বেপরোয়া বন্ধন বাস

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৪৪ পিএম, ২১ আগস্ট ২০২০ শুক্রবার

বেপরোয়া বন্ধন বাস

নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী বাসের বেপরোয়া চালানো নিয়ে একের পর অভিযোগ করে যাচ্ছেন যাত্রীরা। দ্রুত গন্তব্যে পৌছানোর নামে অসুস্থ প্রতিযোগিতা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন যাত্রীরা। আর এসব বাসের বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন যাত্রীরা।

২১ আগস্ট শুক্রবার রাতে নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী বন্ধন পরিবহনের ঢাকা মেট্রো-ব ১৪ ৫২৫৪ একটি বাস প্রাইভেটকারকে পেছন থেকে ধাক্কা দিয়ে ধুমড়ে মুচড়ে ফেলে। তবে অল্পের জন্য রক্ষা পায় প্রাইভেটকারের যাত্রীরা।

জিতু আহসান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের নারায়ণগঞ্জস্থানগ্রুপের মাধ্যমে জানান, ‘আজকে বন্ধন বাস ফ্লাইওভারের ওপরে দুর্ঘটনা ঘটায়। ঝুঁকিপূর্ণ গাড়ি চালানো বন্ধ করা হোক। এ বিষয়ে বন্ধন পরিবহন কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রত্যক্ষদর্শী বন্ধন পরিবহনের যাত্রী নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘আজকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ফ্লাইওভারের উপরে ওই ঘটনা ঘটে। নারায়ণগঞ্জ থেকে বন্ধনবাসটি ঢাকায় যাচ্ছিল। এর সামনে ছিল তিনটি প্রাইভেটকার ও একটি মোটারসাইকেল। ফ্লাইওভারে উঠে কিছু দূর যেতেই বৃষ্টিতে স্লিপ করে মোটরসাইকেলটি পড়ে যায়। সেজন্য প্রাইভেটকারটি পাশ কাটিয়ে যাচ্ছিল। ওইসময় পেছন থেকে বন্ধন বাসটি গিয়ে তিনটি প্রাইভেটকারকে ধাক্কা দেয়। এতে প্রাইভেটকারের একজন যাত্রী আহত হয়। তবে অন্যরা তেমন কোন গুরুতর আহত হয়নি। আর ঘটনার পরপরই বন্ধন বাসের চালক পালিয়ে যায়।’

এর আগেও উৎসব পরিবহনের বেপরোয়া গাড়ি চালানো নিয়ে এক নারী যাত্রীর সঙ্গে অশুভ আচরণের অভিযোগ করেন ফেসবুকের নারায়ণগঞ্জস্থানগ্রুপে। ঢাকা যাওয়া কিংবা আসার ক্ষেত্রে দ্রুত গন্তব্যে পৌছে দেওয়ার নামে বাস চলকেরা অন্য বাসের সঙ্গে অসুস্থ প্রতিযোগিতা শুরু করেন। আর এসব নিয়ে যখন যাত্রীরা চালক ও হেলপারদের বলেন তখন উল্টোর যাত্রীদের সঙ্গে চালক ও হেলপার খারাপ আচরণ করেন।

ঢাকায় নিয়মিত যাওয়া আশা করে হাফিজুল ইসলাম। তিনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘ঢাকা নারায়ণগঞ্জগামী পরিবহনের সংখ্যা তুলনামূলক বেড়েছে। যাত্রী কম হলেও অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে লাভবান হওয়ায় বাসের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। আর প্রত্যেক পরিবহন তাদের ব্যবসা ধরে রাখতে দ্রুত গন্তব্যে যাত্রীকে পৌঁছে দেওয়ার আশ্বাস দেন। আর দ্রুত পৌঁছে দেওয়ার নামে বেপরোয়া গাড়ি চালায়। তাছাড়া অন্য পরিবহনের চেয়ে বেশি যাত্রী নেওয়া ও বেশি ট্রিপ দেওয়ার জন্যও অন্য গাড়ির সঙ্গে বা একই পরিবহনের বাসের সঙ্গে অসুস্থ প্রতিযোগিতা শুরু করেন চালকেরা। যার জন্য প্রতিদিনই ছোট বড় দুর্ঘটনা ঘটে চলেছে। কখনো প্রাণহানি হচ্ছে অন্যথায় গুরুতর আহত হচ্ছে। অন্যথায় মানুষের সম্পদের ক্ষতিহচ্ছে।’

তিনি বলেন, এ বিষয়ে এখনই প্রশাসনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত। নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী প্রতিটি পরিবহনের চালকদের লাইসেন্স আছে কিনা তদারকি করা প্রয়োজন। এছাড়াও তাদের এ অসুস্থ প্রতিযোগিতা বন্ধে সচেতনতা মূলক প্রশিক্ষণ দেওয়া উচিত। আরা যারা আইন মানবে না তাদের কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক। অন্যথায় একদিন বড় কোন দুর্ঘটনা ঘটিয়ে ফেলবে।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও