আইনজীবী সমিতিতে ছাত্রলীগের কালো থাবা : মোস্তফা করিম

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৩৪ পিএম, ৮ অক্টোবর ২০২০ বৃহস্পতিবার

আইনজীবী সমিতিতে ছাত্রলীগের কালো থাবা : মোস্তফা করিম

সাম্প্রতিক সময়ে ওকালতনামা, জামিন নামা ও কোর্ট ফি জালিয়াতি করার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাইসুল আহমেদ রবিনের গ্রেফতারের ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়া জুড়ে বইছে নানা আলাপ আলোচনা। আইনজীবীদের কেউ কেউ বলছেন জেলা আইনজীবী সমিতিতে অনুপ্রবেশ ঘটেছে। যার কারণে নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির মান সম্মান ক্ষুণ হচ্ছে।

আবার কেউ কেউ নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ বর্তমান কমিটির যোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন। তাদের কর্তৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন।

এরই মধ্যে সিনিয়র সাংবাদিক নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও আইনজীবী মোস্তফা করিম তাঁর ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্টে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। যা নিয়ে নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় নানা আলাপ আলোচনা চলমান রয়েছে।

ওই স্ট্যাটাসে তিনি উল্লেখ করেন, ‘‘তিল তিল করে গড়ে উঠা নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির তহবিল আর হাজারেরও বেশী সদস্যের বার্ষিক চাঁদা প্রাপ্তি এসবকিছু মিলিয়ে সাধারণ আইনজীবীরা স্বপ্ন দেখেছিল আধুনিক ডিজিটাল বার ভবনের। বারের তহবিলের একটি বড় অংশই আসে ওকালতনামা আর জামিননামা বিক্রির টাকা থেকে। বহুতল ডিজিটাল বার ভবনেরও এখন দ্বিতীয় তলা নির্মানকাজ সমাপ্তির পথে।’’

‘‘এমন সময় খবর এল আদালত পাড়ায় সাইনবোর্ড লাগিয়ে স্ট্যাম্প ভেন্ডারের নামে জাল ওকালতনামা ও জামিননামা বিক্রি করে দুর্নীতির মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের কতিপয় নেতা। ফলাফল আইনজীবী সমিতির নেতাদের মাধ্যমে হাতে নাতে গ্রেফতার যার আইনি প্রক্রিয়া চলমান।’’

‘‘সাধারণ আইনজীবীরা মনে করেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতিতে ছাত্রলীগের অনুপ্রবেশ ঘটে মূলত ২০১৭ সন থেকে। সে থেকেই বার সমিতির নিয়ন্ত্রণ চলে যায় ছাত্রলীগের হাতে। অনেকে মনে করেন ডিজিটাল বার ভবনের ইট পাথর রড সিমেন্ট থেকে শুরু করে সকল সামগ্রী সরবরাহ করা হয়ে থাকে ছাত্রলীগের ইশারায়।’’

‘‘সাধারণ আইনজীবীগন ছাত্রলীগের কালো থাবা থেকে বারকে মুক্ত করে এর নেতৃত্ব অভিজ্ঞ ও বিজ্ঞ সাধারণ আইনজীবীদের হাতে ন্যস্ত করতে স্থানীয় সাংসদদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।’’

প্রসঙ্গত, গত ৫ অক্টোবর বিকেলে আদালতপাড়া এলাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির ওকালতনামা, জামিন নামা ও কোর্ট ফি জালিয়াতি করার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাইসুল ইসলাম রবিনকে গেফতার করা হয়। আর এই গ্রেফতারের পর থেকেই নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় সাধারণ আইনজীবীদের মধ্যে চলছে নানা আলোচনা সমালোচনা।

সে সময় নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান জানিয়েছিলেন, ওকালতনামা, জামিন নামা ও কোর্ট ফি জালিয়াতি করার অভিযোগে তাকে আটক করা হয়েছে। সে নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় নিজেদের তৈরিকৃত ওকালতনামা, জামিন নামা ও কোর্ট ফি বিক্রি করতো।

এই গ্রেফতারের ঘটনায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে অশ্রাব্য গালিগালাজ করেছেন বলেও সাধারণ আইনজীবীরা জানিয়েছেন। সেই সাথে তারা কিভাবে কার ক্ষমতায় নির্বাচিত হয়েছেন এবং আগামীতে কিভাবে নির্বাচিত হন সেটা দেখে নিবেন বলে হুমকি প্রদান করেছেন বলে জানা গেছে।



নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও