই মসজিদ

দীর্ঘ প্রায় পাঁচ মাসেরও বেশি সময় ধরে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা বাইতুস সালাত জামে মসজিদে জুমআর নামাজ আদায় হচ্ছে না। এখন পর্যন্ত মুসুল্লিরা জানেও না কবে চালু হবে নামাজ। জেলা প্রশাসনের কাছে দফায় দফায় আবেদন করেও মসজিদ এখনও চাুল করা যায়নি। প্রতি জুমআতেই মুসুল্লিরা মসজিদের সামনে এসে লম্বা নিঃশ্বাস ছেড়ে ফিরে যান এবং অন্য মসজিদে গিয়ে জুমআর নামাজ আদায় করে থাকেন। কিন্তু অনেক বছর ধরে আদায় করে আসা বাইতুস সালাত জামে মসজিদে আর নামাজ পড়া হয়ে উঠে না।

সবশেষ ২২ জানুয়ারী শুক্রবার জুমআর নামাজও সেই মসজিদে আদায় হয়নি। অনেকেই মসজিদের সামনে এসে তারা দেখে হাতাশা নিয়ে ফিরে গেছেন। তবে তাদের চাওয়া যেন অতি শীঘ্রই মসজিদটি যেন নামাজ আদায়ের জন্য খুলে দেয়া হয়।

এদিকে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের কাছে এলাকাবাসী পক্ষ থেকে বারবার আবদন করা হচ্ছে মসজিদটি খুলে দেয়ার জন্য। সবশেষ জেলা প্রশাসক মোঃ জসিম উদ্দিনের বিদায়ের প্রাক্কালে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে আবেদন করা হয়েছিল মসজিদটি খুলে দেয়ার জন্য। এর আগে গত ২০ সেপ্টেম্বর মসজিদটি খুলে দেয়ার জন্য আবেদন করা হয়েছিল। কিন্তু এখন পর্যন্ত মসজিদ খুরে দেয়ার ব্যাপারে কোনো প্রদক্ষেপ পরিলক্ষিত হচ্ছে না। তবে এলাকাবীর জোর দাবী যেন অতি শীঘ্রই মসজিদটি খুলে দেয়া হয়।

জানা যায়, গত ৪ সেপ্টেম্বর ফতুল্লার পশ্চিমতল্লা এলাকার বাইতুস সালাত জামে মসজিদে বিকট শব্দে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। আর এই ঘটনায় দগ্ধ অবস্থায় ৩৭ জনকে জাতীয় শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে একে একে ৩৪ জন মারা গেছেন। আর এই ঘটনার পর থেকেই মসজিদে সকল নামাজ আদায় বন্ধ রয়েছে। সেই সাথে জুমআর নামাজও আদায় করা হচ্ছে না।

অথচ বিস্ফোরণের আগের জুমআর নামাজও এই মসজিদে এলাকার সকল পর্যায়ের মুসুল্লিদের উপস্থিতিতে নামাজ আদায় হয়েছে। কিন্তু এক মাসধরে জুমআর নামাজ সেই মসজিদে গিয়ে আদায় করা সম্ভব হচ্ছে না। এলাকার কেউ কল্পনাও করতে পারেনি এমনই এক ঘটনা ঘটবে যা তাদেরকে নামাজ আদায় করা থেকে বিরত রাখবে।

মামুন নামে তল্লা এলাকার এক বাসিন্দা জানান, পাঁচ মাসেরও বেশি সময় ধরে জুমআর নামাজ এই মসজিদে এসে আদায় করতে পারছি না। জুমআর দিনে পুরো মসজিদ ভরপুর থাকতো মুসুল্লিদের উপস্থিতিতে। কখনও কল্পনাও করতে পারিনি এভাবে একের পর এক জুমআর নামাজ এই মসজিদে এসে পড়তে পারবো না। কখনও ভাবতে পারিনি এভাবে দিনের পর দিন মাসের পর মাস মসজিদটি জনমানবশূণ্য থেকে যাবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা কর্তৃপক্ষের কাছে ইতোমধ্যে কয়েকবার আবেদন করছি মসজিদটি খুলে দেয়ার জন্য। আমরা জানি তদন্তের কাজ শেষ হয়ে গেছে। এখন ইচ্ছা করলে মসজিদটি খুলে দেয়া যায়। কৃর্তৃপক্ষের কাছে আমাদের অনুরোধ থাকবে যেন অতি দ্রুত সকল সমস্যার সমাধান করে মসজিদ যেন আবার চালু করা হয়। কারণ মসজিদ আমাদের প্রাণের জায়গা।

সূত্র বলছে, ইসলাম ধর্মালম্বীদের মত অনুসারে সাধারণ যে সকল মসজিদ জামে মসজিদ হিসেবে নামকরণ করা হয় সে সকল মসজিদ কখনও নামাজের সময় খালি থাকে না। প্রত্যেক ওয়াক্তেই জামাতের সাথে নামাজ আদায় করা হয়ে থাকে। কোন সময়ই জামায়াত ছাড়া নামাজ আদায় করা হয় না। সেই সাথে প্রতি সপ্তাহের শুক্রবার জুমআর নামাজ এলাকার সকল পর্যায়ের মুসুল্লিদের অংশগ্রহণে আদায় হয়ে থাকে।

কিন্তু বিস্ফোরণের ঘটনায় এখনও নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা বাইতুস সালাত জামে মসজিদ জনমানবহীন অবস্থায় রয়ে যাচ্ছে। আগে যে মসজিদে নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামায়াতের সাথে আদায় হতো বিশেষ করে জুমআর নামাজ এলাকার সকল পর্যায়ের মুসুল্লিদের অংশগ্রহণে আদায় হতো এবার সেই মসজিদ যেন জনমানবহীন এক ভয়াল জায়গা হিসেবে পরিণত হয়েছে। ইচ্ছা থাকলেও আপাতত সেই মসজিদে প্রবেশ করা যাচ্ছে না। সেই সাথে নামাজও আদায় করা যাচ্ছে না।


বিভাগ : ধর্ম


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও