খানপুরে সাঁতারে উৎসব

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:৫২ পিএম, ৫ মার্চ ২০২১ শুক্রবার

খানপুরে সাঁতারে উৎসব

নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুর এলাকায় উৎসাহ উদ্দীপনা ও উৎসব মুখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে শিশুদের সাঁতার প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

৫ মার্চ শুক্রবার সকালে সংস্কারকৃত ঐতিহাসিক শ্রী ঘাটলা পুকুরে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শওকত হাসেম শকুর উদ্যোগে এই সাঁতার প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

আর এই সাঁতার প্রতিযোগিতাকে কেন্দ্র করে এলাকাবাসীর মধ্যে ছিল উৎসবমুখর আমেজ। এদিন তারা সকাল থেকেই বিপুল উৎসার উদ্দীপনা নিয়ে পুকুরের চারদিকে ভিড় করতে শুরু করেন। এক পর্যায়ে এলাকার সকল শ্রেণি পেশার মানুষের অংশগ্রহণের পুকুরটির চারপাশ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে উঠে। সেই সাথে চারদিকে একটি উৎসব মুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়।

ক্ষুদে শিশুদের নিয়ে সাঁতার প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। প্রতিযোগিতা শেষে প্রথম তিনজনের হাতে আর্থিক পুরস্কার তুলে দেয়া এবং সকল প্রতিযোগিদের একটি করে টি-শার্ট প্রদান করা হয়।

প্রতিযোগিতায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকা নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ নেতা শামসুজ্জামান ভাসানী বলেন, এটি একটি ঐতিহ্যবাহী শ্রীঘাটলা পুকুর। পাকিস্তানেরর সময়ে এই পুকুরটি তৈরি করা হয়। আমাদের অনেকেরই এই পুকুরের সাথে স্মৃতি জড়িত রয়েছে। আমাদের ছোটবেলা এই পুকুরে কেটেছে। আমরা এই পুকুরে সাঁতার কেটেছি এবং রাতের বেলায় ঘটলায় বসে আড্ডা দিয়েছি। বর্তমানে সেই পুকুরটির অস্তিত্ব বিলীনের পথে চলে গিয়েছিল।

তিনি আরও বলেন, আমাদের যোগ্য কাউন্সিলর শওকত হাসেম শকু মেয়রের সহযোগিতায় ৬৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে পুকুরটিকে সংস্কার করেছে। যা খানপুর এলাকার প্রত্যেকটি মানুষের মনকে আন্দোলিত করেছে। আপনারা এই কাউন্সিলরের জন্য দোয়া করবেন। এই পুকুরটি রক্ষণাবেক্ষণ করবেন। আমরা সেই শ্রীঘাটলা ফেরত পেয়েছি। পুকুরে কেউ ময়লা ফেলবেন না, সাবান ও কাপড় ধুইবেন না। এলাকাবাসীর পক্ষ শকুকে ধন্যবাদ জানাই এবং তার মঙ্গল কামনা করি।

শওকত হাসেম শকু বলেন, এটা একটা ঐতিহ্যবাহী পুকুর ছিল। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে এই পুকুরটি অযত্ম অবহেলায় বিলীন হওয়ার পথে ছিল। পরবর্তীতে এলাকাবাসীর চাহিদার প্রেক্ষিতে সিটি কর্পোরেশনের সম্পূর্ণ তত্ত্বাবধানে ৬৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে পুকুরটি খনন করা হয়েছে। সেই সাথে এই পুকুরটির ঘটলা করা হয়েছে ১২০ ফিট লম্বা। এত বড় ঘাটলা নারায়ণগঞ্জের অন্য কোনো পুকুরে আছে কিনা আমার জানা নেই। এই পুকুরটিতে আজ আমরা ক্ষুদে শিশুদের জন্য সাঁতার প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছি। পরবর্তীতে ক্ষুদে মেয়ে শিশুদের জন্য সাঁতার প্রতিযোগিতার আয়োজন করবো।

তিনি বলেন, পুকুরটি সংস্কার করার উদ্দেশ্য হচ্ছে এলাকাবাসী যেন স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারে। বিশেষ করে পাড়া মহল্লাগুলোতে এখন কোনো পুকুরের অস্তিত্ব নেই। সেখানে ছোট ছোট শিশুরা সাঁতার কাটতে দেখলে নিজের কাছেও ভাল লাগে। পুকুরের চারদিকে বৃক্ষরোপন করা হয়েছে আপনারা এগুলোর যত্ন নিবেন। পুকুরে যেন কোনোভাবে সাবান ব্যবহার করা না হয়। পুকুর সংরক্ষণ করা ইমানি দায়িত্ব। সৌন্দর্য্য বর্ধনের কাজ চলামান রয়েছে। আশা করি আগামী কয়েক মাসের মধ্যে আধুনিক রূপ দিতে পারবো। এখানে ভ্রমনে আসবেন। সাথে গঞ্জে আলী খালেও মেঘা প্রজেক্ট চলমান রয়েছে। এখানকার মানুষ একসময় বলবে আমরা গর্বিত এলাকার বাসিন্দা।


বিভাগ : খেলাধুলা


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও