মাঠ ছেড়ে দেওয়া ফুটবলার নিপুর পরিবারের পাশে লিপি ওসমান

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৭:৩০ পিএম, ২১ আগস্ট ২০২০ শুক্রবার

মাঠ ছেড়ে দেওয়া ফুটবলার নিপুর পরিবারের পাশে লিপি ওসমান

নারায়ণগঞ্জের অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘নিউজ নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডট নিউজে’ এ প্রতিভাবান ক্ষুদে ফুটবলার নিপুর পরিবারের আর্থিক অনটনের কারণে হোসিয়ারীতে হেলপারির কাজ করার বিষয় নিয়ে ‘স্পেনের মাদ্রিদে যাওয়ার সুযোগ পাওয়া ফুটবলার নিপু এখন হোসিয়ারী শ্রমিক’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর নিপুর পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন নারায়ণগঞ্জ মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান ও নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমানের সহধর্মিনী লিপি ওসমান।

করোনার কারণে নিপুর পরিবারের আটকে যাওয়া ৭ মাসের বাড়ি ভাড়া পরিশোধ করেছেন তিনি। এছাড়া নিপু যেন আবারো মাঠে ফিরতে পারে এবং পড়ালেখা চালিয়ে যেতে পারে সেই উদ্যোগ তিনি গ্রহণ করেছেন।

২১ আগস্ট শুক্রবার বিকেলে লিপি ওসমানের পক্ষ থেকে ফতুল্লার পূর্ব ইসদাইরে অবস্থিত নিপুর বাড়িতে গিয়ে নিপুর বাবা সেলিম হোসেন ও ফুটবলার জাহিদ হাসান নিপুর হাতে নগদ ৩০ হাজার টাকার নগদ অর্থ সহায়তা প্রদাণ করেছেন জয় বাংলা ক্লাবের সভাপতি ওয়াদ্রিব আহমেদ অন্তর। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন নিপুর ফুটবল কোচ খলিলুর রহমান দোলন।

ওই সময়ে লিপি ওসমান মুঠোফোনে নিপু, নিপুর বাবা এবং কোচ খলিলুর রহমান দোলনের সঙ্গে কথা বলেন।

লিপি ওসমান নিপুর বাবাকে বলেন, ‘আপনার বাড়ি ভাড়ার জন্য টাকা দিয়েছি সেই টাকাটা রাখেন। আর ছেলেটা যেহেতু ভালো ফুটবল খেলে ওকে খেলতে পাঠান। ওকে স্কুলে পাঠান। আর ও যেহেতু ফুটবল ভালো পারে ফুটবল খেলায় ওর ভবিষ্যৎ আছে তাই ওকে ফুটবল খেলতে দেন।’

নিপুকে তিনি বলেন, ‘তোমার পড়ালেখা চালিয়ে যাও আর ফুটবল প্র্যাক্টিস চালিয়ে যাও। তোমার ইন্টারভিউতে আমি শুনেছি যে তোমার ঘর ভাড়ার জন্য তুমি কাজ করো। আপাতত ৭ মাসের ভাড়া আমি দিয়ে দিয়েছি। তাই ভালো করে মন দিয়ে তুমি পড়াখেলা করো আর খেলা চালিয়ে যাও। এই দুইটিতেই তোমার ভবিষ্যৎ হয়ে যাবে। আমি তোমার জন্য দোয়া করি।’

এসময় কোচ খলিলুর রহমান দোলনকে লিপি ওসমান বলেন, ‘ছেলেটি নাকি ভালো খেলে। ওর যেহেতু খেলাটা প্যাশন তাই ও খেলুক। আর ওর পড়ালেখাটাও চালিয়ে যেতে বলো। তুমি ওর দিকে একটু খেয়াল রেখো।’

পুরাতন সংবাদটি : স্পেনে যাওয়ার সুযোগ পাওয়া ফুটবলার নিপু এখন হোসিয়ারি শ্রমিক
জাহিদ হাসান নিপু। বয়স সবে ১৩ বছর। দেহের গঠন ছিপছিপে হলেও শরীরে জোসের কমতি নেই। ফুটবল নিয়ে মাঠের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত পর্যন্ত ঘণ্টার পর ঘণ্টা দৌঁড়ালেও ক্লান্তি তাঁকে ছুঁতে পারে না। স্বপ্ন ছিল একদিন বড় ফুটবলার হবে। ফুটবলে নিপুর পায়ের জাদু দেখে মুগ্ধ হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ ফুটবলের ফাইনাল উপলক্ষ্যে গ্যাজপ্রেমের পৃষ্ঠপোষকতায় স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে অনুষ্ঠিত চার দিনব্যাপী ক্ষুদে ফুটবলারদের উৎসবের যোগ দেওয়ার জন্য নিপুকে বেছে নিয়েছিল এক বিদেশী কোচ। কিন্তু প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস ওলটপালট করে দিয়েছে নিপুর স্বপ্ন। স্পেনের মাদ্রিদে যাওয়ার সুযোগ পাওয়া এই ক্ষুদে ফুটবলার এখন হোশিয়ারিতে হেলপারের কাজ করে।

জাহিদ হাসান নিপু ইসদাইর এলাকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সেলিম হোসেন ও গার্মেন্ট ঝুট বাছাইয়ের শ্রমিক আসমা বেগমের ছেলে। চার ভাই ও এক বোনের মধ্যে নিপু তৃতীয়। সে নারায়ণগঞ্জ ফুটবল একাডেমি থেকে ফুটবল খেলার প্রশিক্ষণ নিয়ে আসছিল। কিন্তু করোনার কারণে আর্থিক অনটনে পড়েছে তাঁর পরিবার। বাধ্য হয়ে মাঠ ছেড়ে কাজে যোগ দিয়েছে নিপু। মহল­ার একটি হোসিয়ারিতে ৫ হাজার টাকা বেতনে হেলপারির কাজ করছে সে।

এর আগে গত বছরের ২৮ মে চ্যাম্পিয়নস লিগ ফুটবলের ফাইনাল উপলক্ষ্যে গ্যাজপ্রেমের পৃষ্ঠপোষকতায় মাদ্রিদে অনুষ্ঠিত চার দিনব্যাপী ক্ষুদে ফুটবলারদের উৎসবে যোগ দেওয়ার আমন্ত্রণ পেয়েছিল সে। ফিফার সদস্যভুক্ত ২১০টি দেশের অনুর্ধ্ব-১২ ফুটবলারা সেই উৎসবে অংশগ্রহণ করেছিল। বাংলাদেশ থেকে তিনজন সুযোগ পেয়েছিল। যাদের একজন ছিল নিপু। যদিও শেষ সময়ে ভিসা জটিলতার কারণে বাংলাদেশ থেকে কোনো ক্ষুদে ফুটবলার সেই উৎসবে অংশগ্রহণ করতে পারেনি।

নিউজ নারায়ণগঞ্জকে নিপু বলেন, ‘আরো ৩ থেকে ৪ মাস আগে বাসার পাশে একটা হোসিয়ারি আছে সেখানে কাজ করি। আব্বু-আম্মুর কাজ নাই। ঘর ভাড়া বাইজা গেছে তাই কাজ করি। ফুটবল খেলতাম কিন্তু এখন তো বাসায় খাওন নাই। তাই কাজে লাইগা গেছি।’

নিপু আরো জানায়, ‘লকডাউনের মধ্যে সবার কাজ গেলোগা। টাকা পয়সা নাই। ঘর ভাড়ার চাপ পরলো এর জন্য কাজে লাগলাম। হোশিয়ারিতে কাটিংয়ে হেলপারির কাজ করি। মাসে ৫ হাজার টাকা পাই। খেলতে তো ভালো লাগতো কিন্তু পেটের দায়ে এখন কাজ করতে হইতাছে। কোচ অনেকবার বলছে কাজ ছাইরা খেলতে আয়। কিন্তু কেমনে খেলতে যামু বাসায় অনেক টাকা পয়সা লাগবো। আবার কাজ ছাইড়া খেলাধুলায় যাইতে পারুম না।’

নিপুর বাবা সেলিম হোসেন নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, ‘শহরে আইছি কাজ করতে। পোলায় খেলাধুলা করতো। কিন্তু করোনার কারণে লকডাউনের মধ্যে আমরা অর্থ সংকটে পইরা গেছি। বাড়ি ভাড়া আটকাইছে, সংসারের খরচ বাড়ছে, সব কিছুর দাম বেশি। কর্ম নাই। শহরে থাকতে হইলে তো ঘর ভাড়া দিতে হইবো, খাইতে হইবো। ওই চিন্তা কইরাই কুলাইতে না পাইরা নিপুরে কাজে লাগাইছি।

অর্থের অভাবে নিপুর মত সম্ভাবনামী ফুটবলারের এমন করুণ দশায় হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন নিপুর কোচ খলিলুর রহমান দোলন। নিপুর মত ক্ষুদে ফুটবলারদেরকে ফিরিয়ে আনতে না পারলে নারায়ণগঞ্জে ফুটবলের ভবিষ্যৎ কোথায় গিয়ে ঠেকবে এমন বিষয় নিয়েও উৎকণ্ঠা প্রকাশ করেন তিনি।

নারায়ণগঞ্জ ফুটবল একাডেমির কোচ খলিলুর রহমান দোলন নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘করোনার মধ্যে খোঁজ নিতে গিয়ে শুনি নিপু গার্মেন্টে কাজ করে। অথচ নিপু স্কিলড প্লেয়ার। ওর যথেষ্ট ফুটবল সেন্স আছে। পরিপূর্ণ ফুটবলার যেটাকে বলে। যা গড গিফটেড ব্যাপার। আল­াহ তাআলা ওকে দান করেছে। যেমন চুন্নু ভাই ছিল, এমিলি ছিল, মুন্না ছিল। এরা ছিল গড গিফটেড। হয়তো ওস্তাদ আলাউদ্দিন খান ঘঁষে মেজে ওদেরকে ঠিক করেছেন। কিন্তু চুন্নু ভাই আল­াহর দান। তাঁদের মত নিপুর ফুটবল স্কিল গড গিফটেড। আমি জাস্ট ওকে সিস্টেমের মাধ্যমে প্র্যাক্টিস করে প্লেয়ার বানাচ্ছি। কিন্তু একজন পরিপূর্ণ প্লেয়ার হিসেবে ও জন্মগ্রহণ করেছে।’

স্পেন যেতে না পারার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘নিপু স্পেন যেতে পারেনি এর কারণ আমি মনে করি বাফুফের দুর্নীতির কারণে। বাফুফের দুর্নীতির কারণে ওর মত আরো একটি ছেলে ও মেয়ে স্পেন যেতে পারেনি। আমি সঠিক জানি না কিন্তু বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় দেখেছি যে বাফুফে দুর্নীতি করেছিল। যে কারণে স্পেন এম্বেসি ভিসা দেয়নি।’

খলিলুর রহমান বলেন, ‘নিপুর মত আরো একজনের খোঁজ নিয়ে শুনি ইজিবাইক চালায়। আমার ক্লাবের সেরা গোলকিপার রাজু ও এখন গার্মেন্টে কাজ করে। অথচ ওর কিপিংয়ের কারণে আমি তিনবার চ্যাম্পিয়ান হয়েছি। কিন্তু ক করবে বলেন। ওর বাবা রিকশা চালায়। লকডাউনের সময় রিকশার অবস্থা খারাপ। এই রকমই অনেক স্কিলফুল প্লেয়ার যাদের নিয়ে আমি স্বপ্ন দেখেছি, যাদের নিয়ে আমি বেশি কাজ করেছি। যাদের নিয়ে পরিকল্পনা ছিল যে এরা একসময় জাতীয় দলে খেলবে। আমার পুরা পরিকল্পনাটাই নষ্ট হয়ে গেছে। একেবারে ভেঙ্গে গেছে।’

তিনি বলেন, ‘যেভাবেই হোক তাঁদেরকে ফিরিয়ে আনতে হবে। যদি তাঁদেরকে ফিরিয়ে আনা না হয় তাহলে প্লেয়ার তৈরীরর যে পাইপলাইন সেটি নষ্ট হয়ে যাবে। নারায়ণগঞ্জে নতুন করে খেলোয়াড় তৈরী হবে না। নারায়ণগঞ্জের ফুটবলের ঐতিহ্য তো অনেক আগেই নষ্ট হয়েছে। এইবার একেবারে ধ্বংস হয়ে যাবে।’


বিভাগ : খেলাধুলা


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও